Home Blog Page 2

মির্যা কাদিয়ানীর জামাত ব্রিটিশ সরকারের রোপিত চারাগাছ, বললেন মির্যা কাদিয়ানী

কাদিয়ানী সাহেব ১৮৯৮ সালের দিকে কোনো এক প্রেক্ষিতে তৎকালীন ভারত সম্রাজ্ঞী ও ব্রিটিশ রাণী আলেকজান্ড্রিনা ভিক্টোরিয়া বরাবর নিজেকে কিংবা নিজের প্রতিষ্ঠিত “জামাত” সম্পর্কে পত্রে লিখেছেন “নিজেদের হাতে রোপিত এই চারাগাছটির ব্যাপারে খুব সতর্কতা ও অনুসন্ধানের সাথে অগ্রসর হবেন এবং আপনার অধীনস্তদের বলবেন তারা যেন এই পরিবারের ত্যাগ ও নিষ্ঠার কথা মনে করে আমার দলের প্রতি সদয় দৃষ্টি জ্ঞাপন করেন। আমাদের পরিবার ইংরেজ সরকারের কল্যাণে নিজেদের খুন বইয়ে দিতে ও জীবন দিতেও দ্বিধা করেনি আর না এখনো দ্বিধা করছে।” (মাজমু’আয়ে ইশতিহারাত ৩/২১-২২; নতুন এডিশন)। কাজেই কাদিয়ানী কিংবা তার “জামাত” ব্রিটিশ সরকারেরই রোপিত চারাগাছ বললে তা আদৌ বানিয়ে বলা হবেনা, বরং প্রকৃতই তারা তাদের “রোপিত চারাগাছ” বলেই প্রমাণিত।

লিখক, শিক্ষাবিদ ও গবেষক

ব্রিটিশ সরকারের পতন মানে কাদিয়ানী জামাতের পতন, বললেন মির্যা বশির উদ্দীন মাহমুদ

ব্রিটিশ সরকারের আনুগত্য স্বীকার করে কাদিয়ানীদের দ্বিতীয় খলীফার চাঞ্চল্যকর বক্তব্য

প্রশ্ন : কাদিয়ানীরা কি সত্যিই ব্রিটিশ প্রোডাক্ট? অনেককেই তো এভাবে বলতে শুনি! কিন্তু প্রমাণ আছে কি?

উত্তর : কাদিয়ানী জামাতের দ্বিতীয় খলীফা-এর বক্তব্যে ব্রিটিশ সরকার সম্পর্কে অতিব গুরুত্বপূর্ন একটি মূল্যায়ন তুলে ধরছি, যা একজন সাধারণ শিক্ষিত মানুষকেও ভাবতে উৎসাহিত করবে! একটি গোষ্ঠী কতটা পরগাছা আর ব্যক্তিত্বহীন হলে সাম্রাজ্যবাদী ব্রিটিশ সরকারের এতটা করুণা ভিক্ষুক হতে পারে তা চিন্তা করতেও মাথা নিচু হয়ে যায়! নিজেদের ‘ইমাম মাহদীর জামাত আর ট্রু ইসলাম’ দাবীদারদের এ-ই না হয় আসল রূপ!! ব্রিটিশ সরকারের পতনকে নিজেদেরই ‘পতন’ বলে দাবীদারদের মুখে কথায় কথায় “ইলাহী জামাত” শব্দটা শুধু শ্রুতিকটুই নয়, বরং দুনিয়ার সাথে তামাশা-ই বলা যায়! ব্রিটিশ সরকারের আনুগত্য স্বীকার করে মির্যাপুত্র মির্যা বশির উদ্দীন মাহমুদ কী বলেছেন দেখুন! (উর্দূ থেকে বাংলা অনুবাদ), ((یہ بات روز روشن کی طرح ظاہر ہوتی جاتی ہے کہ فی الواقع گورنمنٹ برطانیہ ایک ڈھال ہے جس کے نیچے احمدی جماعت اگے ہی اگے بڑھتی جاتی ہے۔ اس دهال کو ایک طرف کر دو اور دیکھو زہریلے تیروں کی کیسی خطرناک بارش تمہارے سروں پر ہوتی ہے۔ ہمارے مخالف اس بات کی انتظار میں رہتے ہے کہ ذرا ان کو موقع ملے۔ اور وہ زمین سے ہمارے جوڑ اکھاڑ کر پھینک دے لیکن جس درختوں کو خدا لگائے اسے کون اکھاڑ کر پھینک سکتا ہے اور جس باغ کا خدا مالی ہو اسی کون نقصان پہنچا سکتا ہے جب کبھی دشمن ہم پر حملہ آور ہوتا ہے۔ علاوہ اسمانی تائیدات کے۔ اللہ تعالی انسانوں میں سے بھی ایک محافظ ہمارے حفاظت کے لیے کھاڑا کر دیتا ہے اور وہ ہمیشہ ایک ہی ہوتا ہے یعنی گورنمنٹ برطانیہ پس کیوں ہم اس گورنمنٹ کے شکر گزار نہ ہوں۔ ہماری فوائد اس گورنمنٹ سے متحد ہوگے ہے اور اس گورنمنٹ کی تباہی ہمارے تباہی ہے اور اس گورنمنٹ کی ترقی ہمارے ترقی۔ جہاں جہاں اس گورنمنٹ کی حکومت پھیلتی جاتی ہیں ہمارے لیے تبلیغ کا ایک اور میدان نکلتا آتا ہے- پس کسی مخالفت کا اعتراض ہم کو اس گورنمنٹ کے وفاداری سے پھر نہیں سکتا۔))

“একথা দিবালকের মত পরিষ্কার যে, প্রকৃতপক্ষে ব্রিটিশ সরকার এমন একটি ঢাল, যার ছত্রছায়ায় ‘আহমদী জামাত’ নিরবচ্ছিন্নভাবে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে। এই ঢালটিকে এক পাশে রেখে দেখতে থাকো যে, বিষাক্ত তীরসমূহের কত ভয়ানক বৃষ্টিধারা তোমাদের মাথার উপর ধেয়ে আসছে। আমাদের বিরোধীরা এরই অপেক্ষমান, যেন একটু সুযোগ মিলে আর এই ভূপৃষ্ঠ থেকে আমাদের গোড়া থেকেই উচ্ছেদ করতে পারে। অধিকন্তু কার সাধ্য সেই বাগানের ক্ষতি করতে পারে যার মালিক খোদা! শত্রু আমাদের উপর যখন আক্রমণ করে তখন স্বর্গীয় সমর্থন ছাড়াও মহান আল্লাহ আমাদের সুরক্ষার জন্য মানুষের মধ্য থেকে একজন রক্ষাকারী দাঁড় করে দিয়ে থাকেন। সেটি সবসময় একই হয়ে থাকে অর্থাৎ ব্রিটিশ সরকার। এমতাবস্থায় আমরা এই সরকারের কৃতজ্ঞতা (শোকরগুজার) স্বীকার না করে কিভাবে থাকতে পারি!! এই সরকারের সাথেই আমাদের সমস্ত উপকারিতা একাকার হয়ে গেছে। এই সরকারের পতন আমাদেরই পতন, এই সরকারের উন্নতি আমাদেরই উন্নতি। এ সরকারের হুকুমত (আধিপত্য) যেখানে যেখানেই সম্প্রসারিত হতে যাচ্ছে আমাদের জন্য (সে সবখানে) তাবলীগের (সদস্য সংগ্রহের) একেকটি ময়দান সুগম (উন্মুক্ত) হচ্ছে। সুতরাং কোনো বিরুদ্ধবাদীর আপত্তি আমাদেরকে এ সরকারের অনুগত হওয়া থেকে বিচ্যুত করতে পারবেনা।” (দৈনিক আল ফজল, তারিখ-১৯/১০/১৯১৫ ইং, মির্যা কাদিয়ানীর পুত্র ও জামাতের দ্বিতীয় খলীফা মির্যা বশির উদ্দীন মাহমুদ-এর বক্তব্যের উদ্ধৃতাংশ)।

পরিশেষে আমি আর কোনো মন্তব্য করতে চাই না। শুধু এটুকু বলব, সাম্রাজ্যবাদী ব্রিটিশ সরকারের লেজুড়বৃত্তি হয়ে যাদের টিকে থাকার খাহেশ, তারা আর যাইহোক; অন্তত আত্মমর্যাদার অধিকারী কোনো গোষ্ঠী হতে পারেনা। এ গোষ্ঠীটি যে রাষ্ট্রেই শিকড় গাঁথতে সক্ষম হবে সে রাষ্ট্রের কপালে শনি থাকা-ই স্বাভাবিক। কারণ ব্রিটিশ সরকারের আনুগত্যই যাদের ধর্মের মূল শিক্ষা, তারা যে নিজ মাতৃভূমির বিরুদ্ধেও শত্রু দেশটির পক্ষে কোনো না কোনো সময় গুপ্তচরবৃত্তি করবেনা তা কিভাবে হয়! কাদিয়ানীরা সংখ্যায় পাকিস্তানে অনেক বেশি হওয়ায় আজ সেখানকার রাজনৈতিক অবস্থা দুনিয়ার সামনে পরিষ্কার। দেশটির অর্থনীতি খাত পুরোই বিপর্যস্ত। আত্মঘাতী বোমা হামলা নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা। একজন পাগলও বুঝতে পারে যে, এর সবই বিদেশীদের ষড়যন্ত্র ছাড়া কিছুই না। আল্লাহ আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি সোনার বাংলাদেশকে রক্ষা করুন। আমীন।

লিখক শিক্ষাবিদ ও গবেষক

ঈসা (আ.)-এর রাফা (উঠিয়ে নেয়া) কোথায় হয়েছিল?

হযরত ঈসা (আ.)-এর রাফা (بل رفعه الله اليه) কোথায় হয়েছিল…….? বিশুদ্ধ হাদীসের আলোকে সংক্ষিপ্ত উত্তর নিম্নরূপ, .

উত্তর : আল্লাহ ঈসা (আ.)-কে সশরীরে আকাশে উঠিয়ে নিয়েছিলেন অত:পর…..! রেফারেন্স দেখুন-

1 আবু আব্দুল্লাহ মুহাম্মদ ইবনে সা’আদ (মৃত. ২৩০ হিজরী)-এর ১১ খণ্ডে সংকলিত প্রাচীনতম হাদীসগ্রন্থ ‘আত-তবকাতুল কোবরা’ খ-১ পৃ-৩৫-৩৬ (رَفَعَهُ بِبَدَنِهِ); অর্থ- তিনি তাঁকে সশরীরে উঠিয়ে নেন। – সহীহ

2 শায়খ আহমদ আব্দুর রহমান আলবান্না (১৮৮২-১৯৫৮)-এর ২৪ খণ্ডে সংকলিত ‘আল ফাতহুর রব্বানী লি তারতীবে মুসনাদে ইমাম আহমদ ইবনে হাম্বল আশ-শায়বানী’ খ-২০ পৃ-১৪১ দ্রষ্টব্য (لَمَّا اَرَادَ اللهُ اَنْ يَّرْفَعَ عِيْسَي اِلَى السَّمَاءِ); অর্থ-আল্লাহ ঈসাকে যখন আকাশে উঠিয়ে নিতে চাইলেন…। – সহীহ মুসলিম এর শর্তে সহীহ

3 ইমাম আবুবকর আহমদ আল-বাজ্জারের ১৮ খণ্ডে সংকলিত ‘মুসনাদে বাজ্জার’ হাদীস নং ৯৬৪২ (يَنْزِلُ عِيْسَى بْنُ مَرْيَمَ مِنَ السَّمَاءِ); অর্থ-ঈসা ইবনে মরিয়ম আকাশ থেকে নাযিল হবেন। – সহীহ

4 ইমাম নূরুদ্দীন আল-হাইসামীর ১২ খণ্ডে সংকলিত ‘মাজমাউয যাওয়ায়েদ’ খ-৭ পৃ-৩৪৯ (يَنْزِلُ عِيْسَى بْنُ مَرْيَمَ مِنَ السَّمَاءِ); অর্থ-ঈসা ইবনে মরিয়ম আকাশ থেকে নাযিল হবেন। – সহীহ

5 ইমাম বায়হাক্বীর ২ খণ্ডে সংকলিত ‘আল আসমা ওয়াস সিফাত’ খ-১ পৃ-৩৩১, হাদীস নং ৮৯৫ (مِنَ السَّمَاءِ); অর্থ- আকাশ থেকে….। – সহীহ

  • উল্লেখ্য, এ বর্ণনায় من السماء অংশটুকু সিকাহ রাবীর নিজেস্ব বৃদ্ধি, যা গ্রহণযোগ্য। সনদে বুখারীর রাবীগণ ছাড়াও ইমাম বায়হাক্বীর সনদে অতিরিক্ত ৩ জন রাবী রয়েছেন, যারা প্রত্যেকে সিকাহ।

6 সহীহ মুসলিম হাদীস নং ২৮৯৬ ঈসা ইবনে মরিয়ম এসে হজ্জ করবেন (وَالَّذِىْ نَفْسِىْ بِيَدِهِ لَيُهِلَّنَّ اِبْنُ مَرْيَمَ بِفَجِّ الرَّوْحَاءِ حَاجًّا اَوْ مُعْتَمِرًا اَوْ لَيَثْنِيَنَّهُمَا); অর্থ- সেই সত্তার শপথ যাঁর হাতে আমার প্রাণ, ইবনে মরিয়ম রাওহা উপত্যকা হতে হজ্জ অথবা উমরা কিংবা উভয়টির জন্য তালবিয়াহ পাঠ করবেন। – সহীহ

7 ইমাম আলী আল মুত্তাকি আলহিন্দী-এর ১৮ খণ্ডে সংকলিত ‘কাঞ্জুল উম্মাল’ খ-১৪ পৃ-৬১৯ (مِنَ السَّمَاءِ); অর্থ- আকাশ থেকে….। – সহীহ

8 সহীহ মুসলিমের সূত্রে মির্যায়ী রচনাসমগ্র ‘রূহানী খাযায়েন’ খ-৩ পৃ-১৪২ (صحیح مسلم کی حدیث میں جو یہ لفظ موجود ہے کہ حضرت مسیح جب آسمان سے اتریں گے)؛ অর্থ- মুসলিম শরীফের হাদীসে এমন শব্দ বিদ্যমান আছে যে, হযরত মসীহ যখন আকাশ থেকে নাযিল হবেন….! মালফুযাত খ-৫ পৃ-৩৩ (آپ نے فرمایا تھا کہ مسیح آسمان پر سے جب اترےگا)। অর্থ- রাসূল (সা.) ফরমায়ে ছিলেন যে, মসীহ আকাশ থেকে যখন নাযিল হবে…! সংক্ষেপে।

প্রামাণ্য স্ক্যানকপি সহ দেখতে এখানে ক্লিক করুন

লিখক – প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী
শিক্ষাবিদ ও গবেষক

রদ্দে কাদিয়ানী অ্যাপ-App ডাউনলোড করুন

রদ্দে কাদিয়ানী App ডাউনলোড লিংক Click : https://play.google.com/store/apps/details?id=com.mominul.radd_e_qadyyani

QR কোডটিও ব্যবহার করতে পারেন

QR Code
অ্যাপের আইকন

এগুলো কাদিয়ানীদের ধর্মবিশ্বাস-3

এগুলো-ও কাদিয়ানীদের ধর্মবিশ্বাস

তাদেরই অথেনটিক বইপুস্তক ও পত্র পত্রিকা থেকে

২৪ হযরত ঈসা আলাইহিসসালাম ‘লূদ’ নামক ফটকে দাজ্জালকে হত্যা করবেন বলে হাদীসে যে ভবিষ্যৎবাণী রয়েছে, সেই ‘লূদ’ হতে পাকিস্তানের ‘লুধিয়ানা’ শহর উদ্দেশ্য[24]

২৫ খ্রিস্টান পাদ্রীরাই প্রতিশ্রুত সেই দাজ্জাল[25]

২৬ ইয়াজুজ-মাজুজ হচ্ছে রাশিয়া ও বৃটেনের খ্রিস্টানজাতি[26]

২৭ ইমাম হোসাইন রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু’র শাহাদাত বরণের চাইতে আব্দুল লতিফ সাহেবের শাহাদাত বরণ অধিকতর মর্যাদাপূর্ণ, (কেননা) সে সততা, আনুগত্যের সর্বোচ্চ দৃষ্টান্ত প্রদর্শন করেছে যার দরুন সে অতিব দৃঢ়তর প্রতিযোগিতায় অগ্রে পৌঁছে গেছে[27]

উল্লেখ্য, আফগানিস্তানে ১৮৯২ সালে মুরতাদের শাস্তি হিসেবে মির্যা কাদিয়ানীর মুরিদ আব্দুল লতিফকে সরকার মৃত্যুদণ্ড প্রদান করে।

২৮ মির্যা কাদিয়ানী মুসলমানদের জন্য ‘ইমাম মাহদী’ আর খ্রিস্টানদের জন্য ঈসা (মসীহ) হিসেবে আবির্ভূত হন[28]

২৯ মির্যা কাদিয়ানী বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমার পক্ষে সাক্ষ্য প্রদান করেছেন[29]

৩০ মির্যা কাদিয়ানী পরিষ্কার লিখেছে, তাকে অমান্য করার মানেই হচ্ছে হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে অমান্য করা[30]

তথ্যসূত্রঃ
[24] রূহানী খাযায়েন ১৮:৩৪১।
[25] হামামাতুল বুশরা পৃ-৩৩, রূহানী খাযায়েন ২২:৪৫৬।
[26] হামামাতুল বুশরা পৃ-৩৮ বাংলা অনূদিত, চলমান টিকা দ্রষ্টব্য।
[27] মালফুযাত ৪:৩৬৪, মির্যা কাদিয়ানী।
[28] তিনিই আমাদের কৃষ্ণ পৃ-২, বাংলা অনূদিত, মির্যাপুত্র মির্যা বশির উদ্দীন।
[29] ইসলামে প্রতিশ্রুত মসীহ ও মাহদীর দাবীসমূহ পৃ-১৪। একই বইয়ের ১৬ নং পৃষ্ঠায় লিখা আছে যে, বৌদ্ধদের প্রতিশ্রুত ‘মৈত্তেয়’ আর জরথুস্ত্রের প্রতিশ্রুত ‘মেসিওদরবাহমী’ এর ভবিষ্যৎবাণী হতে মির্যা কাদিয়ানীই উদ্দেশ্য।
[30] হাকীকাতুল ওহী পৃষ্ঠা ১৭, বাংলা অনূদিত।

ছবিঃ ফুটফুটে সুন্দর মানুষটি কাদিয়ানীদের বর্তমান খলীফা মির্যা কাদিয়ানীর প্রপৌত্র মির্যা মাসরূর আহমদ।

Mirza Masrur Ahmed (Present Qadiani 5th Kholifa in Uk) Picture 2003

পড়ুন পর্ব ১ ক্লিক

লিখক, শিক্ষাবিদ ও গবেষক

প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী

আহলে কিতাবীদের মাঝে কেয়ামত পর্যন্ত শত্রুতা সঞ্চারিত থাকা

আহলে কিতাবীদের মাঝে কেয়ামত পর্যন্ত শত্রুতা সঞ্চারিত থাকা ও একটি প্রশ্নের উত্তর

এধরণের প্রশ্ন সাধারণত কাদিয়ানীরাই উত্থাপন করে থাকে। তাদের এ ধরনের প্রশ্নের অন্তরালে একটা মতলব থাকে। সেটি হচ্ছে, কেয়ামতের পূর্বমুহূর্তে ও শেষ যুগে আগমনকারী ঈসা (আ.)-এর মৃত্যুর আগে আগেই সমস্ত আহলে কিতাবী মুসলমান হয়ে যাওয়া’র বিষয়টিকে কুযুক্তির আড়ালে অস্বীকার করতে চাওয়া। যেহেতু সূরা নিসা আয়াত নং ১৫৯ বলছে, ঈসা (আ.)-এর মৃত্যুর আগে আগেই তারা প্রত্যেকে ঈমান গ্রহণ করবে। এখন পবিত্র কুরআনের এ ভবিষ্যৎবাণী সরাসরি অস্বীকার করার সাধ্য কার? মূলত এ জন্যই ওরা কুযুক্তির আশ্রয় নেয় এবং উল্লিখিত শিক্ষার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে থাকে।

কিন্তু প্রশ্ন হল, তাদের এ ধরনের মতলবসিদ্ধ বিশ্বাস ধারণ ও অনুরূপ কুযুক্তির পেছনে দৌড়ানোর কারণ কী?

উত্তর হচ্ছে, মির্যা কাদিয়ানী (জন্ম-মৃত্যু ১৮৩৯-১৯০৮ইং) কুরআন ও হাদীসের আলোকে নিজেকে প্রতিশ্রুত মসীহ তথা হযরত ঈসা (আ.) বলে দাবী করেছে আর কাদিয়ানী তথা কথিত আহমদীয়া সম্প্রদায় তাকে সেভাবেই মেনে আসছে। কাজেই এখন সহজেই প্রশ্ন উঠবে, মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী নিজ দাবীতে যদি সত্যিকারের সেই মসীহ তথা ইবনে মরিয়ম হন তাহলে তো পবিত্র কুরআনের (৪:১৫৯/নিসা) উল্লিখিত শিক্ষা অনুসারে বর্তমান দুনিয়ায় আর কোনো আহলে কিতাবী (ইহুদী খ্রিস্টান) না থাকারই কথা, সকলে ঈমান গ্রহণ করে মুসলমান হয়ে যাওয়ারই কথা! কাদিয়ানী সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ এ সমস্ত যৌক্তিক যে কোনো প্রশ্নের সম্মুখে সম্পূর্ণ কোনঠাসা। এমতাবস্থায় তাদের জন্য আয়াতটির উল্লিখিত শিক্ষায় অপব্যাখ্যার আশ্রয় নেয়া ছাড়া দ্বিতীয় কোনো উপায় থাকেনা। মজার ব্যাপার হল, তাদের ন্যায় অনুরূপ কোনো ব্যাখ্যা ইসলামের বিগত চৌদ্দশত বছরেও নির্ভরযোগ্য কোনো সোর্স দ্বারা প্রমাণিত নয়।

তাদের সেই কুযুক্তি ও অপব্যাখ্যাটা কী?

তাদের সেই কুযুক্তি ও অপব্যাখ্যাটি হচ্ছে এ রকম, তারা যুক্তি দেয় যে, হযরত মসীহ তথা ঈসা ইবনে মরিয়ম (আ:)-এর যুগে এবং তাঁরই মৃত্যুর আগে সমস্ত আহলে কিতাবী (ইহুদ-খ্রিস্টান) মুমিন হয়ে গেলে তখন পবিত্র কুরআনের (০৫:৬৪/মায়েদা) আয়াত অনুসারে আহলে কিতাবীদের মাঝে إِلَى يَوْمِ الْقِيَامَةِ তথা ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ শত্রুতা সঞ্চারিত থাকে কিভাবে? সুতরাং বুঝা গেল, ঈসা (আ.)-এর মৃত্যুর আগে আগেই সমস্ত আহলে কিতাবী ঈমান গ্রহণের শিক্ষাটি একটি রূপক, বাস্তব নয়। (এ ছিল তাদের কুযুক্তি ও কুরআন বিরোধী চরম ধৃষ্টতাপূর্ণ ধর্মবিশ্বাস)।

  • আল্লাহতালা ইরশাদ করেছেন : وَإِن مِّنۡ أَهۡلِ ٱلۡكِتَٰبِ إِلَّا لَيُؤۡمِنَنَّ بِهِۦ قَبۡلَ مَوۡتِهِۦۖ وَيَوۡمَ ٱلۡقِيَٰمَةِ يَكُونُ عَلَيۡهِمۡ شَهِيدٗا 

অনুবাদঃ কিতাবীদের যত দল আছে তারা অবশ্যই ঈসার প্রতি তাঁর মৃত্যুর পূর্বে ঈমান আনবে। আর কেয়ামতের দিন তিনি ওদের বিরুদ্ধে সাক্ষী হবেন (অর্থাৎ তিনি ওদের অবস্থা ও আমল প্রকাশ করে বলবেন যে, ইহুদীরা আমাকে মিথ্যাবাদী বলেছিল আর খ্রিস্টানরা আমাকে আল্লাহর পুত্র বলেছিল)। (তাফসীরে উসমানী, আল্লামা জাস্টিস মুফতি তকি উসমানী হতে অনুবাদ চয়িত)। (সূরা নিসা ১৫৯)।

  • আল্লাহতালা ইরশাদ করেছেন : وَقَالَتِ ٱلۡيَهُودُ يَدُ ٱللَّهِ مَغۡلُولَةٌۚ غُلَّتۡ أَيۡدِيهِمۡ وَلُعِنُواْ بِمَا قَالُواْۘ بَلۡ يَدَاهُ مَبۡسُوطَتَانِ يُنفِقُ كَيۡفَ يَشَآءُۚ وَلَيَزِيدَنَّ كَثِيرٗا مِّنۡهُم مَّآ أُنزِلَ إِلَيۡكَ مِن رَّبِّكَ طُغۡيَٰنٗا وَكُفۡرٗاۚ وَأَلۡقَيۡنَا بَيۡنَهُمُ ٱلۡعَدَٰوَةَ وَٱلۡبَغۡضَآءَ إِلَىٰ يَوۡمِ ٱلۡقِيَٰمَةِۚ كُلَّمَآ أَوۡقَدُواْ نَارٗا لِّلۡحَرۡبِ أَطۡفَأَهَا ٱللَّهُۚ وَيَسۡعَوۡنَ فِي ٱلۡأَرۡضِ فَسَادٗاۚ وَٱللَّهُ لَا يُحِبُّ ٱلۡمُفۡسِدِينَ

অনুবাদঃ ইহুদীরা বলে আল্লাহর হাত রুদ্ধ। ওদেরই হাত রুদ্ধ হয়ে যাক এবং ওরা যা বলেছে তার কারণে ওদের প্রতি লা’নত বর্ষিত হোক। বরং আল্লাহর উভয় হাত প্রসারিত, তিনি যেভাবে ইচ্ছে ব্যয় করেন। আর আপনার রবের পক্ষ থেকে আপনার প্রতি যা অবতীর্ণ করা হয়েছে নিশ্চয়ই তা অনেকের অবাধ্যতা ও কুফুর বাড়িয়ে দেবে এবং আমি কেয়ামত দিবস পর্যন্ত ওদের মাঝে শত্রুতা ও বিদ্বেষ সঞ্চার করে দিয়েছি। যখনি তারা যুদ্ধের আগুন প্রজ্বলিত করে আল্লাহ তা নিবিয়ে দেন। আর ওরা যমীনে ফাসাদ করার উদ্দেশ্যে দৌড়ঝাঁপ করে। অথচ আল্লাহ ফাসাদকারীদের পছন্দ করেন না। (তাফসীরে উসমানী, আল্লামা জাস্টিস মুফতি তকি উসমানী হতে অনুবাদ চয়িত)। (সূরা মায়েদা ৬৪)।

যাইহোক, এখন কাদিয়ানীদের উল্লিখিত কুযুক্তির উত্তর দেয়া হবে। তাদের প্রশ্নের উত্তর হচ্ছে, পবিত্র কুরআনের ০৫:৬৪ আয়াত অনুসারে ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ বলে মূলত ‘সুদীর্ঘকাল পর্যন্ত’ সময়ের বিশালতাকেই বুঝানো উদ্দেশ্য। যেহেতু সময়ের বিশালতাকে বুঝাতে ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ কথাটি একধরণের বাগধারা ও একটি বালাগাত তথা অলংকারপূর্ণ বাণী। যেমন, সাজেদ তার পরম বন্ধু মাজেদকে বলল, তুই ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ চেষ্টা করলেও চেয়ারম্যান নির্বাচনে জয়ী হতে পারবিনা।

খেয়াল করুন, ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ বলতে সাজেদ মোটেও এটা বুঝাতে চায়নি যে, সে প্রকৃতপক্ষে কেয়ামতের শিঙ্গাফুঁক দেয়া পর্যন্ত বেঁচে থাকবে! কারণ বাগধারাকে সাধারণ অর্থে বিচার করা যায়না।

এবার আরেকটু খোলাসা করছি! হাদীসে আসছে, বিশিষ্ট সাহাবী হযরত জাবির ইবনু আব্দিল্লাহ (রা.) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, ((لاَ تَزَالُ طَائِفَةٌ مِنْ أُمَّتِي يُقَاتِلُونَ عَلَى الْحَقِّ ظَاهِرِينَ إِلَى يَوْمِ الْقِيَامَةِ)) অর্থাৎ আমার উম্মতের একটি জামাত সর্বদাই সত্যের স্বপক্ষে ক্বিতাল করে কিয়ামত পর্যন্ত বিজয় হতে থাকবে। (সহীহ মুসলিম ৪৮০১ ইফা)। এখানেও ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ শব্দ চয়িত হয়েছে। পক্ষান্তরে অপর আরেকটি হাদীসের শেষাংশে উল্লেখ আছে যে, যখন ঈসা (আ.) দ্বিতীয়বার আসবেন তখন ((و تَضَع الْحَرْبُ أَوْزَارَهَا)) অর্থাৎ যুদ্ধ আপনা সমস্ত সমরাস্ত্র গুটিয়ে নেবে (মুসনাদে আহমদ হা/৯১১৭)। এবার তাহলে ক্বিতাল (সশস্ত্র ধর্মযুদ্ধ) ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ চলবে, এর কী অর্থ দাঁড়াল? যে ক্বিতাল কেয়ামত পর্যন্ত অবিরাম চলতে থাকবে বলা হল, সেই ক্বিতাল হযরত ঈসা (আ:)-এর যুগে কোনো কাফের বাহিনী না থাকায় আপনা-আপনি বন্ধ হয়ে যাবে; এইরূপ উল্লেখ থাকাটাই কি প্রমাণ করে না যে ‘কেয়ামত পর্যন্ত’ বলে মূলত ‘সুদীর্ঘকাল পর্যন্ত’ সময়ের বিশালতাই উদ্দেশ্য!

শেষকথাঃ পবিত্র কুরআন আর অসংখ্য সহীহ হাদীসের বিরুদ্ধে গিয়ে কারো জন্য এমন কোনো যুক্তি দাঁড় করা ঠিক হবেনা যা ইজমায়ে উম্মতের সুপ্রতিষ্ঠিত ও তাওয়াতূর পর্যায়ের আকীদার পরিপন্থী। আসল কথা হল, যারা কুরআনকে নিজের মনগড়া যুক্তি দিয়ে বুঝতে চায় তারাই পথভ্রষ্ট হয়। কেননা কুরআনের সর্বশ্রেষ্ঠ শিক্ষক ছিলেন হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম। তিনি তাঁর সাহাবীদেরকে কুরআন যেভাবে শিক্ষা দিয়ে গেছেন, তারপর সাহাবীরা পরবর্তী প্রজন্মকে তথা তাবেয়ীদের যা শিক্ষা দিয়ে গেছেন, অনুরূপ তাবেয়ীগণ তাদের পরবর্তী প্রজন্মকে তথা তাবে-তাবেয়ীগণকে যা শিক্ষা দিয়ে গেছেন সেসব শিক্ষা-দীক্ষাকে বিশুদ্ধ সনদ ও ধারাবাহিক বর্ণনাসূত্রে নির্ভরযোগ্য তাফসীরকারকগণ স্ব স্ব তাফসীর গ্রন্থে লিপিবদ্ধ করে গেছেন। কাজেই বর্তমানে কোনো ব্যক্তি কিংবা গোষ্ঠীর এমন কোনো ব্যাখ্যা বা শিক্ষা গ্রহণযোগ্য হবেনা যেটির কোনো সনদ নেই কিংবা নির্ভরযোগ্য তাফসীর হতে বিশুদ্ধসূত্রে প্রমাণিত নয়। কাদিয়ানী সহ তাবৎ পথভ্রষ্ট গোষ্ঠীর সমুদয় ধর্মমত ও শিক্ষা-দীক্ষা মূলত এ সমস্ত কারণেই বাতিল ও প্রত্যাখ্যাত।

লিখক, শিক্ষাবিদ ও গবেষক

প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী

এগুলো কাদিয়ানীদের ধর্মবিশ্বাস-2

এগুলো-ও কাদিয়ানীদের ধর্মবিশ্বাস

তাদেরই অথেনটিক বইপুস্তক ও পত্র-পত্রিকা থেকে নেয়া

১৩ কাদিয়ানী রচনাবলীতে উল্লেখ আছে, আল্লাহতালার নাম ‘ইয়াল্লাস’[13]

১৪ আমাদের জলসাও হজ্জের মতো…হজ্জের মাধ্যমে যে উপকারীতা উদ্দেশ্য সেটি সালানা জলসায়
এসেও লাভ করতে পারে[14]

১৫ হযরত আদম আলাইহিসসালাম প্রথম মানব ছিলেন না[15]

১৬ কোনো কাফের মুশরিকও চিরকাল জাহান্নামে থাকবেনা[16]

১৭ হযরত মূসা আলাইহিসসালাম জীবিত এবং সশরীরে আকাশে রয়েছেন, তিনি এখনো মৃত্যুবরণ করেননি[17]

১৮ মসীহ (ঈসা) দেশ হইতে গোপনে পলায়ন করিয়া কাশ্মীরের দিকে চলিয়া গেলেন এবং সেখানেই মৃত্যুবরণ করেন[18]

১৯ ঈসা আলাইহিসসালাম সম্পর্কে জীবিত থাকার বিশ্বাস সুস্পষ্ট শিরক[19]

২০ মির্যা কাদিয়ানীর নিকট হযরত জিবরাঈল আলাইহিসসালামও ওহী নিয়ে আসতেন[20]

২১ মির্যা কাদিয়ানীর নিকট আরো যারা ওহী নিয়ে আসতেন তাদের একজনের নাম ছিল ‘টিচি-টিচি’[21]

২২ শেষযুগে আগমনকারী যে ইমাম মাহদীর সংবাদ হাদীসসমূহে এসেছে তিনি আর প্রতিশ্রুত ঈসা আলাইহিসসালাম দুইজন একই ব্যক্তি[22]

২৩ পবিত্র কুরআনে যে মসীহ মওউদের আগমন করার কথা রয়েছে তা হতে মির্যা কাদিয়ানীই উদ্দেশ্য[23]

তথ্যসূত্রঃ
[13] রূহানী খাযায়েন ১৭:২০৩ উর্দূ, আরও কিছু নাম উল্লেখ পাওয়া যায়, যেমন- কালা এবং কালূ। দেখুন যিকরে হাবীব পৃ-১৮১ (নতুন এডিশন), লিখক মির্যায়ী ঘনিষ্ঠ সহচর মুহাম্মদ সাদিক।
[14] খুতুবাতে মাহমুদ ৪:২৫৪, তাং ২৫-১২-১৯১৪ খ্রিস্টবর্ষ।
[15] মালফুযাত ৫:৬৭৫, উর্দূ।
[16] আহমদীয়তের পয়গাম পৃ-১২ দশম সংস্করণ মে ২০০৬ইং।
[17] রূহানী খাযায়েন ৮:৬৮-৬৯।
[18] কিশতিয়ে নূহ পৃ-৭২ বাংলায় অনূদিত, মির্যা কাদিয়ানী।
[19] রূহানী খাযায়েন ২২:৬৬০।
[20] রূহানী খাযায়েন ২২:১০৬, টিকা দ্রষ্টব্য।
[21] রূহানী খাযায়েন ২২:৩৪৬, আরও কয়েকজনের নাম উল্লেখ পাওয়া যায়, যেমন- ‘মিঠোন লাল’ (তাযকিরাহ পৃ-৫৭৩-৭৪ চতুর্থ এডিশন), ‘শের আলী’ এবং ‘খয়রাতি’ (রূহানী খাযায়েন ১৫:৩৫১-৫২), ‘আইল’ (তাযকিরাহ পৃ-৩৬৯), ‘হাফিয’ (তাযকিরাহ পৃ-৬৪৩), ২০ বছর বয়সী ইংরেজ টগবগে যুবকের আকৃতিতে দেখতে ‘দরুশনি’ (মালফুযাত ৪:৬৯)।
[22] হামামাতুল বুশরা পৃ-৩২, বাংলা অনূদিত।
[23] রূহানী খাযায়েন ৩:৪৬৮, মির্যা কাদিয়ানীর ৮৩টি বইয়ের রচনাসমগ্র, রিপ্রিন্ট ২০০৮ ইং।

উল্লিখিত কোনো একটি তথ্য-ও কোনো কাদিয়ানী মিথ্যা প্রমাণ করতে পারলে তাকে নগদ দশ লক্ষ টাকা পুরষ্কৃত করা হবে।

ছবিঃ ফুটফুটে সুন্দর মানুষটি মির্যা কাদিয়ানীর প্রপৌত্র ও কাদিয়ানীদের বর্তমান গদ্দিনিসীন (খলীফা) মির্যা মাসরূর আহমদ (২০০৩ সালে তোলা)।

Mirza Masrur Ahmed Picture 2003

পড়ুন পর্ব ১ ক্লিক

পড়ুন পর্ব ৩ ক্লিক

লিখক, শিক্ষাবিদ ও গবেষক
প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী

এগুলো কাদিয়ানীদের ধর্মবিশ্বাস-1

এগুলো কাদিয়ানীদের ধর্মবিশ্বাস

তাদেরই অথেনটিক বইপুস্তক ও পত্র পত্রিকা থেকে

১ মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ অর্থে গোলাম আহমদ কাদিয়ানীও অন্তর্ভুক্ত[1]

২ মির্যা কাদিয়ানী-ই ‘মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম’ এবং তিনি প্রকৃতপক্ষেই ‘মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম’[2]

৩ মির্যা কাদিয়ানীর যুগের পর থেকে কেয়ামতের আর মাত্র এক হাজার বছর বাকি। আর এ এক হাজার বছর মির্যা কাদিয়ানীর জন্য নির্ধারিত (অর্থাৎ এ পুরো সময়টিতে মির্যা কাদিয়ানীর নবুওয়ত মেনে নেয়া ছাড়া কারো মুক্তি নেই)[3]

৪ হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর যুগে মিডিয়া না থাকার দরুন তাঁর দ্বারা দ্বীন প্রচারের কাজ পরিপূর্ণ হয়নি, মির্যা কাদিয়ানী এসে সেসব অপরিপূর্ণ কাজকে সম্পূর্ণ করেছেন[4]। নাউযুবিল্লাহ।

৫ কাশফ অবস্থায় মির্যা কাদিয়ানী নারীরূপ ধারণ করে আর আল্লাহ পুরুষের রূপে এসে তার সাথে সহবাস করে[5]। নাউযুবিল্লাহ।

৬ হ্যাঁ, আমি কেবল নবী নহি, এক দিক হইতে নবী এবং আরেক দিক হইতে উম্মতি[6]

৭ ‘বেহেশতি মাক্ববেরায় যারা দাফন হবেন তারা নিশ্চিত বেহেশতি’[7]

৮ পবিত্র কুরআনে কাদিয়ানের নাম উল্লেখ রয়েছে[8]

৯ পবিত্র কুরআনে উল্লিখিত ‘মসজিদে আকসা’ হতে কাদিয়ানে মির্যা কাদিয়ানীর নির্মিত ‘মসজিদ’ উদ্দেশ্য[9]

১০ পবিত্র কুরআনে ‘ইবনে মরিয়ম’ বলে মির্যা কাদিয়ানীর নাম রাখা হয়েছে[10]

১১ ‘যে ব্যক্তিই মির্যা কাদিয়ানীর দলে প্রবেশ করেছে, সে প্রকৃপক্ষে মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের সাহাবায়ে কেরামের মধ্যেই দাখিল হয়ে গেছে[11]।’ নাউযুবিল্লাহ।

১২ আমাদের জন্য ফরজ হল, আমরা যেন গয়ের আহমদীদের ‘মুসলমান’ মনে না করি, তাদের পেছনে নামায না পড়ি। কেননা তারা আমাদের দৃষ্টিতে খোদাতালার একজন নবীকে অস্বীকারকারী[12]ডাউনলোড ফাইল

তথ্যসূত্রঃ
[1] কালিমাতুল ফসল, ষষ্ঠ অধ্যায় পৃ- ৬৮।
[2] দৈনিক আল ফজল, তাং ২৮/১০/১৯১৫ ইং, কাদিয়ানীদের উর্দূ পত্রিকা।
[3] ইসলাম ও এদেশে অন্যান্য ধর্মমত পৃ-৪২ ও ৪৯, দ্বিতীয় বাংলা সংস্করণ ১০ আগস্ট ২০১২ খ্রি.।
[4] রূহানী খাযায়েন ১৭:২৬৩।
[5] ইসলামি কুরবানী ট্রাক্ট নং ৩৪ পৃ-১২ উর্দূ।
[6] উম্মতিনবী পৃ-৯, হাকীকাতুল ওহী (বাংলা) পৃ-১২৩।
[7] মালফুযাত ২:৫২৬-২৭ উর্দু, চতুর্থ এডিশন।
[8] রূহানী খাযায়েন ৩:১৪০।
[9] রূহানী খাযায়েন ১৬:২১।
[10] রূহানী খাযায়েন ১৯:৯৮।
[11] খুতবাতুল ইলহামিয়্যাহ পৃ-১৭১, রূহানী খাযায়েন ১৬:২৫৮।
[12] আনওয়ারে খিলাফত পৃ-৯৩, মির্যা বশির উদ্দীনের রচনাসমগ্র ‘আনওয়ারুল উলূম’ ৩:১৪৮ উর্দূ অনলাইন এডিশন, কাদিয়ানী দ্বিতীয় খলীফা।

প্রামাণ্য ও সংযুক্ত স্ক্রিনশট

01
02
03
04
05
06
06
07
08
09
10
11
12

ছবিঃ ফুটফুটে চেহারার এ মানুষটি কাদিয়ানীদের বর্তমান (পঞ্চম) খলীফা মির্যা মাসরূর আহমেদ।

Mirza Masrur Ahmed (Present Qadiani 5th Kholifa in Uk) Picture 2003

ফেজবুক থেকে পড়ুন

পড়ুন পর্ব ২ ক্লিক

লিখক ও গবেষক প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী

সূরা আ’রাফ ৩৫ ও সংশ্লিষ্ট শানে নুযূল

ভবিষ্যতে কি আরও অসংখ্য নবী রাসূল আগমন করার দলীল পবিত্র কুরআনে রয়েছে? অপব্যাখ্যা ও বিভ্রান্তি নিরসন,

.

আল্লাহতালা ইরশাদ করেনঃ ((يَا بَنِي آدَمَ إِمَّا يَأْتِيَنَّكُمْ رُسُلٌ مِّنكُمْ يَقُصُّونَ عَلَيْكُمْ آيَاتِي ۙ فَمَنِ اتَّقَىٰ وَأَصْلَحَ فَلَا خَوْفٌ عَلَيْهِمْ وَلَا هُمْ يَحْزَنُونَ)) অর্থ- ‘হে বনী আদম! যদি তোমাদের নিকট তোমাদের মধ্য থেকে রাসূলগণ (বার্তাবাহকগণ) আগমন করেন, তোমাদেরকে আমার আয়াতসমূহ শুনায়, তাহলে যে ব্যক্তি সংযত হয় এবং সৎকাজ করে; তাদের কোনো ভয় নেই এবং তারা দুঃখিত হবেনা।’ (সূরা আল আ’রাফ আয়াত ৩৫)।

ইমাম জালালুদ্দিন আস সুয়ূতি (রহ.) (মৃত. ৯১১ হিজরী) আয়াতটির প্রেক্ষাপট উল্লেখ করে লিখেছেন –

আবী সাইয়ার আস-সুলামি (أبي سيّار السُّلَمي) থেকে বর্ণিত, আল্লাহ রাব্বুল ইজ্জত সাইয়েদানা হযরত আদম এবং তাঁর সন্তানদেরকে হাতের মুষ্টিতে রেখে ইরশাদ করেছিলেন ((یٰبَنِیۡۤ اٰدَمَ اِمَّا یَاۡتِیَنَّکُمۡ رُسُلٌ مِّنۡکُمۡ یَقُصُّوۡنَ عَلَیۡکُمۡ اٰیٰتِیۡ ۙ فَمَنِ اتَّقٰی وَ اَصۡلَحَ فَلَا خَوۡفٌ عَلَیۡہِمۡ وَ لَا ہُمۡ یَحۡزَنُوۡنَ)) অর্থাৎ ‘হে বনী আদম! যদি তোমাদের নিকট তোমাদের মধ্য থেকে রাসূলগণ (বার্তাবাহকগণ) আগমন করেন…। তারপর তিনি রাসূলগণের প্রতি রহমতের দৃষ্টিতে তাকালেন এবং ইরশাদ করলেন “হে রাসূলগণ….”। (তাফসীরে দুররে মানসুর ৩:২৬২)।

এতে প্রমাণিত হল যে, আল্লাহর উক্ত সংবাদ একটি দূরবর্তী অতীত সংবাদ, যার ফলে অসংখ্য নবী রাসূল আগমনী ক্রমধারার সমাপ্তি ঘটেছে খাতামুন নাবিয়্যীন হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মাধ্যমে। বলাবাহুল্য যে, পবিত্র কুরআনের একটি অলংকার হচ্ছে, কুরআনের যেসব আয়াতে “ইয়া বনী আদম” অথবা “ইয়া আইয়ুহান নাস” উপবাক্যে আল্লাহ যখন কোনো ব্যাপারে সংবাদ দেন তখন সমগ্র মানবমণ্ডলীকেই সম্বোধন করে সংবাদ দেন। যেজন্য আয়াতটি ভবিষ্যতেও নতুন নতুন নবী রাসূল আগমনকরার বিষয়ে সংবাদ দিতে মনে করা অজ্ঞতা ও কুফুরীর শামিল।

একই তাফসীর বিশিষ্ট যুগ ইমাম মুহাম্মদ ইবনে জারীর আত-তাবারী (মৃত : ৩১০ হিজরী)ও সহীহ হাদীসের উদ্ধৃতি দিয়ে লিখে গেছেন। (দেখুন তাফসীরে তাবারী, সূরা আ’রাফ, হাদীস নং ১৪৫৫৪)। যেমন তিনি লিখেছেন, ((إن الله جعل آدم وذريته في كفّه فقال: (يا بني آدم إما يأتينكم رسل منكم يقصون عليكم آياتي فمن اتقى وأصلح فلا خوف عليهم ولا هم يحزنون)) অর্থাৎ নিশ্চয়ই আল্লাহ রাব্বুল আলামীন “হে আদম সন্তানেরা! যদি তোমাদের নিকট তোমাদের মধ্য থেকে রসূলগণ আগমন করে তোমাদেরকে আমার আয়াতসমূহ পাঠ করে শোনায়…” কথাটি রূহের জগতে হযরত আদম এবং তাঁর সন্তানদেরকে হাতের মুষ্টিতে রেখে বলেছিলেন।

তাফসীরে ইবনে কাসীর গ্রন্থে ইমাম ইমাদুদ্দীন ইবনে কাসীর (রহ.) আয়াতটির ব্যাখ্যায় এভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন যে ((ثم أنذر تعالى بني آدم بأنه سيبعث إليهم رسلا يقصون عليهم آياته)) অর্থাৎ অত:পর আল্লাহতালা বনী আদমকে (রূহের জগতে) সতর্ক করে বলেন, তিনি অচিরেই তাদের নিকট বহু রাসূল প্রেরণ করবেন, যারা তাদেরকে তাঁর আয়াতসমূহ পাঠ করে শুনাবেন।

উল্লিখিত দুই ইমামই কিন্তু কাদিয়ানীদের নিকট মান্যবর ও যুগ ইমাম হিসেবে স্বীকৃত। কেননা মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানীর শিষ্য মির্যা খোদাবক্স কাদিয়ানীর কিতাব ‘আছলে মুছাফফা‘ খ-১ পৃষ্ঠা নং ১৬২-৬৫ এর মধ্যে উপরের দুইজন ইমামকে “যুগ ইমাম ও মুজাদ্দিদ” বলে উল্লেখ করা হয়েছে। বলাবাহুল্য যে, কিতাবটি মির্যা কাদিয়ানীর জীবদ্দশায় লিখা হয় এবং তার মৃত্যুর প্রায় সাত বছর পূর্বেই প্রকাশ করা হয়। কিতাবটির ভুমিকায় পরিষ্কার লিখা আছে যে, কিতাবটির প্রতিটি কন্টেন্ট মির্যা কাদিয়ানীকে নিয়মিত দেখানো হত এবং তারই নির্দেশনায় লিখা সম্পন্ন করা হয়েছিল।

যুগ ইমাম সম্পর্কে মির্যা কাদিয়ানী সাহেবের সুস্পষ্ট বাণী হচ্ছে, ((مجدد کا منکر فاسق ہے)) মুজাদ্দিদগণের কথা অস্বীকারকারী ফাসেক। (রূহানী খাযায়েন ৬:৩৪৪)। কাজেই মির্যা সাহেবের মুরিদদের উচিত, অন্তত ফাসেক হওয়া থেকে বাঁচতে হলেও উপরের মুজাদ্দিদ দ্বয়ের পেশকৃত তাফসীর মেনে নেয়া এবং স্বীকার করা যে, আয়াতটি ভবিষ্যতে আরও অসংখ্য নবী রাসূল আগমণের কনসেপ্ট দিতে নয়, বরং রূহের জগতেই সমগ্র আদম সন্তানদের উদ্দেশ্যে ভবিষ্যতে নবী রাসূলগণের আগমনী কাহিনী জানান দেয়ার জন্য ছিল। আয়াতটির পূর্বাপর আয়াতগুলো পড়ে দেখলে আরও বেশি সুস্পষ্ট হওয়া যাবে। কারণ পূর্বাপর আয়াতগুলোয় হযরত আদম এবং আদি-মাতা হাওয়া তাঁদের দু’জনের সৃষ্টি অত:পর জান্নাতে অবস্থান করা ইত্যাদি বিষয়ে আলোচিত হয়।

  • এরপরেও যেসব কাদিয়ানী বিশ্বাস করবে যে, উল্লিখিত আয়াত হতে ভবিষ্যতে অসংখ্য নবী রাসূল আগমণের সংবাদ দেয়া হয়েছে, তাদের নিকট তখন নিচের প্রশ্নগুলোর কোনো জবাব থাকেনা।

১ এটি ভবিষ্যতে আরও অসংখ্য নবী রাসূল আগমন করার পক্ষের দলীল হয়ে থাকলে তা অবশ্যই মির্যা কাদিয়ানী সাহেব তার রচনার কোথাও না কোথাও অবশ্যই লিখে যেতেন। কিন্তু তার বইপুস্তক যতটুকু আমার পড়াশোনা তার আলোকে আমি চ্যালেঞ্জ দিতে পারি যে, সে ভবিষ্যতেও অসংখ্য নবী রাসূল আগমন করার দলীল হিসেবে কোথাও আয়াতটিকে উল্লেখ করে যায়নি। কেউ পারলে আমার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করুন!

২ মির্যা কাদিয়ানীর মতে, মুহাম্মদ (সা.)-এর পর সেই একমাত্র নবী। যেমন, তার বইতে লিখা আছে, “সহীহ হাদীস অনুযায়ী এই রূপ ব্যক্তি একজনই হইবেন এবং এই ভবিষৎবাণী পূর্ণ হইয়াছে।” (দেখুন রূহানী খাযায়েন ২২/৪০৬-৭, আরও দেখুন হাকীকাতুল ওহী পৃ-৩৩০, বাংলা)। একথা তার অন্য আরেক বইতে আরও পরিষ্কার করে উল্লেখ আছে। যেমন তিনি ‘তাযকেরাতুশ শাহাদাতাইন’ (বাংলা অনূদিত) বইয়ের ৮২ নং পৃষ্ঠায় লিখেছেন, মুহাম্মদী সিলসিলায় শেষে আগমনকারী এই অধম (অর্থাৎ মির্যা কাদিয়ানী)। এখন কী হবে? ভবিষ্যতেও অসংখ্য নবী রাসূল যদি আসতেই থাকে তাহলে মির্যা সাহেব নিজ দাবীমতে এ উম্মতে ‘সর্বশেষ’ আগমনকারী কিভাবে হন!?

৩ আয়াতটির খণ্ডিতাংশে আরও উল্লেখ আছে যে, یَقُصُّوۡنَ عَلَیۡکُمۡ اٰیٰتِیۡ অর্থাৎ তাঁরা (রাসূলগণ) তোমাদেরকে আমার আয়াত সমূহ পাঠ করে শুনাবে। এতে পরিষ্কার হয়ে গেল, আগমনকারী নবীগণ শরীয়তবাহক-ও হবেন এবং তাদের প্রত্যেকের স্বতন্ত্র উম্মতও থাকবে। নইলে “আয়াতসমূহ” পাঠ করে নিজ নিজ উম্মতদের শুনানোর কী মানে? শরীয়ত বিহীন নবীগণ আয়াতসমূহের অধিকারী হবেন কিভাবে?

উল্লেখ্য, ‘তাফসীরে বাগাভী’-তে লিখা আছে, হযরত ইবনে আব্বাস রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু (یَقُصُّوۡنَ عَلَیۡکُمۡ اٰیٰتِیۡ)-এর ব্যাখ্যায় বলেছেন ((قال ابن عباس : فرائضي وأحكامي)) অর্থাৎ রাসূলগণ এসে যখন তোমাদেরকে আমার ফরজ-সমূহ এবং শরীয়তের বিধানাবলী পাঠ করে শুনাবেন!

৪ কাদিয়ানী সাহেবের বহু রচনায় পরিষ্কার করে লিখা আছে যে, তার দাবীকৃত নবুওয়ত আসল নয়, বরং আনুগত্যস্বরূপ নবুওয়ত; আনুগত্যের মাধ্যমে তার উক্ত নবুওয়ত অর্জিত হয়। (দেখুন রূহানী খাযায়েন ২২:৩০)। এখন প্রশ্ন হল, তাহলে আয়াতে উল্লিখিত রাসূলগণের সাথে মির্যা কাদিয়ানীর কী সম্পর্ক? যেখানে তারই বক্তব্য হল, তার নবুওয়ত আসল নয়। পূর্বের নবীদের মত সরাসরি আল্লাহপ্রদত্তও নয়! এমতাবস্থায় সে ঐ আয়াতটির “রসুল” শব্দেও কিভাবে শামিল হতে পারে?

লিখক প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী
শিক্ষাবিদ ও গবেষক

কাদিয়ানীদের বুদ্ধিবৃত্তিক দুইখানা মারণাস্ত্র সামলাবেন কিভাবে

কাদিয়ানীদের বুদ্ধিবৃত্তিক ‘টেবিলটি’কে কিভাবে উলটে দেবেন??

তর্ক শুরু হলেই কাদিয়ানী পণ্ডিতগণ মনস্তাত্ত্বিকভাবে মুসলিম উম্মাহকে দুর্বল করার জন্য বিশেষতঃ দুটি বুদ্ধিবৃত্তিক অস্ত্র ব্যবহার করে। একটি হল, আরে বর্তমান দুনিয়ার মুসলমানদের অবস্থার দিকে তাকিয়ে দেখো, তাদের অবস্থা কতটা শোচনীয়, তারা কেমন নিপীড়িত ও বঞ্চিত। তাদের আলেমরা আকাশের নীচে সর্বনিকৃষ্ট জীব, একে অন্যে দলাদলিতে লিপ্ত। বর্তমানে ইসলামের আলো যেন নিভু নিভু অবস্থা! এ অবস্থায় আল্লাহ যদি দুনিয়ায় কোনো মহাপুরুষ প্রেরণ না করেন তবে আর কখন প্রেরণ করবেন? তাই আমরা বিশ্বাস করি যে, সেই ব্রিটিশ পিরিয়ডে ইসলামের দুর্দিনে মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী প্রতিশ্রুত মসীহ এবং মাহদী হিসেবে আল্লাহর একজন প্রেরিত নবী। (নাউযুবিল্লাহ)।

দ্বিতীয় অস্ত্র হল, ঈসা (আ.) জীবিত নেই, আর একথা কুরআন দ্বারা অকাট্যভাবে প্রমাণিত। সুতরাং আগত ঈসা ইবনে মরিয়ম দ্বারা ‘রূপক ঈসা’-ই উদ্দেশ্য, আর তিনিই হলেন মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানী (মৃত. ১৯০৮ ইং)। কেননা দুই হাজার বছর পূর্বের ঈসা (আ.) বর্তমানে বেঁচে থাকা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক। কেননা এ বয়সের কেউই সাধারণত বেঁচে থাকেন না, বেঁচে থাকা অসম্ভব! (নাউযুবিল্লাহ)।

কাদিয়ানীদের যুক্তিগুলো বাহ্যিকভাবে অত্যন্ত আকর্ষণীয়। কিন্তু একটু গভীর থেকে চিন্তা করলে যে কেউ সহজেই ধরতে পারবে যে, তাদের ঐ সমস্ত যুক্তিতর্কের মূল উদ্দেশ্য একটাই, সেটি হল- মির্যা গোলাম আহমদ কাদিয়ানীকে হযরত ঈসা ইবনে মরিয়ম আর হযরত ইমাম মাহদী হিসেবেই দুনিয়ায় প্রতিষ্ঠিত করতে চাওয়া। তাই আপতত কোনো ধরণের বিতর্কে না গিয়েই আমরা তাদেরকে মাত্র কয়েকটি প্রশ্ন করতে চাই!

তর্কের খাতিরে মেনে নিচ্ছি যে, আপনাদের কথা অনুসারে হযরত ঈসা (আ.) জীবিত নেই এবং দুনিয়ার সব আলেম উলামা গোমরাহ, পথভ্রষ্ট। কিন্তু তাই বলে কি মির্যা কাদিয়ানী নিজ দাবীতে সত্য হয়ে যাবে? কারণ বাহায়ী জামাতের প্রতিষ্ঠাতা ও মসীহ দাবীকারী মির্যা হুসাইন আলী নূরী তথা বাহাউল্লাহ ইরানীও (জন্ম-মৃত্যু ১৮১৭-১৮৯২) হযরত ঈসা (আ.)-কে মৃত দাবী করার মাধ্যমে নিজেকে ‘মসীহ’ (ঈসা) বলে দাবী করে গেছেন।

দুনিয়ার বর্তমান আদর্শিক অবস্থা গত একশ বছর চেয়ে অনেক বেশি খারাপ। যে কেউ একথা স্বীকার করতে বাধ্য। কিন্তু আখেরি নবী মুহাম্মদে আরাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আবির্ভাবের পরেও দুনিয়ার অবস্থা খারাপ হলেই কি আল্লাহ একেরপর এক নবী রাসূল পাঠাতেই থাকবেন? তাহলে এ শতাব্দীতেও যারা নবী রাসূল দাবী করবে আপনারা কি তাদেরকেও নবী রাসূল মেনে নেবেন?

আল্লাহতালা দুনিয়ায় ঈসা মসীহ এবং ইমাম মাহদী দুইজনকেই যথাসময় প্রেরণ করার কথা যদি সত্যিই বলে থাকেন, তাহলে সেটির বিবরণ পবিত্র কুরআনে অথবা বিশুদ্ধ সূত্রে বর্ণিত হাদীসগুলোয় অবশ্যই থাকবে। কিন্তু কোনো একটি হাদীসও কি আপনারা মির্যা কাদিয়ানীর সাথে মিলাতে পেরেছেন? পারেননি। দয়াকরে আমাদেরকে গ্রহণযোগ্য দলিলের ভিত্তিতে অবশ্যই প্রমাণ করে দেখাবেন যে, মির্যা কাদিয়ানী কিভাবে মসীহ হলেন? কিভাবে ইমাম মাহদী হলেন? কিভাবে তিনি আল্লাহর পক্ষ হতে একজন নবীও হলেন?

লিখক, শিক্ষাবিদ ও গবেষক

প্রিন্সিপাল নূরুন্নবী