Home Blog

সহজে কাদিয়ানী চেনার উপায়

লিফলেট? : কাদিয়ানী কারা? ১৯৮৫ সালে বাংলাদেশ হাইকোর্ট থেকে তাদের বইপুস্তক বাজেয়াপ্ত করে কেন?

কাদিয়ানীদের কাছ থেকে এ প্রশ্নগুলোর কোনো সঠিক উত্তর আপনি পাবেন না [1] [2] [3] [4] [5]

মির্যা কাদিয়ানীর স্ববিরোধ কথাবার্তা [1][2][3][4][5][6][7][8][9][10][11][12][13][14][15][16][17][18][19][20][21][22][23][24][25][26][27][28][29][30][31][32][33][34][35][36][37][38][39][40][41][42][43][44][45][46][47][48][49][50]

হায়াতে ঈসা : কুরআনুল কারীম [1][2][3][4][5] | হাদীস শরীফ [ঈসা আঃ দামেস্কের যেখানে নাযিল হবেন][1][2][3][4][5][6] [7] [8] যুগ-ইমামগণ [1]

খতমে নবুওয়ত : [খাতাম][খাতামুন নাবিয়্যীন][মির্যায়ী অপব্যাখ্যা ও খণ্ডন [1][2][3] [আয়াত][হাদীস][ত্রিশজন মিথ্যাবাদী নবী] [আ’রাফ ৩৫] [নিসা ৬৯] [অন্যান্য]

মির্যা কাদিয়ানীর নবী রাসূল দাবী : [1][2][3][4] | মির্যায়ী রচনাবলীতে তাকফির : [1][2][3] | কাদিয়ানীদের চেপে রাখা ধর্মবিশ্বাস : [1][এগুলো কাদিয়ানী ধর্মবিশ্বাস][ডাউনলোড পিডিএফ ফাইল]

ইমাম মাহদী : [1][2][3][4][5][কাদেয়া-জমিদার বংশীয়][চন্দ্রসূর্য গ্রহণ সম্পর্কিত সংশয় নিরসন]

সহজে কাদিয়ানী চেনার উপায় :

কাদিয়ানীরা সাধারণত খুবই ধূর্ত ও জঘন্য প্রতারক হয়ে থাকে। তাদের বেশিরভাগই মাথায় কালো টুপি পরে আর মুখে ফ্রেঞ্চ কাটিং দাড়ি রাখে। তাদের ৯০% ফেইসবুক ইউজারের প্রোফাইল লক থাকে, খুব বেশি তর্কপ্রিয় ও ঝগড়াটে হয়ে থাকে। সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য একদম সাধারণ বিষয়কেও দুর্বোধ্যভাবে পেশ করে থাকে। তাদের খুব কমন একটা ডায়লগ ঈসা আ. আবার আসলে তখন শেষনবী কে থাকছেন? এর উত্তর আলাদা আর্টিকেলে দেয়া হয়েছে। এখানে সংক্ষিপ্ত উত্তরে বলব যে, ঈসা (আ.)-এর পুনঃ আগমনের প্রেক্ষিতে এই জন্য প্রশ্ন নেই যে, ঈসা (আ.) মুহাম্মদ (সা.)-এর আগেই নবুওয়ত প্রাপ্ত একজন নবী। আর ঈসা (আ.) শেষ যুগে নবুওয়তের দায়িত্ব নিয়ে অর্থাৎ নবী হিসেবে আসবেন না, বরং একজন ন্যায়পরায়ণ শাসক এবং সুপথপ্রাপ্ত ইমাম ((يوشِكُ من عاشَ منكُم أنْ يرَى عيسَى ابنَ مريَمَ حكمًا عدلًا وإمامًا مهديًا فيكسِرَ الصَّليبَ ويقتُلَ الخِنزيرَ ويضَعَ الجزيَةَ وتضَعُ الحرْبُ أوْزارها)) ও উম্মতে মুহাম্মদীর পদ মর্যাদা নিয়ে (و على ملته) আসবেন। এখানে আরেকটা কথা বলে রাখা জরুরি যে, উম্মতে মুহাম্মদীর পদ মর্যাদা নিয়ে আসার অর্থ এ নয় যে, তাঁর পূর্বের নবুওয়ত বাতিল হয়ে যাবে, বরং এখানে ঐ কথার অর্থ হল, নবুওয়তে মুহাম্মদীর সময়টিতে তাঁর আনীত শরীয়ত রহিত ও তিনি সর্বশ্রেষ্ঠ এবং শেষনবী মুহাম্মদ (সা.)-এর শরীয়তের অনুগামী হয়ে যেতে বাধ্য। কারণ হাদীসে সুস্পষ্ট করে বলা হয়েছে যে ((وَلَوْ كَانَ مُوسَى حَيًّا مَا وَسِعَهُ إِلَّا اتِّبَاعِي)) অর্থাৎ যদি মূসাও (ইহজগতে) জীবিত থাকত তাহলে তাঁর জন্যও আমার আনুগত্য করা ছাড়া কোনো উপায় ছিলনা। (মুসনাদে আহমদ ৩/৩৮৭, হাদীসের মান – হাসান)। তাদের আরও একটি ডায়লগ হচ্ছে, ঈসা (আ.) এর পক্ষে আবার এসে সারা দুনিয়া ঘুরে ঘুরে খ্রিস্টানদের ক্রুশগুলো ভাঙ্গা এবং জঙ্গল থেকে সমস্ত শুয়োর খোঁজে খোঁজে হত্যা করা কীভাবে সম্ভব? উত্তরের জন্য পড়ুন এখান থেকে। কাদিয়ানীদের আরেকটা ডায়লগ হল, যদি ‘শেষনবী‘ বলতে এই অর্থ উদ্দেশ্য হয় যে, ‘তাঁর (সা.) পর আর কাউকে নবী বানানো হবেনা’ তখন প্রশ্ন আসবে যে, ‘আমি তখনও খাতামান নাবিয়্যীন ছিলাম যখন আদম পানি এবং কাদার মাঝে সৃষ্টির সূচনায় ছিলেন‘—হাদীসটির কী অর্থ উদ্দেশ্য? আসলে তারা এ সমস্ত প্রশ্ন ও তর্কের আড়ালে মির্যা কাদিয়ানীর মসীহ ও নবী দাবীর বৈধতা খুঁজতে চায়। কিন্তু হাস্যকর ব্যাপার হল, এদের কাউকেই আমি আজ পর্যন্ত স্বীকার করাতে পারিনি যে, তারা কি তাহলে নিজেদের মির্যা কাদিয়ানীর ‘উম্মত’ বলে স্বীকার করবে? কেননা যে কাউকে ‘নবী’ মানবে সে নিজেকে নির্বিঘ্নে তার ‘উম্মত’ বলেও স্বীকারোক্তি দিবে—এটাই স্বাভাবিক! আর এমনটা তো নয় যে, আমরা আগত ঈসা (আ.)-এর পুনরায় আগমনকে স্রেফ ‘উম্মতি‘ হিসেবেই বিশ্বাস করে কোনো ভুল করছি! আমরা কুরআন এবং হাদীস হতে আমাদের মুসলিম উম্মাহার বিশ্বাসের সমর্থনে মজবুত দলিলও দিয়ে থাকি, এমনকি মির্যা কাদিয়ানীর রচনাবলি হতেও। জেনে আশ্চর্য হবেন, আগত ঈসা নবুওয়তের দায়িত্বে থাকবেন না, তিনি স্রেফ ‘উম্মত’ হিসেবে থাকবেন; এ কথা খোদ মির্যা কাদিয়ানীর-ও। যেমন সে তার রচনার এক স্থানে লিখেছে, “কুরআন শরীফ দ্বারা তো সাব্যস্তই আছে যে, প্রত্যেক নবীই হযরত (সা.)-এর উম্মতের অন্তর্ভুক্ত। যেমন আল্লাহতালা বলেন-ثُمَّ جَاءَكُمْ رَسُولٌ مُّصَدِّقٌ لِّمَا مَعَكُمْ لَتُؤْمِنُنَّ بِهِ وَلَتَنصُرُنَّهُ (তারপর তোমাদের নিকট যদি এমন একজন রাসূল আগমন করেন যিনি তোমাদের নিকট থাকা কিতাবের সত্যায়নকারী তখন তোমরা অবশ্যই তার প্রতি ঈমান আনবে এবং তাঁকে সাহায্য করবে)। সুতরাং এইভাবেই সমস্ত আম্বিয়া (আলাইহিমুস সালাম) হযরত (সা.) এর উম্মত হয়ে যান।” (বারাহীনে আহমদীয়া খ-৫, রূহানী খাযায়েন ২১/৩০০)। বলাবাহুল্য, ‘সমস্ত আম্বিয়া’ বলতে কিন্তু ঈসা (আ.)-ও তার মধ্যে শামিল। জানি না এখন তার ঝগড়াটে উম্মতেরা এর প্রতিউত্তরে কী বলবে! এদের প্রাপ্তবয়স্ক মেয়েরা সাধারণত নেকাব পরে নাকের নিচ দিয়ে। এদের ধর্মীয় পড়াশোনার হাতেগড়ি নির্দিষ্ট দুটি সাবজেক্ট—ঈসা (আ.) জীবিত না মৃত আর মুহাম্মদ (সা.)-এর পরেও নবুওয়তের সিলসিলা (ধারাক্রম) চালু না বন্ধ, এই দুটো নিয়ে। তারা মূলত মির্যা গোলাম আহমদকে একজন রূপক মসীহ সাব্যস্ত করতেই হযরত ঈসা (আ.)-কে আল্লাহ সশরীরে জীবিত আকাশে উঠিয়ে নেয়ার কুরআন সুন্নাহভিত্তিক আকিদার অস্বীকারকারী। অথচ সহীহ মুসলিম, তারীখে দামেস্ক, কাঞ্জুল উম্মাল ইত্যাদি গ্রন্থে সুস্পষ্টভাবে বর্ণনায় এসেছে যে, ঈসা (আ.) শেষযুগে দামেস্কে নাযিল হবেন। আল্লাহ তাঁকে ফেরেশতার মাধ্যমে আকাশ থেকে পাঠাবেন। তেমনিভাবে ইসলামের গত চৌদ্দশত বছরের ইতিহাসে গত হয়ে যাওয়া সমস্ত পূর্ববর্তী ও পরবর্তী যুগের ইমামগণেরও বিশ্বাস হচ্ছে, ঈসা (আ.)-এর মৃত্যু এখনো হয়নি। কিন্তু কাদিয়ানীধর্মের বিশ্বাসমতে, ঈসা (আ.)-এর ১২০ বছর বয়সে কাশ্মীরে মৃত্যু হয়ে গেছে, কাশ্মীরের খান ইয়ার মহল্লায় সমাহিত ইউজ আসেফ (1,2) নামীয় ব্যক্তির কবরটিই ঈসা (আ.)-এর কবর (নাউযুবিল্লাহ)। মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানীই মূলত ‘কাদিয়ানী জামাত’-এর প্রতিষ্ঠাতা। তাকে তার সাধারণ অনুসারীরা ইমাম মাহদী বিশ্বাস করার দাবী করলেও ‘নবী’ বিশ্বাস করেনা বলেই সাফ বলে দেয়ার চেষ্টা করে। আসলে এরা নিজেদের অজ্ঞতার জন্যই তাকে যেমন ইমাম মাহদী বিশ্বাস করে নিয়েছে, ঠিক একই রকম অজ্ঞতার জন্যই তারা তার নবী দাবী করা সম্পর্কেও বেখবর। এরা খুব সাধারণ ও জেনারেল মানুষদের ধোকা দিয়ে থাকে। সম্প্রতি জেনারেল শিক্ষিতরাও এদের ব্যাপারে খুবই সাবধান হচ্ছেন। চট্টগ্রামের জনৈক চিকিৎসক একদা আমার কাছ থেকে জানতে চাইলেন যে, সাধারণদের জন্য কাদিয়ানীদের সাথে ডিবেট করার পন্থা কী? অর্থাৎ কোন নিয়মনীতি মান্য করলে তাদের সাথে বুদ্ধিবৃত্তিক বিতর্কে সফল হওয়া যাবে।? যাইহোক, কাদিয়ানীরা ছলেবলে কৌশলে তাদেরকে কাছে টেনে নেয়ার চেষ্টা করে। তাদের কাছ থেকে বাইয়েত নিয়ে অত:পর ব্রেইন ওয়াশ করে ফেলে, যাতে তাদের বলয়ের বাহিরে ছুটে না যায়। তবে এরপরেও অনেকে বাস্তবতা বুঝতে পেরে কেটে পড়েন। এমনি একজন যুবকের ফোনালাপ থেকে আমি একটি হৃদয় বিদারক ঘটনা স্যোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছি। দেখুন এখানে। আগের আলোচনায় আবার ফিরে এলাম। সাধারণ কাদিয়ানী যুবক-যুবতীরা মির্যা কাদিয়ানীর দাবীগুলো সম্পর্কে পুরোপুরি অন্ধকারে। বিশেষ করে তার ‘শেষনবী’ হবার দাবীটি সম্পর্কে। এই বিষয়ে স্ক্রিনশট সহ কয়েকটি সিরিজ ভিডিও দেখুন। মির্যা কাদিয়ানীর নবী-রাসূল দাবী, সিরিজ ভিডিও (১), (২), (৩), (৪)। (লিফলেট [ডাউনলোড লিংক] (১), (২) অপ্রিয় হলেও সত্য হল, তাদের শীর্ষনেতাদের তৈরিকৃত সিলেবাসের বাহিরে তাদের অধীনস্থদের মন-মগজে ইসলামের ফান্ডামেন্টাল শিক্ষার ছিটেফোঁটাও থাকেনা। এদের প্রাধানতম বৈশিষ্ট্য, কুরআন শরীফ অশুদ্ধ পড়া আর নিজের মত করে ব্যাখ্যা দেয়া। এরা মুসলমানদের মসজিদে যায় না, মুসলমানদের জানাজাতেও অংশগ্রহণ করেনা। এদের পিতা মাতার জানাজাতেও অংশগ্রহণ করতে জোরালো ভাবে নিষেধাজ্ঞা থাকে, বড়জোর জানাজায় কাঠের পুতুলের ন্যায় সোজা দাঁড়িয়ে থাকতে পারলে তবেই সে পর্যন্ত অনুমতি রয়েছে। কত পাষণ্ড আর হতভাগা এরা!ছোটবেলা থেকেই এদেরকে চরম আলেম উলামা বিদ্বেষী করে তোলা হয় বলে এরা আলেম উলামার কাছ থেকেও দূরে থাকে। আলেম উলামার প্রতি এদের মজ্জাগত বিদ্বেষ আর দুশমনির ফলে এদের বেশিরভাগ Ex ahmadi দুর্ভাগ্যবশত মুলহেদ হয়ে যায়, তবু ইসলাম গ্রহণ করতে চায় না। কারণ এদের মন মগজে সেই ছোট বেলা থেকেই ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে যে, বর্তমান ইসলাম মোল্লা মৌলভীদের বানানো ইসলাম। নাউযুবিল্লাহ। অথচ ইসলামের বুনিয়াদ হচ্ছে, পবিত্র কুরআন এবং কুরআনের মর্মার্থ সুস্পষ্টকারী সহায়ক সংকলন রাসূল (সা.)-এর সীরাত তথা সুন্নাহ।

এরা জিহাদ ফী সাবীলিল্লাহ এবং খেলাফত রাষ্ট্রের চরম বিরোধী। স্বভাবতই ব্রিটিশপ্রিয় হয়। কুরআন হাদীসকে সরাসরি অস্বীকার করার পরিবর্তে রূপক কিবা অপব্যাখ্যার মাধ্যমে ঘুরিয়ে প্যাঁচিয়ে অস্বীকারকারী হয়। আর নিজ মতবাদের পক্ষে এমন সব বর্ণনা বা উদ্ধৃতিও উপস্থাপন করে থাকে যেগুলোর বেশিরভাগই জাল, জঈফ বা মুনকার পর্যায়ের অগ্রহণযোগ্য বর্ণনা; কোনো অথেনটিক সোর্স থেকেও সংগৃহীত নয়। এদের অন্যতম একটি বৈশিষ্ট্য হল, এদের বইপুস্তক অগণিত স্ববিরোধ কথাবার্তায় ভর্তি, যা এদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেও এরা মেনে নিতে চায় না। এগুলো আমার দীর্ঘ অবিজ্ঞতা থেকেই লিখলাম। আরও জানার বিষয় হল, সারা দুনিয়ায় এদের দাবী হচ্ছে, সংখ্যায় এরা ২০ কোটি। অথচ নিরপেক্ষ গণনামতে এরা কোনো ভাবেই ১৫-২০ লাখের বেশি হবেনা। বাংলাদেশে এদের সংখ্যা এদেরই দাবী অনুসারে ১ লক্ষ। তবে আমাদের জরিপ বলছে, এরা কোনো ভাবেই ২৫ হাজারের বেশি হবেনা। বিবাড়িয়া, দিনাজপুর, পঞ্চগড়, সাতক্ষীরার সুন্দরবন, জামালপুরের সরিষাবাড়ি আর বান্দরবন, যশোর এবং খুলনায় এদের সংখ্যাটা তুলনামূলক বেশি। প্রাণ, আর.এফ.এল কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা মেজর (অব.) আমজাদখান চৌধুরী আর বাংলাদেশের বর্তমান কাদিয়ানীদের ন্যাশনাল আমীর জনাব আব্দুল আউয়াল সাহেব দুইজনই মামাতো আর ফুফাতো ভাই। জনাব আমজাদখানের পিতা আলী কাশেমখান চৌধুরী আর কাদিয়ানী আমীরের মাতা মাসুদা সামাদ আপন ভাই বোন। কাদিয়ানীদের একটি বই ‘সীরাতে মাহদী’-তে ইসলাম বিরোধী ১৬টি চরম বিভ্রান্তিকর ধর্মবিশ্বাস এর উল্লেখ রয়েছে, যা তারা সাধারণ মানুষ থেকে বরাবরই গোপন রাখে। আমি তাদের ডজনখানেক বই থেকে স্ক্রিনশট সহ মির্যা কাদিয়ানীর নবী ও রাসূল দাবীর প্রমাণও অত্র রচনায় দিয়ে রেখেছি। পাঠকদের জন্য আরও বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেলও অত্র রচনায় সন্নিবেশিত করে দিয়েছি। তন্মধ্যে কাদিয়ানীদের কলেমার গোপন রহস্যপ্রতিশ্রুত মসীহ্‌ এর পরিচয় এবং প্রতীক্ষিত মাহ্‌দী এর পরিচয় অন্যতম। অধিকন্তু তাদের কেউই এখনো দুনিয়ায় আবির্ভূত হননি। ইমাম মাহদী সংক্রান্ত হাদীসগুলোর মধ্যে পরিষ্কার লিখা আছে যে, তিনি নবীজী (সা.)-এর কন্যা ফাতেমার পুত্র হযরত হাসান (রা.)-এর বংশে জন্মগ্রহণ করবেন। সে হিসেবে তিনি সাইয়েদ এবং কুরাইশীও হবেন তার নাম হবে মুহাম্মদ, পিতার নাম আব্দুল্লাহ, জন্মস্থান হবে আরব (মদীনা), মাহদীয়তের উপর বাইয়েত শুরু করবেন মক্কায়। তিনি আরবে খিলাফত প্রতিষ্ঠা করবেন। আবুদাউদ শরীফে (কিতাবুল, মাহদী অধ্যায়) এসেছে, ‘ইমাম মাহদী সাত বছর রাষ্ট্রকার্য পরিচালনা শেষে ইন্তেকাল করবেন।’ শায়খ নাসির উদ্দীন আলবানী (রহ.) তার ‘আল জামেউস সহীহ’ কিতাবে হাদীসটিকে “হাসান” (حسن) বলেছেন। উল্লিখিত পরিচিতির আলোকে দৃঢ়ভাবে বলা যায় যে, রাসূল (সা.) শেষ যামানায় আগমনকারী যে ইমাম মাহদীর সুসংবাদ দিয়ে গেছেন আজকের এই দিন (২০২২ ইং, এই আর্টিকেল লিখার সময়) পর্যন্ত সেই ইমাম মাহদী এবং প্রতিশ্রুত ঈসা (আ.) দুইজনের কেউই আবির্ভূত হননি। আল্লাহ চাহিলে দুইজনই যথাসময়ে আসবেন। মির্যা গোলাম আহমদ এর দাবী একই সাথে ইমাম মাহদী এবং ঈসা, দুটোই। কিন্তু রাসূল (সা.) উক্ত দুই মহা পুরুষ সম্পর্কে সহীহ হাদীসগুলোতে যেই পরিচিতি রেখে গেছেন তার ছিটেফোঁটাও মির্যা গোলাম আহমদের সাথে মিল পাওয়া যায় না। এটি পড়ুন, এক নজরে মির্যা কাদিয়ানী। উল্লেখ্য, প্রতীক্ষিত ইমাম মাহদী এবং হযরত ঈসা ইবনে মরিয়ম আলাদা দুই ব্যক্তিই। বহু সহীহ হাদীসে দুইজনের ভিন্ন ভিন্ন পরিচয় একদম সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত আছে। কাদিয়ানীদের বইতে দুই ঈসা’র বিভ্রান্তিকর কনসেপ্ট এর জবাব এখানে। তাদের ‘ওয়া লাল মাহদী ইল্লা ঈসা ইবনু মরিয়ম’ এর বর্ণনা দিয়ে বিভ্রান্তিকর কনসেপ্ট এর জবাবও এখান থেকে দেখে নিন। ইমাম মাহদী একই সাথে ফাতেমি, আব্বাসী, হাসানী, হোসাইনী সব কিভাবে হতে পারেন? মাহদীয়তের নিদর্শনের নামে কাদিয়ানীদের উপস্থাপিত চন্দ্রসূর্য গ্রহণের বর্ণনাটি কেন গ্রহণযোগ্য নয়?। এই কাদিয়ানী গোষ্ঠীটি তাদের মতের বাহিরে সমস্ত মুসলমানকে অমুসলিম, কাফের, জাহান্নামী মনে করে থাকে। এরা অন্যান্য মুসলমানের মত হযরত মুহাম্মদ মোস্তফা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর উম্মত দাবী করা সত্ত্বেও বিশ্বের সমস্ত মুসলিম স্কলারদের সর্বসম্মতিক্রমে কাফের ও ইসলাম থেকে খারিজ। তার কারণ এরা খতমে নবুওয়ত এবং হায়াতে মসীহ সহ ইসলামের বহু মৌলিক বিশ্বাসকে কুরআন এবং সুন্নাহর অপব্যাখ্যার আড়ালে অস্বীকার করে থাকে। এরা আজ থেকে শতাধিক বছর আগে ১৮৩৯ খ্রিষ্টাব্দে তথা ১২৫৬ হিজরী সনে ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশের কাদিয়ান নামক গ্রামে জন্মগ্রহণকারী এক ব্যক্তিকে নবী বলে বিশ্বাস করে। তার নাম ছিল মির্যা গোলাম আহ্‌মদ (১৮৩৯-১৯০৮)। সে নিজেকে প্রতিশ্রুত ঈসা (আ.)-এর রূপক সত্তা এবং শেষ যুগে আগমনকারী ইমাম মাহদী হবার দাবীও করে। অথচ কুরআনের আয়াত ও সহীহ্ হাদীসের মানদণ্ডে এই লোকের দাবীগুলোর একটিও টিকেনা। তাই কোনো সন্দেহ নেই যে, এই ব্যক্তি নিজ দাবীতে একজন জঘন্য মিথ্যাবাদী ও প্রতারক। এখানে তার কয়েকটি উক্তি তুলে ধরছি, যা পড়ার পর যে কেউই তার আসল পরিচয় পর্যন্ত সহজে পৌঁছতে পারবে! যথা- ১. মির্যা কাদিয়ানী ১৮৯৮ সালের দিকে ব্রিটিশ-ভারত রাণী আলেকজান্ড্রিনা ভিক্টোরিয়াকে সম্বোধন করে লিখেছিল, ‘নিজেদের হাতে রোপিত এই চারাগাছটির ব্যাপারে খুব সতর্কতা ও অনুসন্ধানের সাথে অগ্রসর হবেন এবং আপনার অধীনস্তদের বলবেন তারা যেন এই পরিবারের ত্যাগ ও নিষ্ঠার কথা মনে করে আমার দলের প্রতি সদয় দৃষ্টি জ্ঞাপন করেন। আমাদের পরিবার ইংরেজ সরকারের কল্যাণে নিজেদের খুন বইয়ে দিতে ও জীবন দিতেও দ্বিধা করেনি আর না এখনো দ্বিধা করছে।’ (মাজমু’আয়ে ইশতিহারাত ৩/২১-২২; নতুন এডিশন)। তার এই কথা পরিষ্কার প্রমাণ যে, সে ব্রিটিশদেরই সৃষ্টি ছিল। ২. ‘আমার বিশ্বাস, যে হারে প্রতিদিন আমার অনুসারির সংখ্যা বাড়ছে সেই হারে জিহাদের পক্ষাবলম্বীর সংখ্যাও কমছে।’ (মাজমু’আয়ে ইশতিহারাত ৩/১৯)। এখানে তার এই বক্তব্য ব্রিটিশ ভারতের ১৮৫৭ সালের আযাদী আন্দোলন ও সিপাহী বিদ্রোহকেই স্মরণ করে দিচ্ছে। মূলত ঐ সমস্ত আন্দোলন সংগ্রাম দমিয়ে রাখতেই পরবর্তীতে এই মির্যায়ী তথা কাদিয়ানী জামাতের সৃষ্টি। ৩. ‘ব্রিটিশ সরকারের আনুগত্য ইসলামেরই একটি অংশ’ (রূহানী খাযায়েন ৬/৩৮০)। মির্যা কাদিয়ানীর এই বক্তব্য আমার উপরোক্ত সবগুলো দাবীকে দ্বিপ্রহরের সূর্যের মত একদম পরিষ্কার করে দেয়। যাইহোক ২৫ শে মে ১৮৯৩ সালে অমৃতসর নামক স্থানে মির্যা কাদিয়ানীর সাথে তৎকালীন মুসলিম নেতা শায়খ আব্দুলহক গজনভী (রহ.)-এর একটি মুবাহালা অনুষ্ঠিত হয়। (দেখুন, রূহানী খাযায়েন ৬/৩৭২)। উক্ত মুবাহালায় উভয়পক্ষ নিজের উপর নিজে বদ দোয়া করেন এবং মুবাহালাকারী দুইপক্ষের সত্যবাদীর জীবদ্দশায় যিনি প্রকৃতপক্ষে একজন মিথ্যাবাদী তিনি যেন ধ্বংস হন, এইরূপ কামনাও করেন (দেখুন, মালফূজাত ৫/৩২৭; চতুর্থ এডিশন)। ইতিহাস সাক্ষী, পরবর্তীতে শায়খ গজনভী (রহ.) মারা যান ১৬ই মে ১৯১৭ সালে। আর মির্যা কাদিয়ানী শায়খের জীবদ্দশায় প্রায় ৯ বছর পূর্বেই ১৯০৮ সালে লাহোরে ২৬ শে মে বুধবার সকাল সাড়ে দশটায় কলেরায় আক্রান্ত হয়ে টাট্টিতে নিপতিত হয়ে মারা যায়। তার লেখিত প্রায় ৮৩টি বইয়ের সমষ্টির নাম ‘রূহানী খাযায়েন‘ (আধ্যাত্মিক ভাণ্ডার), যা আনুমানিক ১৯৬০ সালের দিকে ২৩ খণ্ডে প্রকাশ করা হয়। বইগুলো দ্বারা সেসব মানুষ খুব বিভ্রান্ত হয় যাদের পূর্ব থেকে কুরআন ও সহীহ হাদীসের আলোকে আলোচ্য বিষয়ে গভীর কোনো জ্ঞান নেই। একটি হাদীসে এসেছে, মহানবী (সা.) তাঁর পরবর্তী সময়ে ত্রিশ জন নবুওয়তের মিথ্যা দাবীদারের আবির্ভাব হবার ভবিষ্যৎবাণী দিয়ে গেছেন (সুনান তিরমিজী (ইফা) অধ্যায়ঃ ৩৬/ কিতাবুল ফিতনা)। সহীহ বুখারীর ব্যাখ্যাকারক ইমাম ইবনে হাজার আসকালানী (রহ.) (মৃত. ৮৫২ হিজরী) হাদীসটির ব্যাখ্যায় লিখেছেন, এই ত্রিশজন মিথ্যাবাদী বলতে বিশেষভাবে ওরাই উদ্দেশ্য যাদের দাপট প্রতিষ্ঠা পাবে এবং (সাধারণ মানুষের ভেতর) তাদের তৎপরতার কারণে মারাত্মক সন্দেহ সৃষ্টি হবে। (ফাতহুল বারী শরহে সহীহ বুখারী : খণ্ড ১২ পৃষ্ঠা ৩৪৩)। সমস্ত ইসলামি বিশেষজ্ঞ একমত যে, মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী তাদেরই মধ্য হতে একজন। পাঠকদের উদ্দেশ্যে এখানে কয়েকটি লিখার লিংক দিচ্ছি। গুরুত্ব সহ পড়ার অনুরোধ থাকল, কাদিয়ানীরা কাফের কেন? মির্যা কাদিয়ানীর ৫টি মিথ্যা ভবিষ্যৎবাণী। তথাকথিত উম্মতিনবী কাদিয়ানী জামা’তের প্রতিষ্ঠাতার কিছু দাবী দাওয়া। মির্যা কাদিয়ানীর কিছু মিথ্যাচার, প্রতারণা ও জালিয়াতি। অথচ হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে সমস্ত কাফির মুশরিক ‘সত্যবাদী‘ বলে স্বীকারোক্তি দিয়েছিলেন। পবিত্র কুরআনের ত্রিশ আয়াতে ঈসা (আ.)-এর মৃত্যু হয়ে যাওয়ার দাবী কেন ডাহা মিথ্যা? আমাদের ওয়েবসাইট ও আমাদের ভিডিও সমূহ ইউটিউব থেকে (markajTV by PNN) (হেদায়েতের পথিক) দেখার আহবান রইল। আমার (লিখক) ফেইসবুক পেইজ (ধারাবাহিক লাইভ পর্ব) থেকে ভিডিওগুলো দেখার আমন্ত্রণ রইল। আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য শেয়ার করতে আমাদের Telegram চ্যানেলে যুক্ত হতে পারেন। আমার সবগুলো বই (১২টি) এক সাথে অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করুন। এবার মির্যা কাদিয়ানীর নবী, রাসূল দাবীর প্রামাণ্য কিছু স্ক্যানকপি দেখানো হল,

বই : এক গলতি কা ইযালা বা একটি ভুল সংশোধন পৃ-৩ ও ৪
বই : দাফেউল বালা পৃ-১২

কথিত উম্মতিনবী দাবীতেও মির্যা ফেঁসে গেলেন কিভাবে দেখুন

লিখক, শিক্ষাবিদ ও গবেষক- প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী এম.এ, যোগাযোগ- 01629941773 (What’sapp, Telegram & Imo), ইমেইল- nabifeni44@gmail.com

এমদাদুস সুলুক গ্রন্থে নবীজীর ছায়া ও নূর এর তাৎপর্য সম্পর্কে

এমদাদুস সুলুক গ্রন্থে ‘নবী করীম (সা.)-এর ছায়া থাকা এবং তিনি আল্লাহর নূর দ্বারা সৃষ্ট – মর্মে দলীলবিহীন ও মনগড়া যত সব আকীদার উল্লেখ রয়েছে সেসব আকীদা থেকে আমি আল্লাহর নিকট পানাহ চাচ্ছি! কারণ আমি ‘আকীদা’ এর ক্ষেত্রে শুধুই কুরআন এবং সহীহ হাদীস অত:পর মাতুরিদি ধারার ব্যাখ্যামূলক আকীদারই একনিষ্ঠ অনুসারী। এর বিপরীতে কোনো ব্যক্তি কী বলল তা আমার নিকট কোনো গুরুত্ব রাখেনা। হোক সে ব্যক্তি মর্যাদা ও সম্মানে অনেক বড় জ্ঞানী, কুতুবে জামান কিংবা মুজাদ্দিদে দাওরান!

মূল আলাপে আসা যাক,

মওলানা রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী রাহিমাহুল্লাহ। একজন সমসাময়িক বিজ্ঞ স্কলার ও ফকীহ। আধ্যাত্মিক ধারার একজন বিখ্যাত পীর সাহেব। উনার অন্যতম রচনা ‘এমদাদুস সুলুক’। রচনাটি আধ্যাত্মিক কনসেপ্ট এর উপরই রচিত। এর মূল ভাষা ফার্সী, সেটিকে উর্দূতে ভাষান্তর করেছেন মওলানা আশেক ইলাহী মিরাঠি।

আমি এখানে বইটির উর্দূ এডিশন এর ২০১ এবং ২০২ নং পৃষ্ঠা থেকে বাংলায় অনুবাদ করে দিচ্ছি। পাঠকবৃন্দ খুব ভালো করে উর্দূর সাথে আমার অনুবাদটি মিলিয়ে নেবেন। এখানে যে বিষয়টির আলোকপাত করতে চাচ্ছি সেটি হচ্ছে, মওলানা রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী সাহেবের একটি আকীদা, যা তিনি সম্পূর্ণ মনগড়া ব্যাখ্যার আলোকে চিত্রিত করে গেছেন। তিনি লিখেছেন, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ছায়া ছিলনা, তিনি আরও লিখেছেন, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তিনি আল্লাহর নূর দ্বারা সৃষ্টি হন এবং তাঁর নূর দ্বারা মুমিনগণ সৃষ্টি হন। অথচ তিনি এর সমর্থনে কোনো দলীল প্রমাণ উল্লেখ করেননি, কোনো নির্ভরযোগ্য হাদীস থেকে কিছুই উদ্ধৃত করেননি। যদিও বা একজন কুতুবে জামান খ্যাত, দারুলউলুম দেওবন্দের শীর্ষস্থানীয় একজন মান্যবর আলেম এবং ফকীহ থেকে এধরণের দলীল বিহীন ও মনগড়া আকীদা কেউই আশা করেনা, করতে পারেনা।

আমি একজন হানাফী মাযহাবের ফলোয়ার ও মাতুরিদি ধারার ব্যাখ্যামূলক আকীদার অনুসারী। সে হিসেবে আমি মওলানা রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী সাহেবের উক্ত আকীদার সমর্থন না হানাফী মাযহাবের স্বীকৃত কোনো কিতাবে পেয়েছি, আর না মাতুরিদি ধারার ব্যাখ্যামূলক আকীদার কোনো কিতাবে পেয়েছি, কোথাও পাইনি। বরং নির্ভরযোগ্য অসংখ্য হাদীসের সাথে পুরোপুরি সাংঘর্ষিক হিসেবেই দেখতে পাই। অথচ একথা কারোরই অজানা নয় যে, কুরআন এবং বিশুদ্ধ হাদীসের বিপরীতে শুধুমাত্র দুর্বল রেওয়ায়েত কিংবা উম্মাহার প্রধান প্রধান ইমামগণের নিজেস্ব মত দ্বারা আকীদার কোনো বিষয় কখনোই সাব্যস্ত হয়না।

এবার রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী সাহেবের কিতাব থেকে হুবহু অনুবাদ তুলে ধরছি। যাতে উম্মাহ তাঁর মত একজন বিশিষ্ট ফকীহ ও আল্লামার নিজেস্ব মত ও বক্তব্য দ্বারা বিভ্রান্ত না হন। মওলানা রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী লিখেছেন,

প্রামাণ্য স্ক্যানকপি সহ এখানে

(এমদাদুস সুলুক পৃ-২০১ থেকে শুরু) আল্লাহ তায়ালা পরিষ্কার ভাষায় বলেন, ((قَدْ أَفْلَحَ مَنْ تَزَكَّى)) অর্থাৎ নিশ্চয়ই সে ব্যক্তি সফলকাম হয়েছে যে নিজের নফসের তাযকিয়া ও পরিশুদ্ধি করেছে। (সূরা আ’লা আয়াত ১৪)।

অর্থাৎ মোজাহাদার তরবারি দ্বারা নফসের কামনা বাসনার কদার্যতা কেটে ফেলেছে। উল্লেখ্য সায়ের ও পরিভ্রমনের কারণে মানুষের নফস আলোকিত হয়ে যায়। এ কারণেই আল্লাহ তায়ালা আপন হাবিব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর শানে বলেছেন, ((قَدْ جَاءَكُمْ مِنَ اللَّهِ نُورٌ وَكِتَابٌ مُبِينٌ)) অর্থাৎ নিঃসন্দেহে আল্লাহতালার পক্ষ থেকে নূর ও স্পষ্ট কিতাব এসেছে। (সূরা মায়েদা আয়াত ১৫)। এখানে ‘নূর’ দ্বারা মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম-এর পবিত্র সত্তা উদ্দেশ্য।

আল্লাহ তাআলা আরো বলেন, ((يَا أَيُّهَا النَّبِيُّ إِنَّا أَرْسَلْنَاكَ شَاهِدًا وَمُبَشِّرًا وَنَذِيرًا وَدَاعِيًا إِلَى ٱللَّهِ بِإِذْنِهِۦ وَسِرَاجًا مُّنِيرًا)) অর্থাৎ হে নবী! নিশ্চয়ই আমি আপনাকে একজন সাক্ষ্যদাতা, সুসংবাদদাতা, ভয়প্রদর্শনকারী, আল্লাহর দিকে তারই নির্দেশে আহ্বানকারী এবং সিরাজাম মুনীরা তথা আলোকবর্তিকা প্রদীপ স্বরূপ বানিয়ে প্রেরণ করেছি (সূরা আহযাব আয়াত ৪৬)।

‘মুনীর’ অর্থ আলোকদাতা। যিনি অন্যকে আলো প্রদান করেন। যদি অন্যকে আলোকিত করা মানুষের পক্ষে অসম্ভব হতো, তাহলে এ যোগ্যতা ও কামাল মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের ভেতরে পাওয়া যেত না। কারণ তিনি তো আদম সন্তানদের অন্তর্ভুক্ত। কিন্তু আপন সত্তাকে এত পুতঃপবিত্র বানিয়ে নিয়েছিলেন যে, নির্মল নূরে পরিণত হয়েছিলেন। পরন্তু আল্লাহতালাও তাঁকে ‘নূর’ বলে অভিহিত করেছেন। প্রসিদ্ধ মতে সাব্যস্ত আছে যে, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কোনো ছায়া ছিল না। অথচ দেহ বলতেই তার ছায়া থাকে। কেবল নূরেরই কোনো ছায়া থাকে না। যেভাবে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম স্বয়ং নূর বা আলোকবর্তিকা ছিলেন, তেমনিভাবে তাঁর অনুসারীদের অন্তরাত্মা ভালো করে তাদেরকেও নূরে পরিণত করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তাই তাদের কারামতের বর্ণনা দ্বারা কিতাব ভরপুর। এমনকি সেগুলো এত প্রসিদ্ধ যে, বর্ণনার অপেক্ষা রাখে না।

আল্লাহতায়ালা বলেন, ((وَالَّذِينَ آمَنُوا مَعَهُ نُورُهُمْ يَسْعَى بَيْنَ أَيْدِيهِمْ وَبِأَيْمَانِهِمْ يَقُ)) অর্থাৎ যারা আমার হাবীবের প্রতি ঈমান এনেছে তাদের নূর তাদের সামনে এবং ডানে ছুটাছুটি করতে থাকবে। (সূরা তাহরীম আয়াত ৮)। আল্লাহ তায়ালা অন্যত্র বলেন, ((يَوْمَ تَرَى ٱلْمُؤْمِنِينَ وَٱلْمُؤْمِنَٰتِ يَسْعَىٰ نُورُهُم بَيْنَ أَيْدِيهِمْ وَبِأَيْمَٰنِهِم)) অর্থ- স্মরণ কর সেদিনটি যেদিন মুমিন পুরুষ ও নারীদের দেখবে, তাদের নূর ছুটছে তাদের সামনে ও ডানে। (সূরা হাদীদ আয়াত ১২)।

(তারপর ‘এমদাদুস সুলুক‘ পৃ-২০২ থেকে শুরু) আল্লাহতালা আরো বলেছেন, ((يَوْمَ يَقُولُ الْمُنَافِقُونَ وَالْمُنَافِقَاتُ لِلَّذِينَ آمَنُوا انظُرُونَا نَقْتَبِسْ مِن نُّورِكُمْ)) অর্থ- ঐ দিনকে স্মরণ কর, যেদিন মুমিনদের নূর তাদের সামনে ও ডানে ছুটবে। মুনাফিকরা বলবে, একটু থামো! আমরাও তোমাদের আলো থেকে কিছু জ্যোতি নেব। (সূরা হাদীদ আয়াত ১৩)।

আলোচ্য আয়াতগুলো থেকে প্রতীয়মান হয় যে, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের অনুসরণ দ্বারা ঈমান ও নূর উভয়টি সাধিত হয়। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, “আল্লাহ তায়ালা আপন নূর দ্বারা আমাকে সৃষ্টি করেছেন, আমার নূর দ্বারা সৃষ্টি করেছেন সকল মুমিনকে।”

মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরূপ দোয়াও করেছেন, “আমার পরওয়ারদিগার! আমার কান, চোখ ও কলবকে নূর বানিয়ে দিন, বরং আমাকেই নূর বানিয়ে দিন।” যদি মানুষের নফস আলোকিত হওয়া অসম্ভব হতো, তাহলে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরূপ দোয়া কখনোই করতেন না। কেননা উলামায়ে কেরামের ঐক্যমতে অসম্ভব কাজের দোয়া করাও নিষেধ। হযরত আবুল হাসান নূরী (রহ.)-কে ‘নূরী’ বলার কারণ হচ্ছে, বহুবার তার থেকে নূর দেখা গিয়েছিল। এভাবে অসংখ্য আউলিয়া, সাধারণ ও শহীদের কবর থেকে নূর উঠতে দেখা যায়।

এটি মূলত তাঁদের পবিত্র আত্তারই ‘নুর’। কেননা যখন নফসের কাজ উচ্চাঙ্গের হয়ে যায়, তখন তার নূর সম্পূর্ণ শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। অতঃপর তা শরীরের মেজাজ ও স্বভাবে পরিণত হয়। এরপর যদি নফ্স শরীর থেকে আলাদাও হয়ে যায়, তবুও সে শরীর নূরের অনুরূপ উৎস ও কেন্দ্রস্থল থেকে যায়, যেমন ছিল জীবদ্দশায় নফস বাকি থাকা অবস্থায়।

(সম্পূর্ণ দুই পৃষ্ঠার অনুবাদ সমাপ্ত হল)

রেফারেন্সঃ এমদাদুস সুলুক (امداد السلوك ), ২০১-২০২, মূল লিখক মওলানা রশিদ আহমদ গাঙ্গুহী, উর্দূ অনুবাদ মওলানা আশেক ইলাহী মিরাঠি।

শেষকথাঃ উপরে তার দীর্ঘ আলোচনা হতে আমি যা বুঝলাম তার আলোকে বলতে কোনো দ্বিধা নেই যে, মওলানা রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী সাহেব রাসূল (সা.)-কে ‘রূপকার্থেই নূর’ বলেছেন। নইলে তিনি একই লাইনের শেষাংশে ‘মুমিনগণ তাঁর নূর দ্বারা সৃষ্টি’ – একথার কোনো অর্থই থাকেনা। তিনি এ ক্ষেত্রে দলীল বিহীন আরেকটি কথা লিখেছেন যে, “প্রসিদ্ধ মতে সাব্যস্ত আছে যে, মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কোনো ছায়া ছিল না।” তাঁর উপস্থাপনার ধরণ থেকে দুটি বিষয়ের যে কোনো একটি খুবই পরিষ্কার। তা হচ্ছে,

১. ছায়া ছিল না – এটি তাঁর আকীদা ছিলনা। বড়জোর তিনি ‘প্রচলিত আকীদা’ অনুসারেই এটি উদ্ধৃত করেছিলেন মাত্র। যেহেতু তিনি কোনো নস তথা গ্রহণযোগ্য কোনো প্রমাণ ছাড়াই এটি লিখেছেন এমনকি কথার শুরুতেই ‘প্রসিদ্ধ মতে’- শব্দে শর্ত আরোপ করেছেন।

২. ছায়া ছিল না, এটি তাঁর নিজেস্ব আকীদা, আর একথাই বাস্তব বলে বুঝা যায়। যেহেতু তিনি রাসূল (সা.)-কে কুরআনের বিভিন্ন আয়াতের আলোকে ‘নূর’ সাব্যস্ত করার ধারাবাহিকতায় ঐ কথাটুকু টেনে এনেছেন। আর শেষে লিখেছেন, “অথচ দেহ বলতেই তার ছায়া থাকে। কেবল নূরেরই কোনো ছায়া থাকে না।”

তিনি এটুকু বলেই কথা শেষ করেননি। বরং তিনি একই লাইনের শেষাংশে আরও লিখেছেন,

“যেভাবে মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম স্বয়ং নূর বা আলোকবর্তিকা ছিলেন, তেমনিভাবে তাঁর অনুসারীদের অন্তরাত্মা ভালো করে তাদেরকেও নূরে পরিণত করতে সক্ষম হয়েছিলেন।”

বলাবাহুল্য যে, মওলানা রশীদ আহমদ গাঙ্গুহী সাহেব তাঁর ঐ কথা দ্বারা সাধারণদের মনে একটা প্রশ্নের জন্ম দিয়ে গেলেন। সেটি হচ্ছে, তাহলে কি একই যুক্তিতে রাসূল (সা.)-এর সকল অনুসারীর-ও ছায়া থাকেনা বলেই সাব্যস্ত হল না? অবশ্যই সাব্যস্ত হচ্ছে। নতুবা “তেমনিভাবে তাঁর অনুসারীদের অন্তরাত্মা ভালো করে তাদেরকেও ‘নূরে’ পরিণত করতে সক্ষম হয়েছিলেন”- তার এ কথার কী অর্থ?

আসলে মওলানা গাঙ্গুহী সাহেবের উপরিউক্ত কথাবার্তাগুলো শতভাগ আধ্যাত্মিক ও রূপকার্থেই ধর্তব্য ; নইলে তাঁর উক্ত কথাবার্তায় যে পরিমাণে অসঙ্গতি বিদ্যমান, তা বলাইবাহুল্য।

লিখক, মুহাম্মদ নূরুন্নবী এম.এ অ্যাডমিন ফিকহ মিডিয়া

তারিখ ১৫/০৫/২৪

ইস্তিসকা কী? হানাফী মাযহাবের চূড়ান্ত ফাতাওয়া

ইস্তিসকার সালাত কিংবা দোয়া, কোনটি হানাফী মাযহাবের মুফতাবিহি মত? ইস্তিসকা অর্থ বৃষ্টির জন্য প্রার্থনা। হানাফী মাযহাবের চূড়ান্ত ফাতাওয়া সাহেবাইন এবং জামহূরের মতের উপর, তথা ইস্তিসতার সময় দুই রাকাত সালাতের শরয়ী হুকুম হচ্ছে সুন্নাতে মুয়াক্কাদাহ।

ফিকহে হানাফীর নির্ভরযোগ্য ৬টি গ্রন্থের অন্যতম ‘আল মাবসূত’ থেকে,

“সালাতুল ইস্তিসকার অধ্যায়। ইমাম মুহাম্মদ ইবনে হাসান আশ শায়বানী রহ. বলেন, আমি (ইমামে আ’যমকে) জিজ্ঞেস করলাম : ইস্তিসকার সালাত বলতে কিছু কি আছে? তিনি উত্তরে বললেন, ইস্তিসকার মধ্যে কোনো সালাত (প্রমাণিত) নয়। বড়জোর তাতে ‘দোয়া’ রয়েছে। আমি (তারপর) জিজ্ঞেস করলাম, আপনি কি (ইস্তিসকার) সালাতের জন্য (মানুষকে) একত্রিত হবার এবং ইমাম স্বশব্দে ক্বিরাত পড়ার মত (রায়) দেননা? তিনি প্রতিউত্তরে বলেন, না; আমি এ ব্যাপারে এ রূপ মত দিইনা। তার কারণ, আমাদের নিকট রাসূল সা. এর পক্ষ হতে এ সংবাদ পৌঁছেছে যে, তিনি (ইস্তিসকার) জন্য বের হন এবং দোয়া করেন। (আরও কারণ এ যে) হযরত উমর রা. (একদা ইস্তিসকার জন্য) মিম্বারে আরোহন করেন এবং দোয়া করেন এবং বৃষ্টির জন্য প্রার্থনা করেন। অধিকন্তু আমাদের নিকট ‘ইস্তিসকার সালাত’ সংক্রান্ত একটি ‘শায’[1] হাদীস ব্যতীত এমন কোনো হাদীস পৌঁছেনি যেটি গ্রহণযোগ্য হতে পারে। (ইমাম মুহাম্মদ আরও লিখেন) তারপর আমি জিজ্ঞেস করলাম, (ইস্তিসকার সময়) ইমাম বা গোত্রের যে কেউই নিজ (শরীরের) চাদর উল্টিয়ে (আকাশের দিকে মেলে ধরে) ‘দোয়া’ করা কি মুস্তাহাব হবে? তিনি উত্তরে বললেন, (সহীহ হাদীস পাওয়া না যাওয়ায়) এ ধরণের কাজ মুস্তাহাব হবেনা। (ইমাম মুহাম্মদ বলেন, উপরের দীর্ঘ) মতটি ইমাম আবূ হানীফা রহ. এর।

ইমাম শাফেয়ীর বিশিষ্ট উস্তাদ ইমাম মুহাম্মদ ইবনে হাসান বলেন, আমার মতে ইমাম ইস্তিসকার সালাত পড়বে, এবং ঈদের সালাতের মতই পড়বে। খোতবার পূর্বেই সালাত আরম্ভ করবে। তবে তাতে ঈদের সালাতের মত কোনো তাকবীর বলবেনা। কারণ, আমাদের নিকট রাসূল সা. এর পক্ষ হতে ইস্তিসকা সংক্রান্ত সংবাদ এসে পৌঁছেছে, এমন সংবাদও এসে পৌঁছেছে যে, হযরত ইবনে আব্বাস রা. ইস্তিসকার সালাত পড়তে নির্দেশও দিয়েছেন।”

– আল মাবসূত খ-১ পৃ-২৩৬, ইমাম মুহাম্মদ ইবনে হাসান আশ শায়বানী রহ.

শেষকথা, উক্ত মাসয়ালার ক্ষেত্রে মুফতাবিহি কওল বা চূড়ান্ত ফাতাওয়া হিসেবে হানাফী মাযহাবের বিশিষ্ট ইমামদ্বয় ‘সাহেবাঈন’ এর মতটি-ই ধর্তব্য। আরও সহজ করে বললে, ফিকহে হানাফীর চূড়ান্ত মত হিসেবে এখানে ইমাম মুহাম্মদ এবং ইমাম আবূ ইউসুফ (عليهما الرحمة) এর মতের উপরই ফাতাওয়া। সুতরাং আর কোনো বিতর্ক রইল না। আল্লাহু আ’লাম।

টিকা : [1] শায :  হাফিয ইবন হাজার আসকালানী রহ. শায হাদীসের সংজ্ঞায় বলেন ((مخالفة المقبول لمن هو أولى منه)) অর্থ-মাকবুল রাবীর তার চেয়ে উত্তম রাবীর বিরোধিতা করা শায”। (আন নুযহা-النزهة পৃ-৯৮)। এখানে মাকবুল দ্বারা উদ্দেশ্য সহীহ ও হাসান হাদীসের রাবী। আর উত্তম দ্বারা উদ্দেশ্য এক বা একাধিক সিকাহ রাবী। অর্থাৎ মাকবুল রাবী একাধিক মাকবুল কিংবা অধিক সিকাহ রাবীর বিরোধিতা করলে তার হাদীসকে শাস্ত্রীয় ভাষায় শায বলে। আর শায হাদীস দলীলযোগ্য নয়। ইমামে আ’যম রহ. এর বিচার বিশ্লেষণে ইস্তিসকার মধ্যে ‘সালাত’ সংক্রান্ত কোনো হাদীস বিশুদ্ধতার মানদণ্ডে পৌঁছেনি, আর যে-ও একটা হাদীস পৌঁছেছিল সেটি তাঁর বিবেচনায় ‘শায’ পর্যায়ের ছিল। তাই তিনি ঐ বর্ণনার উপর নির্ভর করেননি।

লিখক ও অনুবাদক – মুহাম্মদ নূরুন্নবী এম.এ

নতুন নতুন “নবী” এর কনসেপ্ট কাদিয়ানীদের বই-পুস্তকে

নতুন নতুন “নবী” এর কনসেপ্ট কাদিয়ানীদের বই-পুস্তকে,

মির্যা কাদিয়ানীর পুত্র এবং কাদিয়ানীদের দ্বিতীয় খলীফা মির্যা বশির উদ্দীন মাহমুদ লিখেছেন, “যদি আমার গর্দানের দুই পাশে তলোয়ারও ধরে রাখা হয় আর আমাকে বলতে বলা হয় যে, তুমি বল, মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পর আর কোনো নবী আসতে পারেনা! তাহলে আমি অবশ্যই বলব যে, তুমি মিথ্যাবাদী ও মহা মিথ্যুক। মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের পর নবী আসতে পারে, অবশ্যই আসতে পারে।” (আনওয়ারে খিলাফাত পৃষ্ঠা ৬৭, উর্দূ অনলাইন এডিশন, মির্যা বশির উদ্দীন মাহমুদ)।

মির্যা বশির একই গ্রন্থের আরেক জায়গায় পরিষ্কার লিখেছেন, “তারা মনে করছে যে, আল্লাহতালার ভাণ্ডার শেষ হয়ে গেছে, তাই তিনি (এখন) কাউকে কিছুই দেন না। তেমনিভাবে এও বলে যে, কোনো কেউ দুনিয়াবিরাগী এবং খোদাভীরুতায় ও তাকওয়া আর পরহেজগারীতে কতেক নবী অপেক্ষায় যতই অগ্রে পৌঁছে যায় না কেন, সে যত বেশিই খোদার মা’রেফত (দর্শন) লাভ করেনা কেন; কিন্তু খোদা তাকে কখনোই নবী বানাবেন না। তাদের এইরূপ মনে করার কারণ হচ্ছে খোদাতালার মর্যাদা বুঝতে না পারা। অন্যথা নবী শুধুই একজন কেন! আমি তো বলি, হাজার হাজার নবী হবেন।” (আনওয়ারে খিলাফাত পৃষ্ঠা ৬৪, উর্দূ অনলাইন এডিশন, মির্যা বশির উদ্দীন মাহমুদ)।

প্রামাণ্য স্ক্যানকপি

লিখক, মুহাম্মদ নূরুন্নবী এম.এ

ঈসা (আ.)-এর মৃত্যুর উপর সমস্ত সাহাবীর ইজমা হবার কাদিয়ানী দাবীর ভিত্তি কী?

ঈসা (আ.) সম্পর্কে ইসলামের প্রথম দুই খলীফার দৃষ্টিভঙ্গি ও সংশয় নিরসন,

সাধারণ কাদিয়ানীবন্ধুদের সম্পর্কে যখনি আলাপে যাই তখনি দুইচোখ বেয়ে অশ্রু গড়িয়ে পড়ে। আহা! এরা কতই না প্রতারণার শিকার! হায়, যদি ওরা বুঝতো!! সাধারণ কাদিয়ানীবন্ধুদের দুর্বলতা হচ্ছে, পড়াশোনা ছেড়ে তাদের মু’আল্লিম কিবা মুরুব্বী সিলসিলার কাল্টদের যাইচ্ছেতাই অপব্যাখ্যাগুলো তোতাপাখির মত গিলতে থাকা, তাহকিক না করা। ফলে তারা তাদের সূক্ষ্ম জালিয়াতিগুলোও বুঝতে পারে না। যেমন, প্রত্যেক কাদিয়ানীই হযরত উমর (রা.) সম্পর্কে বয়ান দিয়ে থাকে যে, তিনি বলেছিলেন, ‘যে বলবে মুহাম্মদ (সা.) মৃত্যুবরণ করেছেন আমি তাকে আমার এই তলোবারি দ্বারা হত্যা করব।’ কিন্তু হযরত উমরের একই বক্তব্যের পরের অংশটুকু কোনো কাদিয়ানী বলেনা। কেননা, তারা তাদের মুরুব্বী সিলসিলার কাল্টদের কাছ থেকেও এটুকুই শুনে আসছে। অথচ হযরত উমরের ঐ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে হযরত আবুবকর (রা.) যে আয়াতটি তেলাওয়াত করেছিলেন তা হতে কাদিয়ানীরা ঈসা (আ.) বিষয়ে যে কনসেপ্ট দাঁড় করে সেটি হযরত উমরের একই বক্তব্যের পরের অংশটি দ্বারা পুরোপুরি বাতিল হয়ে যায়। মূলত তারা তাদের অপব্যাখ্যামূলক উক্ত জালিয়াতি টিকানোর উদ্দেশ্যেই উমর (রা.)-এর সম্পূর্ণ বক্তব্যটি পেশ করার সাহস রাখেনা।

এবার হযরত উমর (রা.)-এর একই বক্তব্যের পরের অংশটি দেখুন, তিনি আরও বলেছিলেন, ((و انما رفع الى السماء كما رفع عيسى ابن مريم عليه السلام)) এর মানে হল, “নিশ্চয়ই মুহাম্মদ (সা.)-কে আকাশে উঠিয়ে নেয়া হয়েছে যেমনিভাবে ঈসা (আ.)-কে উঠিয়ে নেয়া হয়েছিল।” (আল মিলাল ওয়ান নিহাল ১/২৪; ইমাম শাহরাস্তানী)। মির্যা কাদিয়ানী হযরত উমরের বক্তব্যের শেষের অংশটি নিজেও তার বইতে লিখে গেছেন। এজন্য মির্যা কাদিয়ানীর রচনাসমগ্র ‘রূহানী খাযায়েন’ এর খণ্ড নং ১৫ এবং পৃষ্ঠা নং ৫৮১ দেখা যেতে পারে। আফসোস! এত নিকৃষ্ট জালিয়াতি করার চরিত্র যাদের তাদের অনুসারীরা তোতাপাখির মত নির্বিঘ্নে সব বিশ্বাস করে থাকে, তাহকিক করার প্রয়োজনও বোধ করছেনা।

বলাবাহুল্য, হযরত উমর (রা.)-এর উক্ত সম্পূর্ণ বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতেই হযরত আবুবকর (রা.) সূরা আলে ইমরানের ১৪৪ নং আয়াতটি উপস্থিত সকলের সামনে তুলে ধরেছিলেন। তিনি বলেন, ((من كان يعبد محمدا فان محمدا قد مات و من كان يعبد اله محمد فانه حى لا يموت و قرأ هذه الاية و ما محمد الا رسول قد خلت من قبله الرسل الخ)) এর অর্থ হল, “যে মুহাম্মদ (সা.)-এর ইবাদত করে থাকে (সে যেন জেনে নেয়) মুহাম্মদ (সা.) মৃত্যুবরণ করেছেন। আর যে মুহাম্মদ (সা.) এর প্রভুর ইবাদত করে থাকে (তার জেনে রাখা উচিত) নিশ্চয়ই তিনি জীবিত, মৃত্যুবরণ করেননি। (তারপর) আবুবকর এই আয়াত তেলাওয়াত করেন, ((وما محمد الا رسول قد خلت من قبله الرسل الخ)) অর্থ-মুহাম্মদ একজন রাসূল মাত্র তাহার পূর্বে রাসূলগণই গত হইয়া গিয়াছেন”। মজার ব্যাপার হল, হযরত আবুবকর (রা.)-এর উক্ত আয়াত পেশ করার ভেতরে প্রচ্ছন্ন একটি উদ্দেশ্য ছিল। সেটি হচ্ছে, মুহাম্মদ (সা.) কোনো প্রভূ বা খোদা ছিলেন না যে, তাঁর মৃত্যু হতে পারেনা। তিনি শুধুই একজন রাসূল মাত্র। তাঁর পূর্বেও গত হয়ে যাওয়া প্রত্যেকেই ছিলেন রাসূল। তিনিও সেসব রাসূলের মতই গত হয়ে গিয়েছেন। কাজেই তাঁর মৃত্যুতে আশ্চর্য হবার কিছুই নেই। হযরত আবুবকর (রা.) মূলত এ ম্যাসেজটাই দিতে চেয়েছিলেন। এখন হযরত আবুবকর (রা.)-এর উক্ত আয়াতে কারীমাহ’র তেলাওয়াত হতে ঈসা (আ.)-কেও ‘মৃত’ সাব্যস্ত করতে হলে নিচের প্রশ্নগুলোর কোনো উত্তর থাকেনা।

১. হযরত উমর (রা.)-এর যে বক্তব্যের প্রেক্ষিতে হযরত আবুবকর (রা.) و ما محمد الا رسول…الخ আয়াতটির দীর্ঘ আলোকপাত করলেন তিনি উমরের বক্তব্যের শেষের অংশের উপর কিজন্য দ্বিমত করলেন না? তিনি তো পরিষ্কার বলে দিতে পারতেন যে, হে উমর! ঈসা নবীও মরে গেছেন! তাই তোমার এ কথাও ঠিক না। কিন্তু আবুবকর (রা.) তো এভাবে তখন বলেননি!

বলে রাখা দরকার, উল্লিখিত প্রশ্নের কোনো উত্তর দিতে না পেরে হয়ত ওরা বলতে পারে, “ঈসা নবীকেও সমস্ত নবীর মতই আকাশে উঠিয়ে নেয়া হয়েছে।” কিন্তু ওরা জানে না যে, ঈসা নবীর মত অন্য সমস্ত নবীর ‘রাফা’ (উঠিয়ে নেওয়া) হযরত জিবরাইল ফেতেশতার মাধ্যমে হয়নি, বরং আজরাইল ফেরেশতার মাধ্যমে হয়েছিল। সুতরাং সব ধরণের ‘রাফা’ মুক্ত অর্থে উদ্দেশ্য হবেনা। সাধারণ কাদিয়ানীদের গোলকধাঁধাটা-ই এখানে। যথা- রাসূল (সা.) ইরশাদ করেছেন ((لَمَّا اِجْتَمَعَ الْيَهُوْدُ عَلَى عِيْسَى عَلَيْهِ السَّلَامُ لِيَقْتُلُوْهُ وَ أَتَاهُ جِبْرَائِيْلُ … فاَوْحَى اللهُ اِلَى جِبْرَائِيْلَ اَنِ ارْفَعْ اِلَيَّ عَبْدِيْ)) “যখন ইহুদীরা ঈসা (আ.)-কে হত্যার উদ্দেশ্যে সমবেত হলো তখন জিবরাইল (আ.) তাঁর নিকট আগমন করেন…আল্লাহতালা তাঁকে নির্দেশ দিয়ে বলেন, তুমি আমার বান্দা (ঈসা)-কে আমার নিকট উঠিয়ে নিয়ে এসো।” (তারীখে দামেস্ক ৪৭/৪৭২; তারীখে বাগদাদ ১১/৩৭৯, সনদ সহীহ – তাহকীক শায়খ আলবানী রহ.)।

তারপর বাকি থাকল, كما رفع (কামা রুফি’আ) অর্থ ‘যেমনিভাবে উঠিয়ে নেয়া হয়েছে’- এখানে হযরত উমর “কামা” শব্দে রাসূল (সা.)-কে ঈসার সাথে ‘মৃত্যুবরণ না করা’-এর দিক থেকে তাশবীহ (তুলনা) করেছেন, এটুকু পরিষ্কার। আর ঈসা (আ.)-এর মতই রাসূল (সা.)-কেও ‘আকাশে’ উঠিয়ে নেয়ার তাশবীহ’র কারণ, হযরত উমর (রা.) যখন রাসূলের মৃত্যু সংবাদ শুনতে পান তখন তিনি নিকটে ছিলেন না। অন্যথা তিনি রাসূল (সা.)-এর মৃত্যু শোকে যতই হিতাহিতজ্ঞানশূন্য হন না কেন, তিনি রাসূল (সা.) সম্পর্কেও ‘আকাশে উঠিয়ে নেয়া হয়েছে’ বলে উক্তি করতেন না। কারণ ঐ মুহূর্তে রাসূল (সা.)-এর শরীর মোবারক আয়েশা (রা.)-এর হুজরাতে-ই বিদ্যমান ছিল! সংক্ষেপে।

২. যদি و ما محمد الا رسول…الخ আয়াতটি দ্বারা আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ‘সমস্ত রাসূল মৃত্যুবরণ করেছেন’ বলেই বুঝাতে চাইতেন তাহলে তিনি আয়াতটিতে قد خلت ধরণের ‘মুশতারিক’ (ব্যপকার্থবোধক) শব্দ রাখতেন না। তিনি মওত বা قد ماتت ধরণের খাস তথা দ্ব্যর্থবোধক শব্দ-ই রাখতেন। এখন তাঁর এ ‘মুশতারিক’ শব্দ নেয়ার হিকমত কী? জেনে রাখা জরুরি যে, উক্ত আয়াতটির ‘গত হইয়া গিয়াছে’ বলতে রূপক অর্থে মৃত্যুবরণ করার মাধ্যমে এবং সশরীরে জীবিত উঠিয়ে নেয়ার মাধ্যমে (উভয় পদ্ধতিতে) ইহজগত থেকে স্থানান্তরিত হওয়া-ই বুঝানো উদ্দেশ্য। এটাই আল্লাহ’র উক্ত ‘মুশতারিক’ শব্দ গ্রহণের হিকমত বা রহস্য।

৩. রাসূল (সা.)-এর চেয়ে পবিত্র কুরআনের মর্মার্থ দ্বিতীয় কেউই ভালো বুঝার দাবী করতে পারেনা। তিনিই কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক। তাঁরপর কুরআনের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক ছিলেন সাহাবায়ে কেরাম। ফলে সহজেই প্রশ্ন আসবে যে, যদি و ما محمد الا رسول…الخ আয়াতটি দ্বারা আল্লাহ রাব্বুল আলামীন ‘সমস্ত রাসূল মৃত্যুবরণ করেছেন’ বলেই বুঝাতে চাইতেন তাহলে রাসূল এবং তাঁর সকল সাহাবী কিভাবে হযরত ঈসা (আ.)-এর পুনঃ আগমনে বিশ্বাস রাখতে পারেন?

৪. এখন হয়ত কোনো কাদিয়ানী কাল্ট বলতে পারে যে, আয়াতটির পুরাতন কোনো অর্থ বা ব্যাখ্যা সে মানবেনা। সে মির্যা কাদিয়ানী আর তার খলীফাদের কৃত অর্থই মানবে। তার জন্য তাদের প্রথম খলীফা হেকিম নূরুউদ্দীনের কৃত অনুবাদটি এখানে তুলে ধরা হল। হেকিম নূরউদ্দীনের বইতে আয়াতটির অর্থ উর্দূতে উল্লেখ আছে এভাবে যে, ((اور محمد تو ایک رسول ہے پہلے اس سے بہت رسول ہو چکے پھر کیا اگر وہ مر جائے یا قتل کیا جاوے تو پھر جاؤ گے الٹے پاؤں پر (فصل الخطاب لمقدمة اہل الکتاب))) অর্থ-মুহাম্মদ তো একজন রাসূল মাত্র; তাহার পূর্বে ‘বহু রাসূল’ হইয়েছিল। যদি তিনি মারা যান অথবা হত্যা হইয়া যান, তাহলে কি তোমরা পেছনে (বাপ-দাদার ধর্মে) ফিরিয়া যাইবে? (ফাছলুল খিতাব লি-মুকাদ্দিমাতি আহলিল কিতাব [উর্দূ] পৃষ্ঠা ২৮; রচনাকাল ১৮৮৭-৮৮ইং দ্রষ্টব্য)। প্রিয় কাদিয়ানীবন্ধু! হেকিম নূরউদ্দীন থেকে و ما محمد الا رسول…الخ আয়াতটির অর্থ- (پہلے اس سے بہت رسول ہو چکے-উচ্চারণ : পহেলে উস চে বহুত রাসূল হো চুকে) তথা “তাহার পূর্বে ‘বহু রাসূল’ হইয়াছিলো”। এবার পারলে এ অর্থ হতে ‘ঈসা (আ.)-কে মৃত’ সাব্যস্ত করে দেখান!

৫. তাফসীরে ইবনে কাসীর থেকে ঈসা (আ.) সম্পর্কে উম্মতে মুহাম্মদীয়ার তাওয়াতূর স্তরীয় আকীদা কেমন তা পেশ করা হল, ইমাম ইবনু কাসীর (রহ.) সূরা যুখরুফ-এর ৬১ নং আয়াতের বিশ্লেষণে মুসলমানদের ধারাবাহিক (ইজমায়ী) আকীদা সম্পর্কে লিখেছেন ((وقد تواترت الأحاديث عن رسول الله صلى الله عليه وسلم، أنه أخبر بنزول عيسى عليه السلام قبل يوم القيامة إماما عادلا، وحَكَما مقسطا)) অর্থাৎ রাসূল (সা.) থেকে বর্ণিত তাওয়াতূর স্তরীয় হাদীসসমূহ সংবাদ দিচ্ছে যে, ঈসা আলাইহিস সালাম কিয়ামতের আগে একজন ন্যায়পরায়ণ ইমাম এবং ন্যায়নিষ্ঠ শাসকরূপে অবতরণ করবেন। ইবনে কাসীর, ১২/৩২৩, সূরা যুখরুফ ৬১ দ্রষ্টব্য। এখন প্রশ্ন হল, উম্মতে মুহাম্মদীয়ার ধারাবাহিক আকীদা পরিপন্থী و ما محمد الا رسول…الخ আয়াতের সেই অর্থ কিভাবে সঠিক হতে পারে যেটি উম্মতে মুহাম্মদীয়ার ধারাবাহিক আকীদার বিরুদ্ধে!?

লিখক, প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী
অ্যাডমিন- রদ্দে কাদিয়ানী (গুগল অ্যাপ)

তারাবীহ সংক্রান্ত ৬টি চেইনে ১১ রাকা’আতের বিশ্লেষণ

তারাবীহ সংক্রান্ত ৬টি চেইনে ১১ রাকা’আতের বিশ্লেষণ

ভূমিকা ছাড়াই শুরু করছি,

হযরত সায়েব বিন ইয়াজিদ (রা.)-এর ৩ ছাত্রের মধ্য হতে ২ জনের বিপরীতে একমাত্র ছাত্র মুহাম্মদ ইবনে ইউসূফ (রহ.)-এর একক চেইনে নিচের ১১ রাকা’আতের “মতন”-এর ক্ষেত্রে কী কী ইজতিরাব (বিশৃঙ্খলা) সৃষ্টি হয়েছে তার সামান্য নিম্নরূপ,

৬টি চেইন :

১. ইমাম মালেক বিন আনাস, প্রতি রাকা’আতে শত শত আয়াত পড়া (يَقْرَأُ بِالْمِئِينَ)। মুয়াত্তা মালিক, ১/১১৫
২. ইয়াহইয়া ইবনে সাঈদ আল আল আনসারী, প্রতি রাকা’আতে শত শত আয়াত পড়া (يَقْرَآنِ بِالْمِئِينَ)। মুসান্নাফ ইবনু আবী শাইবাহ, হা/৭৬৭১
৩. ইসমাঈল ইবনে জা’ফর, প্রতি রাকা’আতে ২০০ আয়াত পড়া (يَقْرَءُونَ فِي الرَّكْعَةِ بِالْمِائَتَيْنِ)। আহাদীসু ইসমাঈল ইবনে জা’ফর, হা/৪৪০
৪. ইসমাঈল ইবনে উমাইয়্যাহ, প্রতি রাকা’আতে ১০০ আয়াত পড়া (فكانا يقومان بمائة في ركعة)। ফাওয়াইদু আবী বাকার লিন-নিশাপুরী, হা/১৬
৫. উসামা বিন যায়েদ, প্রতি রাকা’আতে কত আয়াত পড়েছিল তার পরিমাণ উল্লেখ নেই। ফাওয়াইদু আবী বাকার লিন-নিশাপুরী, হা/১৩৫
৬. আব্দুল আযীয বিন মুহাম্মদ, প্রতি রাকা’আতে শত শত আয়াত পড়া (نَقْرَأُ فِيهَا بِالْمِئِينَ)। আল হাভি লিল ফাতাওয়া ১/৪১৬, সুয়ূতি

এবার শাস্ত্রীয় নীতিমালার ভিত্তিতে মুহাম্মদ ইবনে ইউসূফের সব গুলো চেইন-এর উপর কী হুকুম আসতেছে লক্ষ্য করুন,

হযরত সায়েব বিন ইয়াজিদ (রা.)-এর ৩ ছাত্রের মধ্য হতে ২ জনেরই ৩টি চেইনে ২০ রাকা’আতের উল্লেখ রয়েছে, অপরদিকে একমাত্র ছাত্র মুহাম্মদ বিন ইউসূফের ৮টি চেইনের মধ্য হতে ১টিতে (বিতির সহ) ২১ রাকা’আত, আরেকটিতে (বিতির সহ) ১৩ রাকা’আত আর অন্য ৬টিতে ১১ রাকা’আতের উল্লেখ রয়েছে, সে সাথে ১১ রাকা’আতের ভিন্ন ভিন্ন ৪টির মতনেই ‘প্রতি রাকা’আতে কত আয়াত করে পড়া হত’ সে হিসেবেও ইজতিরাব বা গণ্ডগোল রয়েছে, তাছাড়া ৮টি চেইনের মধ্যে ৩টি চেইনেই রাকা’আত সংখ্যায় রয়েছে যথাক্রমে ২১, ১৩, ১১ পরস্পর বিরোধী কথা। যার জন্য চারো মাযহাবের সকল ইমামই ‘মুহাম্মদ ইবনে ইউসূফ’ সূত্রের সবগুলো চেইনকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। মুহাদ্দিসগণের নীতিমালায় এধরণের হাদীসের সনদে রাবীগণ ‘সিকাহ’ (বিশ্বস্ত) হলেও কিন্তু মতনের ক্ষেত্রে ‘ইজতিরাব’ থাকায় এর হুকুম শাজ ও প্রত্যাখ্যাত। উল্লেখ্য, হাদীস সহীহ হতে হলে মতন ‘শাজ’ মুক্ত থাকা আবশ্যক। আর এ ধরনের বর্ণনার মতনের উপর ফকীহগণ নির্ভর করেন না।

সায়েব বিন ইয়াজিদ-এর ৩ ছাত্রের মধ্য হতে ২ জনেরই ৩টি চেইনে ২০ রাকা’আতের উল্লেখ রয়েছে, অপরদিকে একমাত্র ছাত্র মুহাম্মদ বিন ইউসূফের ৮টি চেইনের মধ্য হতে ১টিতে (বিতির সহ) ২১ রাকা’আত, আরেকটিতে (বিতির সহ) ১৩ রাকা’আত আর অন্য ৬টিতে ১১ রাকা’আতের উল্লেখ রয়েছে। মজার ব্যাপার হল, উক্ত ৬টি চেইনের সবগুলোর মূল-ই হচ্ছে মুহাম্মদ ইবনে ইউসূফ, ইমাম ইবনে আব্দিল বার আল-মালেকী (রহ.) বলেছেন, উক্ত রাবী থেকে ‘এগার’ (احدى عشرة) শব্দটি সঠিক নয়, বরং অপরাপর অসংখ্য শাওয়াহেদ দ্বারা সাব্যস্ত হয় যে, ‘একুশ’ শব্দটাই সহীহ। (আল ইসতিযকার ৫:১৫৪-৪৬)। যাইহোক, দ্বিতীয় কোনো শাহেদ (প্রমাণ) মুহাম্মদ ইবনে ইউসূফের ১১ রাকা’আতকে কোনোভাবেই সমর্থন করেনা। আল্লাহু আ’লাম।

লিখক, মুহাম্মদ নূরুন্নবী এম.এ

কাদিয়ানী জামাতের সাম্প্রতিক চেপে রাখা নীল ইতিহাস

1 ব্রিটিশ অভিবাসী লর্ড নাজির নামক কাদিয়ানী মুরুব্বীর বলাৎকারের নিউজ Zaitoon FM ((Click))

2 ব্রিটিশ অভিবাসী ও পার্লামেন্ট মেম্বার ইমরান আহমদ খান কাদিয়ানীর বলাৎকারের নিউজ Zaitoon FM ((Click))

3 মিস্টার সাইয়েদ নাসের আহমেদ ওরফে সেণ্ডি শাহ (চেয়ারম্যান- mta চ্যানেল ও কাদিয়ানী কেন্দ্রীয় মুরুব্বী) এর বলাৎকারের রিপোর্ট Zaitoon FM ((Click))

4 কাদিয়ানী মুরুব্বী ও মিশনারী সদস্য জনাব মুবিন আহমদ কর্তৃক একাধিক বলাৎকার মামলার ডকুমেন্টারি রিপোর্ট। একই সাথে তার উক্ত মামলা নিষ্পত্তির জন্য আদালতকে মোটা অংকের ঘুষ প্রদান করতে চেয়ে মান-ইজ্জত শেষ করেন মির্যা মাসরূর আহমদ। (প্রামাণ্য নথিপত্র সহ Click)

5 কাদিয়ানী মুরুব্বী কর্তৃক আরেক নাবালিকার সাথে বলাৎকারের মর্মান্তিক রিপোর্ট ((Click))

6 কাদিয়ানীদের সো-কল্ড তৃতীয় খলীফা মির্যা নাসের-এর পুত্র মির্যা লোকমানের মেয়ে ‘নিদা আন নাসের’ নিজ পিতার হাতে ধর্ষণের শিকার। শুধু তাই না, আরও নিকৃষ্ট ঘটনার স্বীকারোক্তি দিয়েছেন ভিকটিম নিজেই। এ মামলায় কাদিয়ানী খলিফা মির্যা মাসরূর আহমদ-ও জড়িয়ে গেছেন। ব্রিটিশ প্রভাবশালী ‘ডেইলি মেইল‘ (dailymail) পত্রিকায় ছবি সহ কাদিয়ানী খলিফা মির্যা মাসরূর আহমদ কিভাবে শিরোনাম হলেন দেখুন! ((Click))

নিদা আন নাসের এর টুইট ভিডিও ১ ((Click))

টুইট ভিডিও ২ ((Click))

টুইট ভিডিও ৩ ((Click))

এ তালিকা অনেক দীর্ঘ। আমরা চাচ্ছিনা, এধরণের নোংরামি চর্চা হোক। কাদিয়ানীরা মুসলমানদের চারিত্রিক দুর্বলতাগুলো নিয়ে খুব বাজে ভাবে হইহট্টগোল করে থাকে। আমরা দাবী করিনা যে, কেউই শতভাগ দোষ-ত্রুটিমুক্ত! মানুষ হিসেবে সব পক্ষেরই দুর্বলতা আছে, থাকবেই। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, নবুওয়তের দাবীদার মির্যা কাদিয়ানীর ‘ব্যক্তিসত্তা’-কে এড়িয়ে অমুক-তমুকের সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিক বিচ্ছিন্ন ঘটনা নিয়ে জল ঘোলা করার কী মানে? কিন্তু অপ্রিয় হলেও সত্য, ধূর্ত কাদিয়ানীরা শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে হরহামেশা সে কাজটা-ই করে থাকে। তাই এখানে উদাহরণ স্বরূপ তাদের শীর্ষ নেতৃবৃন্দের কিছু নীল চরিত্র তুলে ধরা হল।  

7 আহমদী-কাদিয়ানীবন্ধুরা! আপনাদের জিজ্ঞেস করতে চাই যে, আপনারা তো খুব গর্ব করে বলেন যে, আপনাদের বাহিরে কেউই সত্যের উপর নেই, আপনারাই একমাত্র সত্য এবং মুক্তিপ্রাপ্ত জামাত। আপনারা দুনিয়ার অন্য সবার থেকে ব্যতিক্রম। আপনারা একই খলীফার অধীনে, মোবারক ও পবিত্র জামাতের সদস্য আপনারা। বিপরীতে দুনিয়ার সমস্ত অ-কাদিয়ানী মুসলমান পথভ্রষ্ট, জাহান্নামী। তাদের আলেমগণও নাকি  নিকৃষ্ট জীব (নাউযুবিল্লাহ)। তাহলে এখন উপরে অভিযুক্ত কাদিয়ানী শীর্ষ মুরুব্বীদের নিকৃষ্টতর চরিত্রহীন ঘটনার কী উত্তর দেবেন। এর বেশিরভাগই কিন্তু BBC নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত। 

অপ্রিয় হলেও সত্য, আপনারা নিজেদের খুব সাধু এবং পবিত্র প্রমাণ করতে আলেম উলামার দোষচর্চায়ও লিপ্ত থাকেন। কোনো আলেমের বিচ্ছিন্ন কোনো দোষ-ত্রুটি পাওয়া মাত্রই যারপরনাই হইহট্টগোল শুরু করে দেন। বাংলায় একটা প্রবাদ আছে, কাঁচের ঘরে বসবাস যার, তার জন্য অন্যের ঘরে ঢিল ছুড়া বড্ড বিপদ!

এখন হয়ত বলবেন, ঐসব বিচ্ছিন্ন ঘটনা স্বাভাবিক আর কি! অতসব হিসেবে নিলে কি চলবে? 

প্রতিউত্তরে আমার জিজ্ঞাসা, তাহলে আপনাদের অতসব গর্ব কিসের? কেন অবাস্তব যতসব আত্ম-অহংকারে ফেটে পড়ছেন! ইলাহী জামাত, ইলাহী জামাত!! কেন নিজেদের অত সাধু সাজছেন? কেন মুসলমানদের দোষচর্চায় সারাক্ষণ ব্যতিব্যস্ত থাকেন? আপনারা মির্যা গোলাম আহমদ আর তার কথিত ‘মুসলেহ মওউদ’ মির্যা বশির উদ্দীন মাহমুদের রঙিন জীবন-চরিত্র কতকাল চেপে রাখবেন? ১৯৫৬ সালে আব্দুল গাফফার জম্বাহ এর নেতৃত্বে কাদিয়ানীদের নতুন ৩ নম্বর উপদল “Jamaat Ahmadiyya Islah Pasand (Hadhrat Abdul Ghaffar Janbah)” কিজন্য সৃষ্টি হল, সে ইতিহাস কি ভুলে গেলেন? মির্যা বশির উদ্দীন ইতালী নৃত্যশিল্পী মিস রূপাকে কাদিয়ানে ভাড়ায় এনে কী ঘটনা ঘটিয়েছেন তা কি দুনিয়া ভুলে গেছে? ১৯২৭ সালে মির্যা বশির উদ্দিন তারই পি.এস মিয়া জাহিদের বোন “মুসাম্মাৎ ছকিনা” নামের একজন বিবাহিতা নারীর-ও ইজ্জত লুটে নেন। তখন তার এ কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে পুরো কাদিয়ানজুড়ে প্রতিবাদের আওয়াজ উঠেছিল। কী! এ ঘটনাও অস্বীকার করবেন?

মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী মনে মনে নিজেকে ‘স্ত্রীলোক’ কল্পনা করতেন (তার মানে সে নিজেও একজন সমকামী ছিল-লিখক), যাকে আধুনিক কনসেপ্ট অনুসারে ‘ট্রান্স জেন্ডার’ বলা হয়; তারই ঘনিষ্ট শিষ্য আব্দুর রহমান মিশরীর সাক্ষ্যমতে একজন ব্যভিচারী (জেনাকার) সাব্যস্ত। এর একটিও কি অস্বীকার করতে পারবেন? পারবেন না। মির্যা বশির উদ্দীন নিজ কন্যা আমাতুর রশীদকে ধর্ষণ করার ঘটনাও অস্বীকার করতে পারবেন না। হেকিম নূরউদ্দীনের পুত্র মিয়া আব্দুল ওহাবকে ‘জেহলম’ নদীর তীরে বলাৎকার করার নিকৃষ্ট সেই কার্যকলাপও অস্বীকার করতে পারবেন না।

উল্লেখ্য, মির্যা বশির উদ্দিন মাহমুদ সাহেব হেকিম নূরুদ্দীন সাহেবের কন্যা আমাতুল হাইকে বিবাহ করেছিলেন। ঐ সংসারে একজন পুত্র সন্তান জন্ম হয়। সম্ভবত তার নাম ছিল মির্যা খলিল আহমদ। আর দুইটি কন্যা সন্তান হয়। আমাতুর রশীদ আর আমাতুল কাইয়ুম। আমাতুর রশীদ ছিলেন বোনদের মধ্যে বড়। অত্যন্ত নির্লজ্জের ব্যাপার যে, মির্যা বশির উদ্দিন আপন কন্যা আমাতুর রশীদকে ধর্ষণ করেন। আমাতুর রশীদ তখনও পূর্ণ সাবালিকা হননি। নিজ স্ত্রী আমাতুল হাই এবং মির্যা বশির উদ্দিনের গৃহ শিক্ষক মির্যা মুহাম্মদ হোসাইন বি.কম তারা হাতে নাতে ধর্ষণ অবস্থায় পাকড়াও করেছিলেন। উক্ত ঘটনার পর গৃহ শিক্ষক মির্যা মুহাম্মদ হোসাইন চলে যান এবং তিনি ‘আহমদীয়ত’ ছেড়ে দেন। কয়েকদিন পরেই মির্যা বশিরের স্ত্রী আমাতুল হাই এর রহস্যজনক মৃত্যুর সংবাদ বেরিয়ে আসে। তাকে যারা দেখেছেন সবাই তার চেহারা নীল বর্ণের দেখেছিলেন। তাই এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, মির্যা বশির উদ্দিন মাহমুদ নিজের উক্ত কুকর্ম ঢাকার জন্যই স্ত্রীকে বিষ প্রয়োগ করে হত্যা করেন। বলতে পারেন আমি এগুলো বানিয়ে বলছি। তাহলে নিচের রেফারেন্স গুলো পারলে অস্বীকার করুন![1 markajomar] 

রেফারেন্স : ১. শহরে ছদূম পৃ-৯৮, মির্যা শফিক।

২. দৈনিক আল-ফজল তাং ১৮/০৩/১৯৩৪ ইং।

৩. ইসলামী কুরবানী, ট্রাক্ট নং ৩৪, পৃষ্ঠা ১২, কাজী ইয়ার মুহাম্মদ খান। 

৪. দৈনিক আল ফজল, তাং ৩১-আগস্ট ১৯৩৮ ইং।

[1] Click

সে যাইহোক, আপনারা কাদিয়ানী হয়েছেন তাতে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। কিন্তু আপনারা আত্মপরিচয় গোপন রেখে সাধারণ মানুষকে ধোকা দিতে পারবেন না। নবী দাবীদার মুলহিদ মির্যা গোলাম আহমদের অনুসারী হয়ে নিজেদের ‘মুসলমান’ পরিচয় দিতে পারবেন না। যেহেতু আত্ম-পরিচয় গোপন করে মানুষকে ইসলামের নামে ‘কাদিয়ানীধর্মে’ কনভার্ট করা এবং খতমে নবুওয়তের আকীদাকে অস্বীকার করে নিজেকে মুসলমান পরিচয় দেয়া, এগুলো সুস্পষ্ট ধোকা এবং রাষ্ট্রের প্রচলিত আইনেও দণ্ডনীয় অপরাধ। আল্লাহ আমাদেরকে সত্য উপলব্ধি করার তাওফিক দিন।

লিখক, প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী

তাফসীরুল কুরআন থেকে ঈসা (আ.)-এর পুনঃ আগমন সংক্রান্ত সুস্পষ্ট দলিল-প্রমাণ

মুফাসসীরগণ সম্পর্কে মির্যা গোলাম আহমদ লিখেন, আল্লাহতালা পবিত্র কুরআনকে এমন সব ইমাম আর আকাবীরগণের মাধ্যমেও (সংরক্ষণ করেন) যাদেরকে প্রত্যেক শতাব্দীর শিরোভাগে কুরআনের সঠিক বুঝ দান করা হয়েছে, তারা কুরআন শরীফের অস্পষ্ট জায়গাগুলো নবীজির হাদীসসমূহ দ্বারা তাফসীর করে খোদার পবিত্র বাণীকে এবং পবিত্র শিক্ষাকে প্রত্যেক যুগে অর্থগত বিকৃতি হওয়া থেকে রক্ষা করেছেন।” (আইয়ামুছ ছুলহি, রূহানী খাযায়েন ১৪/২৮৮)। কাজেই এখন আর কোনো কাদিয়ানী মতাবলম্বীর পক্ষে কুরআনের সঠিক তাৎপর্য অনুধাবনের জন্য ‘তাফসীর’ গ্রন্থসমূহের প্রয়োজনীয়তা উপেক্ষা করার সুযোগ থাকেনি।

তাফসীরুল কুরআন থেকে দলিল-প্রমাণ,

1 তাফসীরুল ওয়াসীত-শায়খ মুহাম্মদ সাইয়েদ আত-তানত্বাভী (الوسيط لطنطاوي), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৮ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((وجمهور العلماء على أن الله تعالى رفع عيسى إليه بجسده وروحه لا بروحه فقط)) অর্থাৎ সর্বসম্মত ইসলামী বিশেষজ্ঞগণের মতে, নিশ্চয়ই আল্লাহতালা ঈসা (আ.)-কে শুধুই রূহ সহকারে নহে, বরং শরীর এবং রূহ উভয় সহকারে তাঁর নিকট উঠিয়ে নিয়েছেন।

2 তাফসীরে ইবনে কাসীর-ইমাম ইমাদুদ্দীন ইবনে কাসীর (ابن كثير), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৮ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((قال ابن أبي حاتم : حدثنا أحمد بن سنان، حدثنا أبو معاوية، عن الأعمش، عن المنهال بن عمرو، عن سعيد بن جبير، عن ابن عباس قال : لما أراد الله أن يرفع عيسى إلى السماء، خرج على أصحابه – وفي البيت اثنا عشر رجلا من الحواريين ……. فألقي عليه شبه عيسى ورفع عيسى من روزنة في البيت إلى السماء. وهذا إسناد صحيح إلى ابن عباس)) অর্থাৎ ইবনে আব্বাস থেকে, তিনি বলেন, আল্লাহ যখন ঈসাকে আকাশে উঠিয়ে নিতে চাইলেন, তখন তিনি আপনা সাথীদের উদ্দেশ্যে বেরিয়ে পড়েন। তখন তাঁর বাড়ীতে বারোজন হাওয়ারী ছিলেন……..ইত্যবসরে জনৈক ইহুদীকে ঈসার সাদৃশ করে দেয়া হয় এবং ঈসাকে বাড়ীর বাতায়ন পথে আকাশে উঠিয়ে নেয়া হয়। ইবনে আব্বাস পর্যন্ত এর সনদ তথা সূত্র সহীহ।

3 তাফসীরে কুরতুবী-ইমাম আবু আব্দিল্লাহ মুহাম্মদ ইবনে আহমদ আল কুরতুবী (القرطبى), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৮ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((بل رفعه الله إليه ابتداء كلام مستأنف؛ أي إلى السماء)) অর্থাৎ বরং আল্লাহ তাঁকে (ঈসাকে) আকাশে উঠিয়ে নিয়েছেন।

ইমাম কুরতুবী (রহ.) আরও উল্লেখ করেন, ((وروي عن مجاهد أنه قال : ما من أحد من أهل الكتاب إلا يؤمن بعيسى قبل موته ؛ فقيل له : إن غرق أو احترق أو أكله السبع يؤمن بعيسى؟ فقال : نعم ! وقيل : إن الهاءين جميعا لعيسى عليه السلام ؛ والمعنى ليؤمنن به من كان حيا حين نزوله يوم القيامة ؛ قال قتادة وابن زيد وغيرهما واختاره الطبري)) অর্থাৎ মুজাহিদ থেকে বর্ণিত, আহলে কিতাবীদের প্রত্যেকে ঈসার মৃত্যুর আগেই তাঁর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করবে। প্রশ্ন করা হল, যদি সে ডুবে যায় বা জ্বালিয়ে দেয়া হয় অথবা চতুষ্পদ জন্তু খেয়ে ফেলে তখনও কি বিশ্বাস স্থাপন করবে? তিনি উত্তর দেন, হ্যাঁ। বলা হয়েছে যে, আয়াতে উল্লিখিত উভয় সর্বনাম পদ ঈসা (আ.)-এর প্রতিই প্রত্যাবর্তনকারী। এখন এর অর্থ দাঁড়াচ্ছে, প্রত্যেক ঐ আহলে কিতাবী অবশ্যই তাঁর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করবে, যিনি কেয়ামতের পূর্বমুহূর্তে তাঁর অবতরণকালে জীবিত থাকবে। ইমাম ক্বতাদাহ, ইবনু যায়েদ উভয়ই এরূপ বলেছেন। ইমাম তাবারী (রহ.) এ মতটি গ্রহণ করেছেন।

4 তাফসীরে তাবারী-ইমাম আবু জা’ফর মুহাম্মদ ইবনে জারীর আত তাবারী (الطبرى), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৮ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((قال أبو جعفر: أما قوله جل ثناؤه : “بل رفعه الله إليه”، فإنه يعني: بل رفع الله المسيح إليه. يقول: لم يقتلوه ولم يصلبوه، ولكن الله رفعه إليه فطهَّره من الذين كفروا)) অর্থাৎ আল্লাহতালার ফরমান : بل رفعه الله إليه এর তাৎপর্য হল, বরং আল্লাহ মসীহ-কে তাঁর নিজের কাছে উঠিয়ে নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ইহুদীরা না তাঁকে হত্যা করেছে, আর না তাঁকে শূলে চড়িয়েছে। কিন্তু আল্লাহ তাঁকে নিজের কাছে উঠিয়ে নিয়েছেন। (এভাবেই) তিনি তাঁকে কাফিরদের থেকে রক্ষা করেছেন।

5 তাফসীরে মুইয়াসসার-ইমাম শায়খ সা’ঈদ ইবনে আহমদ আল কিন্দী (التفسير الميسر), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৯ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((وإنه لا يبقى أحدٌ من أهل الكتاب بعد نزول عيسى آخر الزمان إلا آمن به قبل موته عليه السلام)) অর্থাৎ নিশ্চয়ই শেষ যামানায় হযরত ঈসার অবতরণের পর যত আহলে কিতাবী (জীবিত) থাকবে, তারা প্রত্যেকে তাঁর মৃত্যুর আগে আগেই তাঁর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করবে।

6 তাফসীরে বাগাভী-ইমাম আবূ মুহাম্মদ হুসাইন ইবনে মাসউদ আল-বাগাভী (البغوى), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৯ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((قوله تعالى : ( وإن من أهل الكتاب إلا ليؤمنن به قبل موته) أي : وما من أهل الكتاب إلا ليؤمنن بعيسى عليه السلام، هذا قول أكثر المفسرين وأهل العلم)) অর্থাৎ আল্লাহতালার বাণী : وإن من أهل الكتاب إلا ليؤمنن به قبل موته এর তাৎপর্য হল, আহলে কিতাবীদের প্রত্যেকে ঈসা আলাইহিস সালামের প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করবে। এ বক্তব্য অধিকাংশ তাফসীরকারক এবং বিশেষজ্ঞগণের।

7 তাফসীরে সা’দী-শায়খ আব্দুর রহমান ইবনে নাসির আস-সা’দী (السعدى), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৯ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((أن الضمير في قوله: { قَبْلَ مَوْتِهِ } راجع إلى عيسى عليه السلام، فيكون المعنى: وما من أحد من أهل الكتاب إلا ليؤمنن بالمسيح عليه السلام قبل موت المسيح، وذلك يكون عند اقتراب الساعة وظهور علاماتها الكبار. فإنه تكاثرت الأحاديث الصحيحة في نزوله عليه السلام في آخر هذه الأمة)) অর্থাৎ আল্লাহর বাণী : قَبْلَ مَوْتِهِ এর মধ্যকার ‘হি’ সর্বনাম পদটি ঈসা আলাইহিস সালামের প্রতিই ফিরেছে। ফলে এর তাৎপর্য হল, আহলে কিতাবীদের প্রত্যেকে মসীহ আলাইহিস সালামের মৃত্যুর আগে আগেই তাঁর প্রতি অবশ্যই বিশ্বাস স্থাপন করবে। আর এ ঘটনা ঘটবে কেয়ামতের নিকটবর্তী সময় এবং কেয়ামতের বড় আলামতগুলো প্রকাশিত হতে থাকলে। এ উম্মতের শেষভাগে ঈসার অবতরকালে এটি সংঘটিত হওয়ার বিষয়টি বহু সহীহ হাদীস দ্বারা সাব্যস্ত।

8 তাফসীরে ইবনে কাসীর-ইমাম ইমাদুদ্দীন ইবনে কাসীর (ابن كثير), সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৯ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((وأولى هذه الأقوال بالصحة القول الأول، وهو أنه لا يبقى أحد من أهل الكتاب بعد نزول عيسى، عليه السلام، إلا آمن به قبل موته، أي قبل موت عيسى، عليه السلام، ولا شك أن هذا الذي قاله ابن جرير، رحمه [الله] هو الصحيح)) অর্থাৎ এ বক্তব্যগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সঠিক হল প্রথম উক্তি। সেটি এই যে, ঈসা (আ.)-এর অবতরণের পর আহলে কিতাবীদের মধ্য হতে যারাই অবশিষ্ট থাকবে প্রত্যেকে ঈসা (আ.)-এর মৃত্যুর আগেই তাঁর প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করবেই। আর নিঃসন্দেহে এটাই বিশুদ্ধ মত, ইবনে জারীর আত তাবারীও এমনটাই বলেছেন।

9 তাফসীরে কুরতুবী-ইমাম আবু আব্দিল্লাহ মুহাম্মদ ইবনে আহমদ আল কুরতুবী (القرطبى), সূরা মায়েদা আয়াত নং ১১৭ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((فلما توفيتني كنت أنت الرقيب عليهم قيل : هذا يدل على أن الله عز وجل توفاه قبل أن يرفعه; وليس بشيء; لأن الأخبار تظاهرت برفعه، وأنه في السماء حي، وأنه ينزل ويقتل الدجال)) অর্থাৎ আল্লাহর বাণী : فلما توفيتني كنت أنت الرقيب عليهم এর তাৎপর্য এই যে, এর দ্বারা উদ্দেশ্য হল, নিশ্চয়ই আল্লাহতালা তাঁকে উঠিয়ে নেয়ার আগে নিদ্রা দিয়েছেন আর এটা কিছুই না। কেননা হাদীসসমূহ তাঁর উঠিয়ে নেয়ার বিষয়কে সাব্যস্ত করেছে যে, তিনি আকাশে জীবিত। তিনি নিশ্চয়ই নাযিল হবেন এবং দাজ্জালকে হত্যা করবেন।

10 তাফসীরে বাহরুল উলূম/সামরকন্দী-ইমাম আবুল লাইস আস-সামরকন্দী (بحر العلوم أو تفسير السمرقندي), সূরা মায়েদা আয়াত নং ১১৭ এর ব্যাখ্যায় লিখেছেন ((مَّا دُمْتُ فِيهِمْ} يعني ما دمت مقيماً في الدنيا بين أظهرهم {فَلَمَّا تَوَفَّيْتَنِي} يعني رفعتني إلى السماء {كُنتُ أَنتَ الرَّقِيبَ عَلَيْهِمْ} يعني الحفيظ والشاهد عليهم)) অর্থাৎ আল্লাহর বাণী : “যতক্ষণ আমি তাদের মধ্যে ছিলাম” তথা যতক্ষণ আমি তাদের মাঝে এই পৃথিবীতে অবস্থান করছিলাম, “অত:পর যখন আপনি আমাকে তাওয়াফা করলেন” তথা আপনি আমাকে আকাশে উঠিয়ে নিলেন। আপনিই তাদের উপর তত্ত্বাবধায়ক অর্থাৎ তাদের রক্ষণাবেক্ষণকারী এবং প্রত্যক্ষদর্শী।

শেষকথা– ঈসা ইবনে মরিয়ম (আ.)-এর পুনঃ আগমন সম্পর্কে ইসলামের গত চৌদ্দশত বছর ধরে মুসলিম উম্মাহার সর্বসম্মত বিশ্বাস সেটাই, যা সর্বকালে কুরআনের প্রধান প্রধান তাফসীরকারকগণ নিজ নিজ তাফসীরগ্রন্থে বিশুদ্ধ সনদে রেখে গেছেন। এর বিপরীতে সকল বিশ্বাস ও ব্যাখ্যা প্রত্যাখ্যাত ও বাতিল।

লিখক, প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী, শিক্ষাবিদ ও গবেষক

ইবনুল কাইয়ুম রহ. এর ‘মত’ পরিবর্তন ও জান্নাত জাহান্নাম কখনো ধ্বংস হবেনা

জান্নাত এবং জাহান্নাম কখনো ধ্বংস হবেনা, এটাই ছিল শায়খ ইবনে তাইমিয়াহ আর তাঁর শিষ্য শায়খ ইবনুল কাইয়ুম (عليهما الرحمة) দু’জনের সর্বশেষ ও চূড়ান্ত আকীদা।

আজকে শায়খ ইবনুল কাইয়ুম (রহ.) (৬৯১-৭৫১ হিজরী)-এর চূড়ান্ত ও সর্বশেষ ‘রায়’ (আকীদা) নিয়ে লিখছি। অত:পর শায়খুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়াহ (রহ.)-এর রায় নিয়ে লিখব, ইনশাআল্লাহ। শায়খ ইবনুল কাইয়ুম (রহ.) জাহান্নামের ভয়াবহ শাস্তির বিভিন্ন দিক উল্লেখপূর্বক এক পর্যায়ে লিখেছেন ((وهاتان الداران لا تفنيان)) অর্থাৎ এবং এ দুই আবাসস্থল ধ্বংস হবেনা। (আল ওয়াবিলুছ ছায়্যিব পৃষ্ঠা নং ৪২, মুহাক্কিক আব্দুর রহমান ইবনে হাসান ইবনে কায়িদ।

প্রামাণ্য স্ক্যানকপি দ্রষ্টব্য

বলে রাখা জরুরি যে, এঁদের ব্যাপারে একটি মত প্রচলিত আছে যে, এঁনারা জান্নাত এবং জাহান্নাম সম্পর্কে আহলুস সুন্নাহ’র সর্বসম্মত আকীদার বিপরীতে আকীদা ব্যক্ত করেছেন। কিন্তু সত্য কথা হচ্ছে, উনারা দুজনই পরবর্তীতে রুজূ করেছেন। বিশেষতঃ শায়খ ইবনুল কাইয়ুম (রহ.) স্বীয় রচনা حادي الأرواح ; الصواعق المرسلة এবং شفاء العليل প্রভৃতি কিতাবগুলোয় ঐধরণের আকীদা ব্যক্ত করার প্রমাণ থাকলেও তিনি পরবর্তীতে আগের অবস্থান থেকে ফিরে আসেন এবং আহলুস সুন্নাহ’র সর্বসম্মত আকীদার প্রতিই রুজূ করেন। এর প্রমাণ হিসেবে তার অপরাপর রচনা الوابل الصيب; طريق الهجرتين দেখা যেতে পারে।

লিখক, মুহাম্মদ নূরুন্নবী এম এ

একই রমযানে চন্দ্র ও সূর্যগ্রহণ বর্ণনার তাহকিক

দারাকুতনীর একটি জাল বর্ণনার আলোকে ১৮৯৪ এবং ‘৯৫ সালে একই রমাযানে চন্দ্র ও সূর্যগ্রহনের ঘটনা দিয়ে মির্যা গোলাম আহমদ সুযোগ নেয়ার চেষ্টা করে। গোলাম আহমদ কাদিয়ানী সেটিকে ঢাক-ডোল পিটিয়ে তার ইমাম মাহদী দাবীর সত্যতার প্রমাণ হিসেবেও প্রতিষ্ঠা করতে চেষ্টা করে। তার অনুসারীরা এ যুগে এসেও বহু মানুষকে এধরণের একটি মিথ্যা দিয়ে অনবরত পথভ্রষ্ট করেই চলছে। এ নির্বোধরা জানেনা যে, শেষনবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর যুগ থেকে এ পর্যন্ত (২০০১ সাল) একই রমযান মাসে চন্দ্রসূর্যগ্রহণ সংঘটিত হয়ে আসছে কমকরে হলেও ১০৯ বার। ফলে একথা পরিষ্কার হয়ে যায় যে, এধরণের “গ্রহণের” ঘটনা একদমই সাধারণ ও প্রাকৃতিক, ফলে কারো পক্ষে এধরনের কোনো ঘটনাকে পুঁজি করে নিজেকে “ইমাম মাহদী” প্রমাণ করার কোনো সুযোগ-ই থাকেনি।

আসি মূল আলাপে, প্রথমকথা হচ্ছে, দারাকুতনীর ঐ বর্ণনাটি ‘হাদীস’ হিসেবে প্রমাণিত নয়। বরং এর সনদের (বর্ণনাসূত্রে) মধ্যে দুইজন মিথ্যুক এবং মুনকার পর্যায়ের রাবী (বর্ণনাকারী) থাকার কারণে বর্ণনার কথাগুলো ইমাম বাকের (রহ.)-এর কিনা তাও নিশ্চিত নয়। যদি কথাগুলো ইমাম বাকের-এর বলেও নিশ্চিত হওয়া যেত তাহলেও কথাগুলোর একটু হলেও গুরুত্ব থাকত। অতএব, বর্ণনাটি সম্পূর্ণরূপে অগ্রহণযোগ্য ও বাতিল।

প্রিয় দ্বীনি ভাই ও বোনেরা! অত্র বিষয়টি আমি প্রশ্নোত্তর আকারে নিচে তুলে ধরছি, যাতে সবাই সহজে বুঝতে পারে। তার আগে বর্ণনাটির সনদ বা ধারাবাহিক বর্ণনাসূত্র উল্লেখ করছি। যথা- এটি বর্ণনা করেছেন গ্রন্থকার ইমাম দারাকুতনী (রহ.), তিনি আবু সাঈদ থেকে, তিনি মুহাম্মদ ইবনু আব্দুল্লাহ ইবনু নওফল থেকে, তিনি উবায়েদ ইবনু ইয়া’ঈশ থেকে, তিনি ইউনুস ইবনু বুকাইর থেকে, তিনি আমর ইবনু শিম্মির থেকে, তিনি জাবের ইবনু ইয়াজিদ থেকে, তিনি মুহাম্মদ ইবনু আলী (জন্ম-মৃত. ৫৭-১১৪ হিজরী) থেকে।

উল্লেখ্য, মুহাম্মদ ইবনু আলী হচ্ছেন হযরত হোসাইন ইবনু আলী (রহ.)-এর নাতী, যিনি ইমাম বাকের হিসেবেই পরিচিত।

প্রশ্নর্কতা : এটি ইমাম বাকেরের বক্তব্য হওয়াটাও কিজন্য নিশ্চিত নয়?

উত্তরদাতা : ঐ যে দুই মিথ্যুকের কারণে। উপরেই সনদ উল্লেখ করে দিয়েছি! সেখানে ইমাম বাকেরের নামে যে দুই ব্যক্তি চন্দ্রসূর্যগ্রহণের কথাটি মাহদীয়তের নির্দশন বলে চালিয়ে দিয়েছে তাদের নামও উল্লেখ আছে। দেখুন! ইমাম বুখারী, ইবনু হিব্বান, ইয়াহইয়া ইবনু মঈন সহ হাদীসশাস্ত্রের বিশেষজ্ঞগণ পরিষ্কার বলে দিয়েছেন যে, এই দুই ব্যক্তি মিথ্যুক এবং মুনকার রাবী। এদের সূত্রে বর্ণিত কোনো কিছুই গ্রহণযোগ্য নয়। সুতরাং এদের বর্ণিত কথাটি এই জন্যই ইমাম বাকেরের কথাও কিনা নিশ্চিত নয়।

প্রশ্নকর্তা : ইমাম বুখারী (রহ.)ও উক্ত সনদের রাবীদের সমালোচনা করেছেন কি?

উত্তরদাতা : জ্বী, সমালোচনা করেছেন। ইমাম যাহাবী সংকলিত ‘তালখীছুল মুস্তাদরিক’ (১/২৪৬) থেকে হুবহু আরবী ইবারত তুলে ধরছি। যেমন-((قال يحيى بن معين : ليس بشيئ و قال الجورجانى : زائغ كذاب. و قال ابن حبان : رافضى يشتم الصحابة و يروى الموضوعات عن الثقات. و قال البخارى : منكر الحديث. و قال يحيى : لا يكتب حديثه و قال السليمان : كان عمرو يضع للروافض و قال ابو حاتم : منكر الحديث جدا ضعيف الحديث الخ و قال الحاكم ابو عبدالله : كان كثير الموضوعات عن جابر))

এখানে নিশ্চয়ই দেখতে পাচ্ছেন যে, ইমাম বুখারী (রহ.)ও সনদে উল্লিখিত ‘আমর ইবনে শিম্মির’-কে ‘মুনকার’ রাবী বলেছেন (قال البخارى : منكر الحديث)। এছাড়া অন্যান্য মুহাদ্দিসগণ তো বলেছেনই। যেমন, সকল মুহাদ্দিস বলেছেন, তার বর্ণিত রেওয়ায়েত গুরুত্বহীন, সে কপট প্রকৃতির ও মিথ্যাবাদী, সে একজন রাফেজি (শীয়া মতাদর্শী) এবং সাহাবীদের গালি দিত; সে বিশ্বস্থ রাবীদের নামে জাল হাদীস তৈরী করত, সে একজন মুনকার রাবী, তার কোনো হাদীসই লিখাযোগ্য নয়, সে রাফেজিদের জন্য হাদীস জাল করত, সে হাদীসের জগতে খুবই দুর্বল। ইমাম হাকেম (রহ.) বলেছেন, সে জাবের ইবনু ইয়াজিদের কাছ থেকে বহু জাল হাদীস বর্ণনাকারী। উপরে যে সব কথা লিখলাম তা মূলত আরবী ইবারতটিরই অনুবাদ।

একই রাবী ‘আমর ইবনে শিম্মির‘ (عَمْرو بْنُ شِمِّرٍ) (মৃত. ১৫৭ হিজরী) সম্পর্কে ‘জারহু ওয়াত-তা’দীল’ বিষয়ক কিতাবগুলোতে এভাবেও লিখা আছে যে, তার পূর্ণ নাম আবূ আব্দিল্লাহ আমর ইবনে শিম্মির আল জা’ফী আল কূফী। তিনি হাদীসের জগতে মাতরূক (متروك الحديث) তথা পরিত্যাজ্য। তার সম্পর্কে বিখ্যাত মুহাদ্দিসগণের রায় হচ্ছে, ইমাম আবূ আহমদ আল হাকিম বলেন ليس بالقوي عندهم অর্থাৎ সে মুহাদ্দিসগণের নিকট শক্তিশালী রাবী নন। ইমাম আবূ আহমদ ইবনু আদী আল জুরজানী বলেন عامة ما يرويه غير محفوظ তার রেওয়ায়েত সমূহ অসংরক্ষিত ও ব্যাপক। ইমাম আবূবকর আল বায়হাক্বী বলেন لا يحتج به তার বর্ণনা দ্বারা দলিল দেয়া যাবেনা। ইমাম আবূ হাতিম আর রাযী বলেন منكر الحديث جدا ضعيف الحديث لا يشتغل به تركوه সে চরম পর্যায়ের মুনকার, দুর্বল, তার বর্ণনার পেছনে ব্যস্ত হওয়া যাবেনা, মুহাদ্দিসগণ তাকে পরিত্যাগ করেছেন। ইমাম আবূ হাতিম ইবনু হিব্বান আলবাস্তী বলেন, رافضي يشتم الصحابة ويروي الموضوعات عن الثقات সে একজন রাফেযী, সাহাবায়ে কেরামদের গালি দিত, বিশ্বস্ত রাবীর নামে জাল হাদীস বর্ণনা করত। ইমাম আবূ যুর’আ আর রাযী বলেন, متروك الحديث، ضعيف الحديث সে একজন মাতরূক রাবী, হাদীস বর্ণনায় দুর্বল। ইমাম আবূ আব্দিল্লাহ আল হাকিম আন নিশাপুরী বলেন, كان كثير الموضوعات عن جابر الجعفي জাবের আল জা’ফী এর সূত্রে তার নিকট অসংখ্য বানোয়াট হাদীস ছিল। ইমাম আবূ না’ঈম আল ইস্পাহানী বলেন, يروي عن جابر الجعفي بالموضوعات المناكير সে জাবের আল জা’ফী এর কাছ থেকে বহু বানোয়াট এবং মুনকার বিষয় বর্ণনা করত। ইমাম আহমদ ইবনে শোয়াইব আন নাসাঈ বলেন, متروك الحديث، ومرة: ليس بثقة ولا يكتب حديثه সে ছিল একজন মুনকার, বিশ্বস্থ ছিলনা, তার হাদীস লিখার উপযোগী নয়। ইমাম আহমদ ইবনে আলী আস সুলাইমানী বলেন, كان يضع للروافض সে রাফেযী (শীয়া-ইমামীয়া) সম্প্রদায়ের উদ্দেশ্যে জাল হাদীস রচনাকারী ছিল। ইমাম ইব্রাহিম ইবনে ইয়াকুব আল জুরজানী বলেন, زائغ كذاب সে কপট ও মহা মিথ্যাবাদী। ইমাম ইবনে হাজার আসকালানী বলেন, كذاب خبيث سباب شتام للصحب الكرام সে ছিল মহা মিথ্যুক, খবিস, সাহাবায়ে কেরামগণকে গালমন্দকারী। ইমাম দারাকুতনী বলেন, متروك الحديث، وذكره في السنن ضعيف সে হাদীসের জগতে মুহাদ্দিসগণের বিচার-বিশ্লেষণে মাতরূক বা পরিত্যাজ্য। সুনান গ্রন্থে তাকে তিনি দুর্বল বলে উল্লেখ করেছেন। ইমাম যাহাবী বলেন, متروك الحديث সে হাদীসে মাতরূক রাবী। ইমাম আমর ইবনু আলী আল পাল্লাস (عمرو بن علي الفلاس) বলেন, منكر الحديث حدث بأحاديث منكرة সে মুনকার রাবী, সে বহু মুনকার হাদীস বর্ণনাকারী। ইমাম বুখারী বলেন, منكر الحديث সে হাদীসের জগতে মুনকার বা পরিত্যাজ্য। ইমাম মুহাম্মদ ইবনে সা’আদ কাতিব আল ওয়াক্বিদি বলেন, كان ضعيفا جدا متروك الحديث সে খুবই দুর্বল, মাতিরূক বা পরিত্যাজ্য রাবী। ইমাম ইয়াহইয়া বিন মা’ঈন বলেন, ليس بشيء، ومرة: ضعيف لا يكتب حديثه، ومرة: ليس ثقة সে গুরুত্বহীন ব্যক্তি, দুর্বল, তার বর্ণনাকৃত হাদীস লিখা যাবেনা, সে অনির্ভরযোগ্য। ইমাম ইয়াকুব ইবনে সুফিয়ান আল ফাসভী (يعقوب بن سفيان الفسوي) বলেন, ضعفه তাকে দুর্বল আখ্যা দেয়া হয়েছে। (তথ্যসূত্রঃ আল মাজরূহীন-ইবনু হিব্বান, আদ-দ্ব’আফা-আবূ না’ঈম, আল কামিল ফী দু’আফাঈর রিজাল-ইবনু আদী, আল জারহু ওয়াত তা’দীল-আবূ হাতিম আর রাযী, আদ-দ্বু’আফা ওয়াল মাতরূকীন-ইবনু জাওযী, আত তাবকাতুল কোবরা-ইবনু সা’আদ, আদ-দ্বু’আফা ওয়াল মাতরূকূন-ইমাম নাসাঈ, ইবনু জুরাইক্ব, আস সুনানুল কোবরা, কবুলুল আখবার ওয়া মা’রিফাতির রিজাল, তারীখুল কাবীর-ইমাম বুখারী)।

এবার দ্বিতীয় রাবী সম্পর্কে কী লিখা আছে শুনুন। আসমাউর রিজাল শাস্ত্রের বিখ্যাত কিতাব ইমাম ইবনু আদী (২৭৭-৩৬৫ হিজরী) রচিত ‘আল কামেল ফী দ্বু’আফাঈর রিজাল’ (খ-২/পৃ-১১৩) থেকে হুবহু আরবী ইবারত তুলে ধরছি। জাবের ইবনে ইয়াজিদ আল জা’ফী (মৃত. ১২৮ হি.) সম্পর্কে : যেমন-((عن ابى حنيفة قال : ما رأيت احدا اكذب من جابر الجعفى)) অর্থাৎ ইমামে আযম আবূ হানীফা (রহ.) বলেছেন, আমি জাবের ইবনে ইয়াজিদ আল জা’ফি এর চাইতে বড় মিথ্যাবাদী দ্বিতীয় কাউকে দেখিনি। প্রখ্যাত হাদীস বিশারদ ইমাম লাইছ ইবনু আবি সুলাইম (রহ.) বলেছেন, فانه كذاب অর্থাৎ নিশ্চয়ই এই ব্যক্তি মহা মিথ্যাবাদী। ইমাম মিজ্জি (রহ.)-এর ‘তাহযীবুল কামাল’ গ্রন্থে (রাবী নং ৮৭৯) উল্লেখ আছে, ইসমাঈল ইবনে আবী খালিদ বলেন, ((فما مضت الأيام والليالي حتى اتهم بالكذب)) দিবারাত্রি অতিবাহিত না হতেই সে মিথ্যাচারিতার দোষে অভিযুক্ত হয়ে যায়। একই গ্রন্থে আরও লিখা আছে, ইমাম ইয়াহইয়া ইবনে ম’ঈন বলেন, ((لم يدع جابرا ممن رآه إلا زائدة ، وكان جابر كذابا)) যেই জাবেরকে দেখেছে সেই তাকে একজন অতিরঞ্জনকারী হিসেবে পেয়েছে, আর জাবের ছিল এখন কাজ্জাব (মহা মিথ্যুক)। ইমাম নাসাঈ বলেন, ((ليس بثقة ولا يكتب حديثه)) সে বিশ্বস্থ নয়, তার হাদীস লিখা যাবেনা। উল্লেখ্য, জাবের আল জা’ফী বড় মাপের একজন শীয়া পণ্ডিত, সে পুনঃজন্ম মতবাদে বিশ্বাসী ছিল। কেউ তাকে তাওসীক্ব করলেও বেশিরভাগ মুহাদ্দিস-ই তাকে ‘জরাহ’ করেছেন।

এবার তাহলে নিজের বিবেককেই প্রশ্ন করুন, যে বর্ণনার মধ্যে দুইজন রাবীই মিথ্যাবাদী এবং জাল হাদীস তৈরীকারী হিসেবে অভিযুক্ত ও মুনকার, সে বর্ণনার কথাগুলো ইমাম বাকের-এরই ছিল বলে কিভাবে নিশ্চিত হওয়া যায়?

প্রশ্নকর্তা : তা বুঝলাম, কিন্তু মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী ইমাম মাহদী দাবীকালে এই ধরণের ঘটনা ঘটলো কেন? এটা চিন্তার বিষয় নয় কি?

উত্তরদাতা : চন্দ্রসূর্যগ্রহণের ঘটনা ঘটা নিয়ে আপনার চিন্তার কোনো কারণ নেই। যেহেতু এটি আল্লাহর অন্যান্য প্রাকৃতিক সাধারণ নিয়মগুলোর মতই! হ্যাঁ, যদি এটি ওরকম না হত এবং এই ধরণের ঘটনা আগেও অসংখ্যবার না ঘটত তাহলে তা চিন্তাশীলদের অবশ্যই ভাবিয়ে তুলত! যেজন্য এতে বিশেষ কোনো বৈশিষ্ট্যই বাকি থাকেনি।

প্রশ্নকর্তা : আপনি কি বলতে চাচ্ছেন যে, চন্দ্রসূর্যগ্রহণের এই অলৌকিক ঘটনাটি বিশেষ কোনো নিদর্শন নয়, ইতিপূর্বেও সময় সময় এটি প্রকাশিত হয়েছিল? কী প্রমাণ আছে?

উত্তরদাতা : জ্বী, এর আগেও এটি সাধারণ নিয়মেই বহুবার প্রকাশিত হয়েছে। আর এটি আমার নিজের কোনো বক্তব্য নয়। এর পক্ষে ইতিহাস সাক্ষী। ঢাকা বকশিবাজার থেকে প্রকাশিত কাদিয়ানীদের ‘পাক্ষিক আহমদী’ (পৃ-২৪, তাং ১৫-এপ্রিল-২০১৫ইং) পড়ে দেখুন, সেখানেও এ ব্যাপারটি স্বীকার করে লিখা হয়েছে যে, ‘হায়দ্রাবাদের ওসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাস্ট্রোনমি বিভাগের প্রফেসর জি. এম. বল্লভ ও আমি (মির্যায়ী লিখক) যে হিসাব কষেছি তাতে দেখা গেছে যে, মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর যুগ থেকে এ পর্যন্ত একই রমযান মাসে চন্দ্রসূর্যগ্রহণ সংঘটিত হয়েছে মোট ১০৯ বার। এর মধ্যে তিনবার দুটি গ্রহণই নির্ধারিত তারিখে অর্থাৎ ১৩ ও ২৮ রমযানে কাদিয়ান থেকে দৃশ্যমান ছিল।’

বলে রাখা জরুরী, কাদিয়ানী লিখক এখানে ’কাদিয়ান থেকে দৃশ্যমান ছিল’ দাবী করলেও আমেরিকা মহাকাশ গবেষণা বিভাগ ‘নাসা’ তার এই দাবী প্রত্যাখ্যান করেছে। কারণ নাসা-এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে ১৮৯৪ সালের ৬ই এপ্রিলে সংঘটিত গ্রহণের মানচিত্রে (বেগুনি রঙ্গের একটি অঙ্কিত রেখা দ্বারা) উক্ত গ্রহণের কক্ষপথ দেখিয়ে বুঝিয়ে দেয়া হয় যে, সেটি বাংলাদেশ আর বেঙ্গালুরু-এর উপর দিয়ে দক্ষিণ থেকে উত্তর দিকে চলে যায়। এই গ্রহণ এশিয়ার নানা দেশসহ ভারতেরও কয়েকটি স্থান থেকে দৃশ্যমান হলেও কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত পাঞ্জাব থেকে দেখা যায়নি। এখন প্রশ্ন হল, ‘কাদিয়ান’ কি ভারতের পাঞ্জাবের বাহিরে না ভেতরে? মজার বিষয় হল, নাসা-এর বিজ্ঞানীদের ওয়েবসাইটটিতে পরিষ্কার করে এও লিখা আছে, এই ধরণের চন্দ্রসূর্যগ্রহণের ঘটনা আজ অব্ধি প্রায় পাঁচ হাজারেরও অধিক বার ঘটেছিল। আপনি কি এরপরেও এটিকে প্রাকৃতিক সাধারণ নিয়মগুলোর মতই মানতে অস্বীকার করবেন?

প্রশ্নকর্তা : আপনি আর কোনো মাহদী দাবীদারের সময়ও এই ধরণের (চন্দ্রসূর্যগ্রহণের) ঘটনা ঘটেছিল বলে প্রমাণ করতে পারবেন?

উত্তরদাতা : জ্বী, পারব। আপনি কি মরক্কো বংশোদ্ভূত সালেহ বিন তারিফ-এর নাম শুনেছেন? তিনি নিজেকে ৭৪৪ সালে নবী দাবী করেন। তিনি ৭৯১ সাল পর্যন্ত মরক্কোর ‘বারঘৌতা বারবার’ রাজ্যের একজন শাসক ছিলেন। তিনি নিজেকে ইমাম মাহদীও দাবী করেছিলেন। তিনি যে বছর ইমাম মাহদী দাবী করেন তার পরের বছর অর্থাৎ ১২৬ হিজরী মুতাবিক ৭৪৪ খ্রিস্টাব্দে একই রমাযানের ১৩ এবং ২৮ তারিখে চন্দ্র ও সূর্যগ্রহণের ঘটনাও ঘটেছিল। আর এই ঘটনা তার সময় চারবার ঘটেছিল যথাক্রমে ৭৪৪, ৭৪৫, ৭৮৭ এবং ৭৮৮ খ্রিস্টাব্দে। তার প্রতিষ্ঠিত ঐ জামাতের নাম ছিল ‘সালেহুল মুমিনীন’। তার মৃত্যুর পরেও তার এই জামাত প্রায় সাড়ে তিন’শ বছর পর্যন্ত আফ্রিকায় খুব দাপটের সাথে প্রতিষ্ঠিত ছিল এবং লক্ষ লক্ষ মানুষকে আকৃষ্ট করেছিল। পরবর্তীতে ১০ম শতকের শেষের দিকে আল মুরাবিত রাজ-বংশের মুসলিম বীর সিপাহসালার ইউসুফ বিন তাসফিন এর নেতৃত্বে একটি যুদ্ধের মাধ্যমে সালেহ বিন তারিফের রাজ্যের পতনের মধ্য দিয়ে ঐ মিথ্যা দলটিরও বিলুপ্তি ঘটে।

প্রশ্নকর্তা : কিন্তু মির্যা গোলাম আহমদ তো ১৮৯৪ সালের দিকে শুধু ইমাম মাহদী দাবীদারই ছিলেন, তিনি নবী দাবী করেননি? অথচ সালেহ বিন তারিফ তো নবী দাবীও করেছিল?

উত্তরদাতা : ‘বাবী জামাত’ এর প্রতিষ্ঠাতা ইরানের আলী মুহাম্মদ বাব সাহেবও ইমাম মাহদী দাবী করেছিলে (১৮৪৪ সাল)। তার আমলেও (১৮৫১ সাল) একই রমাযানে চন্দ্রসূর্য গ্রহণের ঘটনা ঘটেছিল। আর তিনিও শুধুই ইমাম মাহদী দাবী করেছিলেন। এখন সেও কি একই ঘটনার দরুন ইমাম মাহদী সাব্যস্ত হবেন? উল্লেখ্য, বর্তমানেও তার বহু অনুসারী (প্রায় ৪ মিলিয়ন, উইকিপিডিয়া) পৃথিবীতে রয়েছে। প্রায় ২১৮টি রাষ্ট্রে তার অনুসারীদের অবস্থান রয়েছে। যাইহোক, মির্যা গোলাম আহমদের জন্য একটি দুঃসংবাদ আছে, বলব?

: বলুন!

: মির্যা গোলাম আহমদ ঐ চন্দ্রসূর্যগ্রহণ সংক্রান্ত বর্ণনাটির মর্মার্থ বুঝাতে গিয়ে নিজ কিতাবে লিখে গেছেন, ‘বরং হাদীসের উদ্দেশ্য হল, কোনো নবুওয়ত বা রেসালত দাবীদারের সময়টিতে কখনো এই দুইটি গ্রহণ একত্রিত হবেনা।’ (রূহানী খাযায়েন ২২/২০৩)। মির্যা গোলাম আহমদ এই কথা বলে মূলত সে সমস্ত মাহদী দাবীদারের বিরুদ্ধে আঙ্গুল উঠাতে চাচ্ছেন যারা মাহদী দাবীর সময় নবুওয়ত ও রেসালতের দাবী করেনি, যদিও চন্দ্রসূর্যগ্রহণের ঘটনাও ঘটেছিল! হায়! মানুষ কতটা ধূর্ত হলে এইরূপ উদ্ভট ব্যাখ্যাও দিয়ে যেতে পারে! যাইহোক, এখন আমার প্রশ্ন হল, মির্যা গোলাম আহমদ ১৮৯৪ বা ১৮৯৫ সালে চন্দ্র সূর্যগ্রণের সময়ও পরিষ্কার করে নবুওয়ত বা রেসালতের দাবী করেননি, যা আপনিও জানেন; বরং তিনি ১৮৯৭ সালের দিকেও নবুওয়ত দাবিদারের প্রতি লানত (অভিশাপ) বর্ষণ করেছেন। (দেখুন মাজমু’আয়ে ইশতিহারাত ২/২৯৭-২৯৮ ও ২/২)।

এমতাবস্থায় ঐ দুই মিথ্যুকের সূত্রে বর্ণনাটি যদি সহীহও হত তবু মির্যা গোলাম আহমদকে ইমাম মাহদী সাব্যস্ত করার কোনো উপায় থাকেনা। অধিকন্তু মির্যা গোলাম আহমদের উক্ত ব্যাখ্যা অনুসারে ‘সালেহ বিন তারিফ’-ই ইমাম মাহদী সাব্যস্ত হয়ে যাচ্ছেন। কারণ সে একই সময় ইমাম মাহদী এবং নবী দুটোরই দাবীদার ছিল! আশা করি, উক্ত রেওয়ায়েতটির অসারতা এবার আপনার নিকটও পরিষ্কার হয়ে গেল!

আচ্ছা! আপনি কি জানেন আপনাদের মির্যা গোলাম আহমদ সাহেব পরিষ্কার ভাষায় লিখে গেছেন যে, তার একনিষ্ঠ অনুসারীরা যে কোনো মতভেদপূর্ণ বিষয়ের সমাধান যেন তার কাছ থেকেই নেয়! (দেখুন রূহানী খাযায়েন ১৭/৬৪)। অন্তত এ দিক থেকেও আপনাদের জন্য বৈধ হবেনা ঐ দুই মিথ্যুকের বর্ণিত রেওয়ায়েতকে মাহদীয়তের কথিত নিদর্শন মনে করা। কারণ মির্যা সাহেব এও লিখে গেছেন ‘ইমাম বুখারীর কৃত শর্তের বিপরীত যে হাদীস সেটি গ্রহণযোগ্য নয়।’ (দেখুন রূহানী খাযায়েন ১৭/১১৯-২০)। পক্ষান্তরে ইমাম বুখারী উক্ত বর্ণনার সনদ (সূত্র) সম্পর্কে পরিষ্কার বলেছেন, এটি মুনকার রেওয়ায়েত। আপনি ইমাম বুখারীর সংকল ‘তারীখু কাবীর’ (৬/৩৪৪, ক্রমিক নং ২৫৮৩) কিতাব থেকেও দেখতে পারেন। তিনি সনদ সহ পরিষ্কার লিখে দিয়েছেন এভাবে যে, ((عَمْرو بْنُ شِمِّرٍ : روى بعضهم عَنْ عَمْرو بْن أَبِي عَبْد اللَّه، الجعفِي، عَنْ جَابِر، منكر الْحَدِيث)) অর্থাৎ “আমর ইবনে শিম্মির সম্পর্কে : কতিপয় ব্যক্তি আমর ইবনে আবী আব্দিল্লাহ, (আমর ইবনে শিম্মির) আল জা’ফী ও জাবির (ইবনে ইয়াজিদ আল জা’ফী) থেকে বর্ণনা করেছে। সে (আমর ইবনে শিম্মির) একজন মুনকার রাবী।” মনে রাখতে হবে, অগ্রহণযোগ্য হাদীস গুলোর একটি প্রকারকে ‘মুনকার হাদীস’ বলে। কিন্তু কাদিয়ানীদের নিকট এ প্রশ্নেরও কোনো সদুত্তর নেই। সংক্ষেপে।

লিখক, প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী, শিক্ষাবিদ ও গবেষক

ইমাম মাহদী ‘কাদেয়া’ গ্রাম থেকে বের হওয়া এবং জমিদার বংশীয় হওয়া প্রসঙ্গে

প্রশ্নঃ ইমাম মাহদী ‘কাদেয়া’ নামক গ্রাম থেকে বের হওয়া এবং জমিদার বংশীয় হওয়া এধরণের কথাবার্তার ভিত্তি আছে কি?

উত্তরঃ (এক) ইমাম মাহদী ‘কাদেয়া’ নামক গ্রাম থেকে বের হবেন, এমন কথার কোনো ভিত্তি নেই। শুনে অবাক হবেন, কাদিয়ানীদের ‘তাবলিগি পকেটবুক‘ নামক ছোট্ট একখানা বইয়ে লিখা আছে, ইমাম মাহদীর গ্রামের নাম কাদ’আ বা কাদেয়া (আরবী : كدعة) বলেই হাদীসে উল্লেখ আছে! আমরা উত্তরে বলি যে, এই ধরণের কোনো শব্দ কোনো দুর্বল বর্ণনাতেও উল্লেখ নেই। মির্যা কাদিয়ানীর ভাষ্যমতে “ইমাম মাহদী এমন একটি গ্রাম থেকে প্রকাশ পাবেন যে গ্রামের নাম থাকবে কাদ’আ। তার মাথায় থাকবে পাগড়ী। সেখানকার একজন আহ্বানকারী ডেকে বলবে, ইনি হলেন মাহদী। তোমরা তার অনুগত হও।” (মির্যা কাদিয়ানী তারপর লিখেন), এখানে যেই কাদ’আ শব্দ এসেছে তদ্দ্বারা পাঞ্জাবে (ভারত) ‘কাদিয়ান’ নামক গ্রামই উদ্দেশ্য। মির্যা কাদিয়ানীর রচনা ‘তাযকেরাতুশ শাহাদাতাইন’ এর মধ্যেও অনুরূপ বক্তব্য পাওয়া যায়। এবার মূল আলাপে আসছি, প্রথমকথা হচ্ছে, আলোচ্য রেওয়ায়েতটি জাল ও বানোয়াট। হাদীসশাস্ত্রের প্রায় ১৬ জন বিশেষজ্ঞ যাঁরা মির্যা কাদিয়ানীর জন্মেরও শতশত বছর আগে জন্মগ্রহণকারী, প্রত্যেকে বর্ণনাটির সনদ (সূত্র) পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে পরিষ্কার বলে গেছেন যে ‘এটি জাল তথা বানোয়াট’ কথা। কারণ এর সূত্রে উল্লিখিত একজন বর্ণনাকারী হচ্ছে আব্দুল ওহাব বিন আল-জাহহাক। তার সম্পর্কে মুহাদ্দিসগণের মতামত এই যে, ১. ইমাম বায়হাক্বী বলেন, সে হাদীসের জগতে পরিত্যাজ্য। ২. ইমাম আবু জা’ফর আল-আক্বিলী বলেন, সে হাদীসের জগতে মাতরূক তথা পরিত্যাজ্য। ৩. ইমাম আবু হাতিম বলেন, সে মিথ্যা বলত। ৪. ইমাম ইবনে হিব্বান বলেন, তার হাদীস দ্বারা দলিল দেয়া বৈধ নয়। ৫. ইমাম আবুদাউদ বলেন, সে হাদীস জাল করত এবং সে বিশ্বস্ত নয়। ৬. ইমাম আবু জুর’আ বলেন, সে হাদীস তৈরি করত। ৭. ইমাম হাকিম নিশাপুরী বলেন, তার বর্ণিত হাদীসগুলো বানোয়াট। ৮. ইমাম আবু নাঈম আল ইস্পাহানী বলেন, তার হাদীসগুলো জাল। ৯. ইমাম আহমদ ইবনে শু’আইব আন নাসায়ী বলেন, তার নিকট বিস্ময়কর হাদীস থাকত এবং সে অবিশ্বস্ত ও পরিত্যাজ্য আর ইমাম হাতিম তাকে মিথ্যাবাদী বলতেন। ১০. ইমাম ইবনুল ইরক বলেন, সে হাদীস তৈরি করত এবং মিথ্যাবাদী হিসেবে সমালোচিত ছিল। ১১. ইমাম দারে কুতনী বলেন, সে পরিত্যাজ্য, দুর্বল এবং তার বহু বাতিল আর পরিবর্তিত রেওয়ায়েত ছিল। ১২. ইমাম ছালেহ বিন মুহাম্মদ জাজিরাহ বলেন, সে মুনকারুল হাদীস (বিশ্বস্ত রাবীর উল্টো বর্ণনাকারী) এবং তার বর্ণিত হাদীস সাধারণত মিথ্যা। ১৩. ইমাম মুহাম্মদ ইবনে ইসমাঈল আল বুখারী বলেন, তার নিকট বহু পরিমাণে বিস্ময়কর বর্ণনা ছিল। (তাহযীবুল কামাল, মীযানুল ই’তিদাল ২/৬৭৯; রাবী নং ৫৩১৬; ইমাম যাহাবী রহ.)।

আফসোস! সাধারণ কাদিয়ানীদের পক্ষে কি আর এত গভীরভাবে তথ্য অনুসন্ধান করা সম্ভব? সব চেয়ে আশ্চর্যের কথা হল, রেওয়ায়েতটিতে ঐ শব্দটি “কাদ’আ বা কাদেয়া” নয়, বরং শব্দটি হল “কার’আ” (كرعة), যার ভৌগোলিক অবস্থান হিসেবে আরবের ‘ইয়েমেন‘ নামক রাষ্ট্রের উল্লেখ রয়েছে। যেমন ইমাম জালালুদ্দীন আস-সুয়ূতী (রহ.) সংকলিত “আল আ’রফুল ওয়ারদি ফী আখবারিল মাহদী-العرف الوردي في أخبار المهدي নামক কিতাবে লিখা আছে, ((يخرج المهدي من قرية باليمن يقال لها كرعة)) অর্থাৎ মাহদী ইয়েমেন এর কার’আ নামক গ্রাম থেকে বেরুবেন (পৃ.-৫৬ দ্রষ্টব্য)। আফসোস! মির্যা গোলাম আহমদ জাল রেওয়ায়েতটির সম্পূর্ণ বিবরণ পাশকাটিয়ে যায় এবং কাটছাঁট করে মতলবসিদ্ধ কনসেপ্ট দাঁড় করে যায়! দুনিয়ার বুকে এর চেয়ে বড় প্রতারণা আর কী হতে পারে!!

পাঠকবৃন্দ! খেয়াল করলে দেখতে পাবেন যে, একই বর্ণনায় ইয়েমেন (يمن) শব্দও উল্লেখ রয়েছে। আরবি বাক্যটি একটু আগেই অর্থসহ দেখেছেন। যাদের সত্য খতিয়ে দেখার প্রয়োজন আছে তারা একটু কষ্ট করে গুগলে সার্চ দিয়ে “কার’আ” নামীয় গ্রামের ভৌগোলিক অবস্থান দেখে নেবেন! তবেই ‘কার’আ’ গ্রামের ভৌগোলিক অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হতে পারবেন যে, و كرعة قرية في منطقة بني خَوْلان باليمن قرب صعدة অর্থাৎ “কার’আ” এটি ছ’দাহা নামক স্থানের নিকটতম ইয়েমেন এর বনী খাওলান অঞ্চলের একটি গ্রাম। আপনি অনলাইন থেকে আরো স্বচ্ছ তথ্য পাবেন যে, ইয়েমেনের একদম পশ্চিমে একটি সীমান্তবর্তী জেলার নাম Sadah (ছ’দাহা)। এটি রাজধানী San’a (সানা) হতে উত্তরে প্রায় ২৪৩ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। কার’আ (كرعة) নামক গ্রামটি এই জেলার নিকটে এবং আল-হাদীদ শহরের দক্ষিণে ও Bayt al Faqih শহরের পূর্ব সীমান্তে দুটো পাহাড়ের মধ্যখানে অবস্থিত। গ্রামটি বর্তমানে ছোটছোট ৫ টি গ্রামের সমন্বয়ে গঠিত। গ্রামগুলো হল- الظهرة, مكراع, الجروة, هاجرة, مرحلة (গুগল থেকে মানচিত্রসহ দেখে নিন)। উইকিপিডিয়া (আরবি ভার্সন) দ্রষ্টব্য।

(দুই) আপনি কাদিয়ানী লিটারেচারগুলো পড়লে আরও দেখতে পাবেন যে, তারা আরেক জায়গায় দাবী করে লিখে রাখছে যে, হাদীসে আসছে ইমাম মাহদী একজন ‘জমিদার বংশীয়’ হবেন! অথচ এধরণের কোনো হাদীসই দুনিয়ারবুকে খোঁজে পাওয়া যায়না। কিন্তু কথা হল, তাহলে তাদের ঐ কথার ভিত্তি কী? এর উত্তর হচ্ছে, মূলত তারা হযরত আলী (রা.) হতে বর্ণিত একটি হাদীসের শব্দে ইচ্ছাকৃত বিকৃত অনুবাদ দ্বারাই এ ধরণের অলীক কথাবার্তা লিখে রেখেছে। এবার জেনে নেয়া যাক, হযরত আলী (রা.) থেকে বর্ণিত হাদীসটির শব্দগুচ্ছে তারা কী রকম বিকৃতি ঘটিয়েছে! হাদীসটিতে একটি শব্দ হচ্ছে ‘আল হারিছ হাররাছ’ (الْحَارِثُ حَرَّاثٍ)। ফলে প্রশ্ন আসবে যে, তাহলে এই ‘হারিছ হাররাছ’টা কে? সুনানে আবুদাউদ গ্রন্থের “কিতাবুল মাহদী” অংশে একই বর্ণনাকারী থেকে হাদীসটির আরবী ইবারত ( Text) দেখলে বুঝা যায় যে, সেই ‘আল হারিছ হাররাছ’ নামক ব্যক্তিটি ইমাম মাহদীর যুগের এমন এক ভাগ্যবান মহাপুরুষ যিনি “ওরায়ুন্নাহার তথা মধ্য এশিয়া” থেকে সৈন্যসামন্ত নিয়ে হযরত ইমাম মাহদীর সাহায্যে সম্মুখে এগিয়ে আসবেন। তার পূর্ণ নাম হবে আল হারিছ বিন হাররাছ (الْحَارِثُ بْنُ حَرَّاثٍ) তথা হাররাছের পুত্র হারিছ। এবার অনুবাদসহ সংশ্লিষ্ট হাদীসটি নিচে দেখুন, রাসূল (সা.) ইরশাদ করেছেন, ((يَخْرُجُ رَجُلٌ مِنْ وَرَاءِ النَّهْرِ يُقَالُ لَهُ الْحَارِثُ بْنُ حَرَّاثٍ عَلَى مُقَدِّمَتِهِ رَجُلٌ يُقَالُ لَهُ مَنْصُورٌ يُوَطِّئُ أَوْ يُمَكِّنُ لآلِ مُحَمَّدٍ كَمَا مَكَّنَتْ قُرَيْشٌ لِرَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم وَجَبَ عَلَى كُلِّ مُؤْمِنٍ نَصْرُهُ ‏.‏ أَوْ قَالَ إِجَابَتُهُ)) অর্থাৎ ওরায়ুন্নাহার তথা মধ্য এশিয়া থেকে আল হারিছ বিন হাররাছ নামক এক ব্যক্তি বের হবেন। তাঁর আগে “মানছুর” নামের অপর এক ব্যক্তি বের হবেন। তিনি মুহাম্মদ (এখানে মুহাম্মদ বলতে ইমাম মাহদীকে বুঝানো উদ্দেশ্য। কেননা তার নামও মুহাম্মদ হবে)-এর অনুসারীর সাহায্যে এসে (বাহিনীতে) মিলিত হবেন ও তাঁকে শক্তিশালী করবেন; যেইরূপ কুরাইশরা রাসূল (সা.)-কে সাহায্য করেছিলো। (সেই সময়কার) সকল মুমিনের উচিত তাঁকে (ইমাম মাহদীকে) সাহায্য করা এবং তাঁর আহবানে সাড়া দেয়া।” রেফারেন্স, আবুদাউদ কিতাবুল মাহদী, হা/৪২৪০ [ইফা]; আরো দেখুন, ইমাম সুয়ূতী (রহ.) রচিত ‘আল আ’রফুল ওয়ারদী ফী আখবারিল মাহদী’ পৃষ্ঠা নং ২৭-২৮। হাদীসের মান, দুর্বল। যাইহোক, এবার দেখুন, কাদিয়ানীদের রচনাসমূহে উক্ত হাদীসটির ‘আল হারিছ বিন হাররাছ’ নামক ব্যক্তির পরিচয় বিলুপ্ত করে এবং সেটিকে বিকৃত করে কত নিকৃষ্টতম অপব্যাখ্যার তুফান ঘটিয়েছে! যেমন তারা লিখেছে, ইমাম মাহদী জমিদার বংশীয় হবেন, বিপাশা নদীর অববাহিকায় অবস্থিত ‘কাদিয়ান’ গ্রাম থেকে তিনি আত্মপ্রকাশ করবেন। নাউযুবিল্লাহ।

যাইহোক, সুনানে আবুদাউদ শরীফের উক্ত হাদীস হতে আমরা পরিষ্কার ধারণা পাই যে, ‘হারিছ হাররাছ’ হচ্ছে আল হারিছ ইবনে হাররাছ শব্দের সংক্ষিপ্ত রূপ। এবার ‘ওরায়ুন্নাহার’ (Wa’raun Nahar) এর ভৌগলিক অবস্থান সম্পর্কে জেনে নেব। ওরায়ুন্নাহার (ইংরেজি : Central Asia) হল, মধ্য এশিয়ার কিছু দেশ (বিশেষত, সমরকন্দ, বুখারা, তিরমিয, তাসখন্দ ইত্যাদি)’র ভূ-বেষ্টিত এলাকা! অঞ্চলটির সীমানার অনেকগুলো সংজ্ঞা আছে, যার কোনোটিই পুরোপুরি সর্বজনগৃহীত নয়। ঐতিহাসিকভাবে অঞ্চলটি বিভিন্ন যাযাবর জাতি ও সিল্ক রোডের সাথে সম্পর্কিত। ফলে অঞ্চলটি ইউরোপ, মধ্যপ্রাচ্য, দক্ষিণ এশিয়া ও পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন জাতি, দ্রব্য ও সাংস্কৃতিক ধারণাসমূহের আদানপ্রদানের অঞ্চল হিসেবে কাজ করেছে। মধ্য এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে আছে কাজাকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান, উজবেকিস্তান, কিরগিজস্তান, তাজিকিস্তান, এবং অন্যান্য ছোট ছোট রাষ্ট্র যেমন আজারবাইজান (কাস্পিয়ান সাগরের অপর পাড়ে অবস্থিত)। ভূ-রাজনৈতিক দিক থেকে আফগানিস্তান ও পাকিস্তানকেও অনেক সময় এর অন্তর্ভুক্ত করা হয়। (সূত্র : উইকিপিডিয়া)। আল্লাহ আমাদেরকে আখেরি যামানার সকল ফেতনা ও ভণ্ডদের ভন্ডামি থেকে রক্ষা করুন। আমীন।

লিখক, প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী