প্রশ্নকর্তা

বিতিরের নামাজে তৃতীয় রাকাতে উল্টো নিয়ত বাঁধার সমর্থনে সহীহ হাদীস আছে কি না?

জবাব : আপনি প্রশ্ন করেছেন, তৃতীয় রাকাতে যে উল্টো নিয়ত বাঁধা হয় তা কোন হাদীস দ্বারা প্রমাণিত? জবাবে বলব, জ্বী হ্যাঁ, এর সমর্থনে মোটামুটি নিচের হাদীস গুলো দেখা যেতে পারে! শরহু মুশকিলিল আছার ১১/৩৭৪; ইমাম আবু জা’ফর আত-ত্বহাবী (রহ.)। কিতাবটি মোট ১৬ খন্ডে প্রকাশিত। ইমাম বুখারীর দাদা উস্তাদ ইবনে আবী শায়বা সংকলিত ‘মুসান্নাফ ইবনে আবী শায়বা’ ২/৩০৭। জুযউ রাফয়িল ইয়াদাইন ৬৮; ইমাম মুহাম্মদ ইবনে ঈসমাইল আল- বুখারী (রহ.)। আস-সুনানুল কুবরা ২/২১১; ইমাম বায়হাকী (রহ.)। ইমাম আবু বাকর আহমদ ইবনে হুসাইন আল-বায়হাকী (রহ.)। এখন আপনি হয়ত প্রশ্ন করতে পারেন যে, এখানে তো সিয়াহ সিত্তা’র কোনো কিতাবই দেখতে পাচ্ছিনা! জবাবে বলব, সনদের বিশুদ্ধতার ভিত্তিতেই হাদীস গ্রহণযোগ্যতা পায়, সিয়াহ সিত্তা’র ভিত্তিতে নয়। কারণ, সমস্ত সহীহ হাদীস কিন্তু সিয়াহ সিত্তা’র ভেতরেই সীমাবদ্ধ থাকে নি। ইমাম বুখারী (রহ.) থেকে উদ্ধৃত আছে, তিনি বলেছেন “আমি প্রায় ১ লক্ষ সহীহ হাদীস থেকে মাত্র হাজার সাতেক (মোট হাদীস সংখ্যা ৭,৩৭৫) হাদীস সহীহ বুখারীর মধ্যে এনেছি।” উল্লেখ্য, ইমাম বুখারী তিনি তাঁর বুখারী শরীফে শুধুমাত্র সে সমস্ত হাদীসই সংকলন করেছেন সহীহ হাদীসের মাঝে যেগুলো তার নির্ধারিত শর্তে উন্নীত হয়েছে। অতএব বুঝা গেল, অসংখ্য সহীহ হাদীস সেই সিয়াহ সিত্তা’র বাহিরেও নানা কিতাবে উল্লেখ রয়েছে।

মূলকথায় ফিরে এলাম, এখানে প্রশ্নটি যেরকম ঠিক সেরকমই আমি উত্তর দেয়ার চেষ্টা করব, ইনশা-আল্লাহ। তাই প্রশ্নকারী ভাইটি যেহেতু জানতে চাচ্ছেন, তৃতীয় রাকাতে উল্টো নিয়ত (এখানে ‘উল্টো নিয়ত’ শব্দের বদলে ‘রাফউল ইয়াদাইন’ অর্থাৎ দুইহাত উঠানো, লিখা উচিত ছিল – লিখক) বলে হাত বাঁধার দলিল আছে কিনা, সেহেতু তার আগে তার এই বিষয়ের জ্ঞান থাকাও প্রয়োজন যে, কুনূত এটি কত প্রকার ও কী কী? রাসূল (সা.) কোন প্রকারের কুনূত কিভাবে পড়তেন এবং কোনটি সব সময় পড়তেন আর কোনটি সারা জীবনে মাত্র একবার পড়েছিলেন? তবেই পরবর্তী আলোচনা বুঝতে তার পক্ষে সহজ হবে। যাইহোক, প্রশ্নকারীর অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, কুনূত দুই প্রকার। যথা – কুনূতে নাজেলা আর অপরটি দোয়ায়ে কুনূত বা বিতিরের কুনূত। সংক্ষেপে নিচে উল্লেখ করছি। কুনূতে নাজেলা সেই কুনূত যেটি রাসূল (সা.) সারা জীবনে একবার পড়েছিলেন এবং ফজরের নামাজে দ্বিতীয় রাকাতে রূকুর পর সোজা হয়ে দাঁড়ানো অবস্থায় পড়েছিলেন। তারপর বিতিরের কুনূত। এটিকে দোয়ায়ে কুনূতও বলা হয়। আলোচ্য প্রশ্নমতে উত্তরে আসার আগে আমাদের যেই বিষয়টি পরিষ্কার করা জুরুরি সেটি হল, দোয়ায়ে কুনূত রুকুর আগে, না পরে? এর সহজ উত্তর হচ্ছে, এ বিষয়ে ফুকাহায়ে কেরামের মাঝে ইজতিহাদগত মতের ভিন্নতা রয়েছে। হানাফী মাযহবের ফকিহগণ বলেছেন, রুকুর আগে পড়তে হবে। এর দলিল হল, সহীহ বুখারী (১/১৩৬) ‘বাবুল কুনূত কাবলার রুকু ওয়া বা’দাহ’ শীর্ষক পরিচ্ছেদে আছে, আসিম আহওয়াল (রহ.) হতে বর্ণিত আছে, سَأَلْتُ أَنَسَ بْنَ مَالِكٍ، عَنِ الْقُنُوتِ؟ فَقَالَ: قَدْ كَانَ الْقُنُوتُ، قُلْتُ: قَبْلَ الرُّكُوعِ أَوْ بَعْدَهُ؟ قَالَ: قَبْلَهُ، قُلْتُ: فَإِنَّ فُلَانًا أَخْبَرَنِي عَنْكَ، أَنَّكَ قُلْتَ : بَعْدَ الرُّكُوعِ، فَقَالَ: كَذَبَ، إِنَّمَا قَنَتَ رَسُولُ اللَّهِ ﷺ بَعْدَ الرُّكُوعِ شَهْرًا অর্থাৎ আমি আনাস ইবনে মালিক (রা.)-কে কুনূত সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করলাম। তিনি বললেন, কুনূত আছে। আমি জিজ্ঞাসা করলাম, রুকুর আগে, না পরে? তিনি বললেন, রুকুর আগে। আমি বললাম, জনৈক ব্যক্তি আমাকে বলেছেন যে, আপনি রুকুর পরে কুনূত পড়ার কথা বলেছেন? তিনি বললেন, সে ভুল বলেছে। রুকুর পরে তো নবী করীম (সা.) শুধু এক মাস কুনূত (কুনূতে নাজেলা) পড়েছেন। (অনুবাদ শেষ হল)।

তবে রুকুর পরে কুনূতের কথাও হাদীসে আছে। হানাফী ফকিহগণ উভয় বর্ণনার মাঝে সমন্বয় এভাবে করেন যে, কুনূতে নাযেলা রুকুর পরে ও বিশেষ বিশেষ অবস্থায় পড়া হবে। আর বিতিরের কুনূত রুকুর আগে ও সব সময় পড়া হবে। কেননা, আনাস (রা.) থেকেই অন্য বর্ণনায় এসেছে, রাসূলুল্লাহ (সা.) আমৃত্যু কুনূত পড়েছেন। (দেখুন, মাজমাউয যাওয়াইদ ১/১৩৯) এই বর্ণনায় বিতিরের কুনূতই উদ্দেশ্য। কারণ ফজরের কুনূত সর্বদা পড়ার প্রমাণ পাওয়া যায় না।

এবার কুনূতের আগে উল্টো তাকবীর অর্থাৎ রাফউল ইয়াদাইন (হাত উত্তোলন) সম্পর্কে বলব। এই পর্যায় তৃতীয় রাকাতে কুনূত পড়ার দলিল তো পেলেন। এবার কুনূতের আগে উল্টো তাকবির (অর্থাৎ রাফউল ইয়াদাইন) করার প্রমাণ আছে কিনা দেখা যাক। হ্যাঁ, এ সম্পর্কে ত্বাহাবী শরীফের ভাষ্যমতে বুঝা যায়, যারা উপরোক্ত হাদীস সমূহের ভিত্তিতে রুকুর আগে কুনূত পড়ার কথা বলেন তাদের নিকট কিরাত এবং কুনূতের মাঝে (উল্টো) তাকবীর বলা সুন্নাত। এই তাকবীরের সাথে রাফউল ইয়াদাইন (হাত উত্তোলন) আছে। যেমন ইমাম ত্বাহাবী (রহ.) লিখেছেন وقد أجمع الذين يقنتون قبل الركوع على الرفع معها অর্থাৎ যারা রুকুর পূর্বে কুনূত পড়ার কথা বলেন তাদের ইজমা বা ঐক্যমত্য রয়েছে যে, এই তাকবীরের সাথে রাফউল ইয়াদাইনও করতে হবে।’ (ত্বাহাবী শরীফ ১/৩৩২)। আরব বিশ্বের প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ শায়খ মুহাম্মদ বিন ছালেহ আল উসাইমিন (রহ.)-এর ফতুয়া এই যে, তিনি লিখেছেন, وكذلك صح عن أمير المؤمنين عمر بن الخطاب رضي الله عنه رفع اليدين فِي قنوت الوتر ، وهو أحد الخلفاء الراشدين الذين أمرنا باتباعهم অর্থাৎ তেমনিভাবে আমীরুল মুমিনীন হযরত উমর (রা.) সম্পর্কে বিশুদ্ধসূত্রে উল্লেখ আছে, বিতিরের কুনূতের মধ্যে তিনি রাফউল ইয়াদাইন (উল্টো নিয়ত) করতেন। অধিকন্তু তিনি খোলাফায়ে রাশেদীনের অন্যতম ছিলেন যাদের আনুগত্য করার ব্যাপারে আমরা আদিষ্ট। (দেখুন, মাজমুউল ফাতাওয়া ১৪/১৩৬)। এরপর সাহাবায়ে কেরামের আমল থেকে কিছু দলিল উল্লেখ করব। কেননা, সাহাবায়ে কেরামের আমল নিশ্চয় নবী করীম (সা.)-এর সুস্পষ্ট শিক্ষা থেকেই গৃহীত আমল। নিচে দলিলসহ উল্লেখ করছি।

(১) আবু ইসহাক থেকে বর্ণিত, মাসরূক (রহ.), আসওয়াদ (রহ.) এবং ইবনে মাসউদ (রা:)-এর অন্য শাগরিদগণ বলেছেন وَكَانَ عَبْدُ اللَّهِ لا يَقْنُتُ إلا فِي الْوِتْرِ وَ كَانَ يَقْنُتُ قَبْلَ الرُّكُوعِ يُكَبِّرُ إِذَا فَرَغَ مِنْ قِرَاءَتِهِ حِينَ يَقْنُتُ অর্থাৎ আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) শুধু বিতির নামাযে কুনূত পড়তেন আর তিনি কুনূত পড়তেন রুকুর আগে এবং কিরাআত সমাপ্ত হওয়ার পর কুনূত পড়ার সময় [উল্টো] তাকবীর দিতেন। (শরহু মুশকিলিল আছার ১১/৩৭৪ মুসান্নাফ ইবনে আবী শায়বা ২/৩০৭)।

(২) ইমাম বুখারী (রহ.) তিনিও তাঁর রচিত একটি কিতাব ‘জুযউ রাফয়িল ইয়াদাইন’ এর ৬৮ নং পৃষ্ঠাতে উল্লেখ করেছেন عن أبي عثمان كان عمر رضي الله عنه يرفع يديه في القنوت অর্থাৎ আবু উছমান বলেছেন ‘উমর (রা.) কুনূতের মধ্যে রাফউল ইয়াদাইন [অর্থাৎ উল্টো তাকবীর] করতেন। তারপর ইমাম বুখারী (রহ.) তার উল্লিখিত হাদীসটির সনদ সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে লিখেন هذه الأحاديث صحيحة عن رسول الله صلى الله عليه وسلم و أصحابه অর্থাৎ এই হাদীসগুলো রাসূল (সা.) আর তাঁর সাহাবীদের পক্ষ হতে সহীহ তথা বিশুদ্ধ।

(৩) ইমাম বায়হাকী (রহ.) উল্লেখ করেছেন إن عدداً من الصحابة رضي الله عنهم رفعوا أيديهم في القنوت অর্থাৎ নিশ্চয় সাহাবায়ে কেরামের অনেকেই কুনূতের মধ্যে রাফউল ইয়াদাইন [অর্থাৎ উল্টো তাকবীর] করতেন।’ (দেখুন, আস-সুনানুল কুবরা ২/২১১; ইমাম বায়হাকী রহ: সংকলিত হাদীসের অন্যতম কিতাব)।

রাফউল ইয়াদাইন (হাত উত্তোলন)’র পর হাত কী করবে? এর জবাবে বলা হয়েছে যে, এর তিনটি পদ্ধতি হতে পারে। যথা – (১) দোয়ার মতো হাত উঠিয়ে রাখবে (২) রাফউল ইয়াদাইন (হাত উত্তোলন) করার পর কওমার মত হাত ছেড়ে দিবে (৩) রাফউল ইয়াদাইনের পর দাঁড়ানো অবস্থার মত দুই হাত বেঁধে নিবে। প্রথম পদ্ধতিটি হানাফী ফকিহগণের নিকট পছন্দনীয় নয়। কেননা, যদিও হাত তুলে দোয়া করাই দোয়ার সাধারণ নিয়ম কিন্তু নামাযের যত জায়গায় দোয়া আছে কোথাও হাত ওঠানোর নিয়ম নেই। সুতরাং দোয়ায়ে কুনূতের সময়ও এর ব্যতিক্রম হবে না। এজন্যই ইবনে উমর (রা.) এই পদ্ধতিকে বিদআত বলেছেন। তিনি বলেন : أرأيتم قيامكم عند فراغ الإمام من السورة هذا القنوت والله إنه لبدعة ما فعله رسول الله ﷺ غير شهر ثم تركه أرأيتم رفعكم في الصلاة والله إنه لبدعة ما زاد رسول الله ﷺهذا قط فرفع يديه حيال منكبيه অর্থাৎ দেখ! তোমরা যে ফজরের নামাযেও ইমামের কিরাত শেষে কুনূতের জন্য দাঁড়াও, আল্লাহর কসম! এটা বিদআত। নবী (সা.) তা শুধু এক মাস করেছেন। দেখ! তোমরা যে নামাযে হাত তুলে কুনূত পড়, আল্লাহর কসম; এটিও বিদআত। নবী (সা.) তো শুধু কাঁধ পর্যন্ত হাত তুলতেন। (আল-মু’জামুল কাবীর লিত-তবারানী; মাজমাউয যাওয়াইদ ২/১৩৭)। উপরোক্ত রেওয়ায়েতের সরল অর্থ এটাই যে, নবী করীম (সা.) কুনূতের জন্য যদিও রাফউল ইয়াদাইন [অর্থাৎ উল্টো তাকবীর] করতেন কিন্তু দোয়ার মতো হাত উঠিয়ে কুনূত পড়তেন না।

দ্বিতীয় ও তৃতীয় পদ্ধতি সম্পর্কে কথা এই যে, কুনূত যদি রুকুর আগে পড়া হয়, যেমন বিতরের কুনূত; তো রুকুর আগের অবস্থা যেহেতু দাঁড়ানো অবস্থা, আর দাঁড়ানো অবস্থায় হাত বাঁধা সুন্নত, তাই এ সময়ও হাত বাঁধা থাকবে। পক্ষান্তরে কুনূতে নাজেলা যেহেতু রুকুর পর কওমার হালতে পড়া হয় আর কওমার হালতে হাত বাঁধা সুন্নত নয়; তাই এটিও (কুনূতে নাজেলা) হাত না বেঁধে বরং ছেড়ে দেয়া অবস্থাতেই পড়া হবে। সংক্ষেপে এইটুকু লিখলাম। নতুবা আরো অনেক দলিল দেয়া যেত। আল্লাহ আমাদের মুহাম্মদে আরাবীর আনীত সহীহ দ্বীন বুঝার তাওফিক দিন। আমীন।

লিখক ও গবেষক, প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী এম.এ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here